ইউজার লগইন

যুদ্ধাপরাধীদের বিচার দাবীতে উত্তাল সেই গণআদালত: পলাশ ভাইয়ের তোলা ছবি এবং রায়ের বিস্তারিত

কুখ্যাত যুদ্ধাপরাধী গোলাম আজম গংদের বিরুদ্ধে গোটা জাতি ফুঁসে উঠেছিলো শহীদ জননী জাহানারা ইমামের নেতৃত্বে। সরকার যখন যুদ্ধাপরাধীদের বিচার দাবীকে অগ্রাহ্য করছিলো তখন ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির ডাকে ২৬ মার্চ সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অনুষ্ঠিত হয়েছিলো গণআদালত। সমস্ত দেশ থেকে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের লোকেরা জড়ো হয়েছিলো ঢাকায়। জামায়াত শিবিরও জড়ো করেছিলো তাদের ক্যাডার বাহিনী। আগের রাতেই সরকার ১৪৪ ধারা জারী করেছিলো। গোলাম আজমকে নিরাপত্তা হেফাজতে নিয়ে রক্ষা করেছিলো তৎকালীন সরকার! আর জাহানারা ইমামসহ ২৪ জনের বিরুদ্ধে গণআদালত গঠনের অপরাধে রাষ্ট্রদ্রোহীতার মামলা করা হয়!

কিন্তু তবু থামেনি জনতা। ৫ লক্ষাধিক মানুষের উপস্থিতিতে সেদিন বিচারে গোলাম আযমের অপরাধকে মৃত্যুদণ্ডাদেশযোগ্য ঘোষণা করে সরকারের কাছে আবেদন জানানো হয় তা কার্যকরের।

সেই দিনের সেই আন্দোলন আর গণআদালতের ছবি তুলেছিলেন তৎকালীন রাজনৈতিক কর্মী এবং সাংবাদিক মনজুরুল আজিম পলাশ। এখন তিনি আছেন ইউকেতে। কিন্তু এখনো দেশ আর মানুষের জন্য কাজ করে চলছেন নিরলস।

গতবছরই পলাশ ভাইকে অনুরোধ করেছিলাম এই ছবিগুলো এবং ঐ দিনের অভিজ্ঞতা নিয়ে একটি ব্লগ লিখতে। কিন্তু তিনি সময় করে উঠতে পারেননি।

আজ শহীদ জননী জাহানারা ইমামের মৃত্যুবার্ষিকীতে মনে হলো ছবিগুলো ব্লগে থাকা দরকার। পলাশ ভাইকে ব্যক্তিগত মেসেজ পাঠিয়ে ব্লগ লেখার ইচ্ছার কথা জানালে তিনি সানন্দে অনুমতি দিলেন।

এখানে পলাশ ভাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে রাখি। এই ছবিগুলো এক একটা ইতিহাস।

গণ আদালত

গণ আদালত

গণ আদালত

গণ আদালত

গণ আদালত

গণ আদালত

গণ আদালত

গণ আদালত

গণ আদালত

গণ আদালত

গণ আদালত

গণ আদালত

গণ আদালত

গণ আদালত

গণ আদালত

গণ আদালত

গণ আদালত

গণ আদালত

গণ আদালত

গণ আদালত

গণ আদালত

গণ আদালত

গণ আদালত

গণ আদালত

গণ আদালত

গণ আদালত

গণ আদালত
..................................................................................................................

এবার আসুন দেখি ঐতিহাসিক সেই গণ আদালতে কারা ছিলেন এবং কী রায় হয়েছিলো।

গণআদালতের সদস্যবৃন্দ:
১. জাহানারা ইমাম, চেয়ারম্যান, গণআদালত
২. গাজীউল হক, এডভোকেট সদস্য, গণআদালত
৩. ডঃ আহমদ শরীফ, এডভোকেট সদস্য, গণআদালত
৪. স্থপতি মাজহারুল ইসলাম, এডভোকেট সদস্য, গণআদালত
৫. ব্যারিস্টার শফিক আহমেদ, এডভোকেট সদস্য, গণআদালত
৬. ফয়েজ আহমদ, এডভোকেট সদস্য, গণআদালত
৭. কবীর চৌধুরী, এডভোকেট সদস্য, গণআদালত
৮. কলিম শরাফী, এডভোকেট সদস্য, গণআদালত
৯. মওলানা আবদুল আওয়াল, এডভোকেট সদস্য, গণআদালত
১০. লে. কর্ণেল (অব.) কাজী নুরুজ্জামান, এডভোকেট সদস্য, গণআদালত
১১. লে. কর্ণেল (অব.) আবু ওসমান চৌধুরী, এডভোকেট সদস্য, গণআদালত

গণআদালত মোকদ্দমা নং ১/১৯৯২
বাংলাদেশের গণমানুষ, অভিযোগকারী
বনাম
জনাব গোলাম আযম
পিতা : মওলানা গোলাম কবির
সাকিন : পাকিস্তান

বর্তমান অবস্থান: ১১৯, কাজী অফিস লেন, মগবাজার, থানা: রমনা, জেলা: ঢাকা, অভিযুক্ত ১৯৭১-এর মুক্তিযুদ্ধকালে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী কর্তৃক গণহত্যা, লুন্ঠন, অগ্নিসংযোগ, জনপদ ধ্বংস, নারী ধর্ষণ প্রভৃতি অপরাধজনক কাজে মদদকারী এবং স্বয়ং শান্তি কমিটি, আল বদর, আল শামস বাহিনী গঠন করে এবং হানাদার পাকিস্তানী বাহিনীকে রাজাকার বাহিনী গঠন করায় প্রত্যক্ষ সহযোগিতা করে গণহত্যা, লুন্ঠন, অগ্নিসংযোগ, জনপদ হত্যার নীলনকশা প্রণয়ন করে, নিজস্ব বাহিনী আল বদর, আল শামস দিয়ে তাদের হত্যা করানো এবং মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তীকালে 'পূর্ব পাকিস্তান পুনরুদ্ধার কমিটি" গঠন করে বিদেশী শত্রুর চর হিসেবে বাংলাদেশের স্বাধীনতা এবং সার্বভৌমত্বের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে অপরাধ সংগঠনের অভিযোগে অভিযুক্ত।

অভিযোগকারীর পক্ষে কৌসলিবৃন্দ :
১. এডভোকেট জেড আই পান্না
২.এডভোকেট শামসুদ্দিন বাবুল
৩. এডভোকেট উম্মে কুলসুম রেখা
অভিযুক্তের পক্ষে গণআদালত নিযুক্তীয় কৌসুলী :
১. এডভোকেট মো. নজরুল ইসলাম

রায়

বাংলাদেশের গণমানুষের পক্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. বোরহানউদ্দিন খান জাহাঙ্গীর, কবি শামসুল হক, ড. আনিসুজ্জামানের উত্থাপিত অভিযোগের ভিত্তিতে অত্র গণআদালতে এই মোকাদ্দমার সূত্রপাত:

অভিযোগের বিবরণে প্রকাশ, জনাব গোলাম আযম, পিতা মরহুম মওলানা গোলাম কবির একজন পাকিস্তানী নাগরিক। বহুদিন ধরে অবৈধভাবে বাংলাদেশে, ঢাকা মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশনের অন্তর্গত মগবাজার এলাকায় ১১৯ নম্বর কাজী অফিস লেনে অবস্থানরত। গোলাম আযম ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ থেকে ডিসেম্বর মাস পর্যন্ত বাংলাদেশে হানাদার তথা দখলদার বাহিনীকে সর্বোতভাবে প্রত্যক্ষ পরোক্ষভাবে ত্রিশ লক্ষ নিরীহ নিরস্ত্র নারী, পুরুষ ও শিশু হত্যা এবং দুই লক্ষ নারী অপহরণ ও ধর্ষনের সহায়তা করে যুদ্ধাপরাধ এবং মানবতা বিরোধী অপরাধ করেছেন। উক্ত সময়ে তিনি বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে শান্তি কমিটি, আল বদর, আল শামস গঠন করে তাদের এবং তার অনুগত রাজাকার বাহিনী দিয়ে সাহায্য করে পাকিস্তানী বাহিনী কর্তৃক দুই লক্ষ নারীকে অপহরন, ধর্ষণ এবং শ্লীলতাহানিতে প্ররোচিত করে হীন অপরাধ সংগঠন করিয়েছেন, উক্ত সময়ে তিনি বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে তার অনুগত আল বদর, আল শামস এবং রাজাকার বাহিনীকে নির্দেশ দিয়ে ব্যাপক গণহত্যা সংঘটিত করিয়েছেন এবং হানাদার পাকিস্তানী বাহিনীকে গণহত্যার উস্কানি, প্ররোচণা এবং সাহায্য দান করেছেন এবং তার উক্ত কার্যের ফলে বাংলাদেশের ত্রিশ লক্ষ নারী, পুরুষ ও শিশু নিহত হয়েছে, উক্ত সময়ে অভিযুক্ত গোলাম আযম তার গঠিত ও অনুগত আল বদর, আল শামস ও শান্তি কমিটি দিয়ে মুক্তিযুদ্ধে লিপ্ত মুক্তিযোদ্ধাদের নিরীহ পরিবার পরিজনের উপর সশস্ত্র ধ্বংসযজ্ঞ অভিযান পরিচালনা করে, উক্ত সময়ে অভিযুক্ত গোলাম আযম বাংলাদেশের নাগরিকদের মধ্যে বিদ্বেষ ও সহিংসতা ছড়ানোর লক্ষ্যে ধর্মের বিকৃত ব্যাখ্যা প্রদান করে ধর্মকে রাজনৈতিক হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করে ধর্মের নামে লক্ষ লক্ষ মানুষকে হত্যা করে এবং এই দেশের শিল্প-সাংস্কৃতিকে ধ্বংস করার প্রচেষ্টায় লিপ্ত হয় এবং আজো এই দেশের শিল্প-সংস্কৃতিকে বিকৃত করা এবং শিক্ষা শিল্প ও সংস্কৃতির ক্ষেত্রসমূহ ধ্বংস করার অপচেষ্টায় লিপ্ত করেছে, অভিযুক্ত গোলাম আযম ১৯৭২ সাল থেকে ১৯৭৫ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়ে পাকিস্তানের এজেন্ট হিসেবে পূর্ব পাকিস্তান পুনরুদ্ধার কমিটি গঠন করে বাংলাদেশকে স্বীকৃতি প্রদান না করার জন্য বিদেশী দেশসমূহকে প্ররোচিত করে এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়, অভিযুক্ত গোলাম আযম বিদেশী নাগরিক হয়ে গণতান্ত্রিক বাংলাদেশে বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক সংবিধান বিরোধী ফ্যাসিবাদ প্রতিষ্ঠার জন্য প্রচার চালিয়ে মানবতাবিরোধী অপরাধ করেছে। ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চের পর অভিযুক্ত গোলাম আযম তার নিজস্ব অনুগত বাহিনী আল বদর, আল শামস এবং রাজাকার বাহিনী দিয়ে লুটতরাজ এবং নিরস্ত্র নিরীহ মানুষের ঘরে অগ্নিসংযোগ করে অসংখ্য জনপদ ধ্বংস করেছে, ১৯৭১ সালের নভেম্বর ও ডিসেম্বর মাসে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর মেজর জেনারেল রাও ফরমান আলীর সঙ্গে ষড়যন্ত্র ও চক্রান্ত করে বাংলাদেশের বুদ্ধিজীবিদের অপহরণ ও হত্যা করে মানবতাবিরোধী জঘন্য অপরাধ সংঘটন করে।

উপরোক্ত অভিযোগের ভিত্তিতে অভিযুক্ত গোলাম আযমের বিরুদ্ধে ১২(বার)টি সুনির্দিষ্ট অভিযোগ রচনা করা হয়। গণআদালতের বিচারে আত্মপক্ষ সমর্থন করতে অনুপস্থিত থাকায় ন্যায় বিচারের জন্য অভিযুক্ত গোলাম আযমের পক্ষে এডভোকেট মো. নজরুল ইসলামকে গণআদালত কৌসুলি নিযুক্ত করেন এবং গোলাম আযমের পক্ষে নিযুক্ত কৌসুলিকে অভিযোগ সমূহ পাঠ করে শোনান। অভিযুক্ত গোলাম আযমের পক্ষে নিযুক্ত কৌসুলি তার মক্কেল গোলাম আযমকে নির্দোষ বলে দাবি করেন।

বিচার্য বিষয়সমূহ:

১. অভিযুক্ত গোলাম আযম কি ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ থেকে ডিসেম্বর মাস পর্যন্ত বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধকালে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীকে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে সহায়তা করে ত্রিশ লাখ নারী, পুরুষ ও শিশু হত্যা এবং দু'লাখ নারী অপহরন ও ধর্ষণের সহায়তা করে যুদ্ধাপরাধ ও মানবতাবিরোধী অপরাধ করেছেন?
২. অভিযুক্ত গোলাম আযম কি ২৬ মার্চ থেকে ডিসেম্বর মাস পর্যন্ত বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে আল বদর, আল শামস গঠন করে এবং তার অনুগত রাজাকার বাহিনী দিয়ে পাকিস্তানী বাহিনীকে দু'লাখ নারী অপহরণ এবং ধর্ষণ ও শ্লীলতাহানিজনক অপরাধ সংঘটন করতে সাহায্য করেছেন?
৩. অভিযুক্ত গোলাম আযম কি পাকিস্তানী বাহিনীকে গণহত্যার উস্কানি এবং প্ররোচনা দান করেছেন?
৪.অভিযুক্ত গোলাম আযম কি আলবদর, আলশামস বাহিনী গঠন করে তাদের দিয়ে মুক্তিযুদ্ধে লিপ্ত মুক্তিযোদ্ধাদের নিরীহ পরিবার পরিজনের উপর সশস্ত্র ধ্বংসযজ্ঞ পরিচালনা করেছেন?
৫. অভিযুক্ত গোলাম আযম কি বাংলাদেশের নাগরিকদের মধ্যে বিদ্বেষ এবং সহিংসতা ছড়ানোর লক্ষ্যে ধর্মের নামে বিকৃত ব্যাখ্যা প্রদান করে ধর্মকে রাজনৈতিক হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করে ধর্মের নামে লাখ লাখ মানুষকে হত্যা করেছে এবং এই দেশের শিল্প-সংস্কৃতিকে ধ্বংস করার প্রচেষ্টায় লিপ্ত হয়েছে?
৬. অভিযুক্ত গোলাম আযম কি তার নিজস্ব অনুগত বাহিনী আল বদর, আল শামস ও রাজাকার বাহিনী দিয়ে লুটতরাজ, অগ্নিসংযোগ করে অসংখ্য জনপদ ধ্বংস করে মানবতাবিরোধী অপরাধ সংঘটন করেছেন?
৭. অভিযুক্ত গোলাম আযম কি পাকিস্তান হানাদার বাহিনীর মেজর জেনারেল রাও ফরমান আলীর সঙ্গে ষড়যন্ত্র ও চক্রান্ত করে এই দেশে ১৯৭১ সালের নভেম্বর ও ডিসেম্বর মাসে তার অনুগত বাহিনী আলবদর ও আলশামস দিয়ে বুদ্ধিজীবি হত্যা সংঘটন করেছেন?
৮. অভিযুক্ত গোলাম আযম কি ১৯৭২ সাল থেকে ১৯৭৫ সাল পর্যন্ত পূর্ব পাকিস্তান পুনরুদ্ধার কমিটি গঠন করে বাংলাদেশের সার্বভৌমত্ব এবং স্বাধীনতার বিরুদ্ধে চক্রান্ত ও ষড়যন্ত্র করেছে?
৯. অভিযুক্ত গোলাম আযম কি গণতান্ত্রিক বাংলাদেশে ফ্যাসিবাদ প্রতিষ্ঠার জন্য প্রচারকার্য চালিয়ে মানবতাবিরোধী অপরাধ করেছেন?
১০. অভিযুক্ত গোলাম আযম কি স্বাধীনতা যুদ্ধ চলাকালে তার অনুগত আলবদর, আলশামস বাহিনী এবং রাজাকার বাহিনী দিয়ে বাংলাদেশে ব্যাপক গণহত্যা চালিয়ে জঘন্যতম মানবতাবিরোধী অপরাধ করেছেন?

বিচার্য বিষয়সমূহের পর্যালোচনা এবং সিদ্ধান্ত

বিচারের সুবিধার্থে সমস্ত বিচার্যবিষয়সমূহ একসঙ্গে পর্যালোচনা করা হলো। গণআদালতে এই মোকদ্দমায় পক্ষ মোকদ্দমা প্রদানের জন্য মোট ১৫ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ করেন। ফরিয়াদী পক্ষের ১ নং সাক্ষী ড. আনিসুজ্জামান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক। তিনি তার লিখিত জবানবন্দিতে বলেন যে, অভিযুক্ত গোলাম আযম ১৯৭১ সালে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর প্রতিটি অন্যায়, বেআইনি, অমানবিক ও নিষ্ঠুর কাজকে প্রকাশ্যে সমর্থন করেছে এবং মুক্তিযোদ্ধাদের দেশদ্রোহী বলে আখ্যায়িত করার প্ররোচনা দিয়েছিলেন এবং তার প্ররোচনায় দেশের শ্রেষ্ঠ সন্তানদের আলবদর এবং আলশামসবাহিনী হত্যা করে। এই সাক্ষী তার সাক্ষ্যে আরো বলেন যে, অভিযুক্ত গোলাম আযম ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর থেকে ১৯৭৮ সালের ১০ জুলাই পর্যন্ত পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে সশরীরে উপস্থিত থেকে বক্তৃতা-বিবৃতি দিয়ে মুদ্রিত ও প্রকাশিত প্রচারপত্র ও প্রবন্ধের মাধ্যমে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ রাষ্ট্রকে দূর্বল সহায়হীন, বিচ্ছিন্ন ও বিনষ্ট করার যড়যন্ত্র করেছে। ড. আনিসুজ্জামান মৌখিক সাক্ষ্যের সমর্থনে গোলাম আযমের মুদ্রিত ও প্রকাশিত বিভিন্ন বক্তৃতা, বিবৃতি, প্রচারপত্র এবং প্রবন্ধসমূহ দলিলরূপে গণআদালতে দাখিল ও প্রমাণ করেন। (গণআদালত প্রদর্শনীপর্ব)

ফরিয়াদী পক্ষের দ্বিতীয় সাক্ষী ড. বোরহানউদ্দিন খান জাহাঙ্গীর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক। তিনি তার লিখিত জবানবন্দিতে ১ নং সাক্ষী ড. আনিসুজ্জামানের বক্তব্যকে পুরোপুরি সমর্থন করেন। তিনি তার সাক্ষ্যে বলেন, গোলাম আযম পূর্ব পাকিস্তান জামাতে ইসলামীর আমির হিসেবে হানাদার পাকিস্তানী বাহিনীকে গণহত্যা, নারীধর্ষণ, লুণ্ঠন এবং জনপদ ধ্বংসের কাজে সহায়তা দান করেছে। ড. বোরহানউদ্দিন খান জাহাঙ্গীর তার বক্তব্যের সমর্থনে দৈনিক পূর্বদেশ ৫ এপ্রিল, ২৭ জুন (গণআদালত প্রদর্শনী খ পর্ব), দৈনিক পাকিস্তান ১৬ এপ্রিল, ২০ এপ্রিল, ১৬ আগষ্ট, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২৪ নভেম্বর, ১৯ জুন, ২১ জুন, ১৯ আগস্ট, ১৭ সেপ্টেম্বর সংখ্যা সমূহ (গণআদালতে প্রদর্শনী গ পর্ব), দৈনিক আজাদ ২১ জুন (গণআদালতে প্রদর্শনী ঘ পর্ব), দৈনিক সংগ্রাম ১৭ জুন, ২২জুন, ২১ জুন (গণআদালতে প্রদর্শনী ঙ পর্ব), আদালতে প্রমাণ করেন।

ফরিয়াদী পক্ষের ৩ নং সাক্ষী ড. মেঘনাগুহঠাকুরতা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ের শিক্ষক। তিনি তার জবানবন্দীতে ড. আনিসুজ্জামান এবং ড. বোরহানউদ্দিন খান জাহাঙ্গীরকে পুরোপুরি সমর্থন করেন।

ফরিয়াদী পক্ষের ৪র্থ সাক্ষী সৈয়দ শামসুল হক বাংলাদেশের বিখ্যাত উপন্যাসিক, কবি এবং নাট্যকার। তিনি তার লিখিত জবানবন্দীতে ফরিয়াদী পক্ষের ১ নং এবং ২ নং সাক্ষীকে পুরোপুরি সমর্থন করেন। তিনি তার সাক্ষ্যে বলেন গোলাম আযম মুক্তিযুদ্ধকালে বাংলাদেশের দীর্ঘ ঐতিহ্যবাহী সংস্কৃতিকে ধ্বংস করার লক্ষ্যে সক্রিয় ছিলো। তিনি তার সাক্ষ্যে আরো বলেন, গোলাম আযম পাকিস্তানী বাহিনীর সঙ্গে সক্রিয় সহযোগিতা করে, মদদ দান করে বাঙালী জাতিকে সর্ব অর্থে নিশ্চিহ্ন করার লক্ষ্যে নীলনকশা প্রণয়ন করে। তিনি আরো বলেন, গোলাম আযম বাংলাদেশের অধিকাংশ মানুষের যে ধর্মবিশ্বাস সেই ইসলামের বিকৃত ব্যাখ্যা করেছে। মুক্তিযোদ্ধা ও স্বাধীনতাকামী মানুষের ওপর অমানুষিক নির্যাতন করেছে এবং লাখ লাখ মানুষের প্রাণ হরণ করেছে। তিনি গোলাম আযম কর্তৃক কার্যকে হিটলারের নাৎসী বাহিনীর অমানবিক পৈশাচিক কার্যের সঙ্গে তুলনা করেন, সৈয়দ শামসুল হক তার সাক্ষ্যে ১/২/৩ নং সাক্ষীকে পুরোপুরি সমর্থন করেন এবং বুদ্ধিজীবিদের হত্যার জন্য গোলাম আযমকে দায়ী করেন।

ফরিয়াদী পক্ষের ৫ম সাক্ষী শাহরিয়ার কবির একজন খ্যাতনামা সাংবাদিক ও সাহিত্যিক। তিনি তার জবানবন্দীতে গোলাম আযমের বিরুদ্ধে ফ্যাসিবাদ ও নাৎসীদের অনুসরনের অভিযোগ উত্থাপন করে বলেন, গোলাম আযমের নেতৃত্বে জামাতে ইসলাম ফ্যাসিস্ট দর্শনের অনুসারী হয়ে ১৯৭১ সালে বাংলাদেশে ব্যাপক গণহত্যা চালিয়েছে। পাকিস্তানী সামরিক জান্তাকে নানাভাবে প্ররোচিত করে গণহত্যাযজ্ঞ ঘটিয়েছে। গোলাম আযমের পক্ষে তাকে জেরা করা হয় কিন্তু তিনি তার সাক্ষ্যে অবিচল থাকেন।

ফরিয়াদী পক্ষের ৬ষ্ঠ সাক্ষী মুশতারী শফী বাংলাদেশের খ্যাতনাম লেখিকা। তিনি তার জবানবন্দীতে ফরিয়াদী বাদে ১-৫ নং সাক্ষীদের বক্তব্য পুরোপুরি সমর্থন করেন।

ফরিয়াদী পক্ষের ৭ম সাক্ষী সাইদুর রহমান শহীদ প্রকৌশলী ফজলুর রহমানের পুত্র। ১৯৭১ সালের ১৫ এপ্রিল পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী এবং গোলাম আযমের জামাতে ইসলামের দলীয় লোকগণ তার বাবা, মা ও তিন বড় ভাইকে গুলি করে এবং বেয়নেট চার্জ করে হত্যা করে। সে তার জবানবন্দিতে গোলাম আযমকে হানাদার পাকিস্তানী বাহিনীর সহায়তাকারী হিসেবে অভিযুক্ত করেন।
অভিযুক্ত গোলাম আযমের কৌসুলি তাকে কোনো জেরা করেন না।
ফরিয়াদী পক্ষের ৮ম সাক্ষী অমিতাভ কায়সার বিখ্যাত সাংবাদিক শহীদুল্লাহ কায়সারের পুত্র। সে তার জবানবন্দীতে ডিসেম্বর মাসের ১৪ তারিখে গোলাম আযমের নেতৃত্বে পরিচালিত আল বদর বাহিনীর সদস্য এবিএম খালেক মজুমদার (বর্তমানে জামাতে ইসলামীর সদস্য) এবং আরো কয়েকজন সশস্ত্র আলবদর শহীদুল্লাহ কায়সারকে বাড়ি থেকে হত্যার উদ্দেশ্যে বলপূর্বক অপহরণ করে নিয়ে যায়। শহীদুল্লাহ কায়সার আর ফিরে আসেননি। পিতার অপহরণ এবং হত্যার জন্য অমিতাভ কায়সার গোলাম আযমকে এবং তার নেতৃত্বে গঠিত আল বদর বাহিনী এবং জামাতে ইসলামী দলকে দায়ী করে।

ফরিয়াদী পক্ষের ৯ম সাক্ষী হামিদা বানু মুক্তিযুদ্ধকালে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী গোলাম আযমের পূর্ণ সমর্থন ও সহযোগিতায় এই দেশের দু'লক্ষ নারীকে অপহরণ ও ধর্ষণ এবং শ্লীলতাহানী করে এই সম্পর্কে সাক্ষ্য প্রদান করেন। তিনি তার অভিযোগে দু'লক্ষ মহিলার ওপর পাশবিক নির্যাতনের জন্য এবং নারী হত্যার জন্য এবং গণহত্যার জন্য গোলাম আযমকে হানাদার বাহিনীর সহায়তাকারী হিসেবে অভিযুক্ত করেন।

ফরিয়াদী পক্ষের ১০ নং সাক্ষী মাওলানা ইয়াহিয়া মাহমুদ তার সাক্ষ্যে পবিত্র ইসলাম ধর্মের বিকৃত ব্যাখ্যা দেয়ার জন্য গোলাম আযম এবং তার দল জামাতে ইসলামকে দায়ী করেন এবং এই দেশে গণহত্যা, মুক্তিযোদ্ধা হত্যা এবং অগ্নিসংযোগ, জনপদ ধ্বংসের জন্য গোলাম আযমকে অভিযুক্ত করেন এবং আলেম সমাজের পক্ষ থেকে তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন।

ফরিয়াদী পক্ষের ১১ নং সাক্ষী জনাব আলী যাকের বাংলাদেশের বুদ্ধিজীবি হত্যার নীলনকশা প্রণয়নকারী হিসেবে গোলাম আযমকে অভিযুক্ত করে সাক্ষ্য প্রদান করেন। তিনি তার বক্তব্যের সমর্থনে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর মেজর জেনারেল রাও ফরমান আলীর সঙ্গে গোলাম আযমের গোপন বৈঠকের একটি আলোকচিত্র প্রদর্শন করেন। (গণআদালত প্রদর্শনী চ পর্ব)

ফরিয়াদী পক্ষের ১২ নং সাক্ষী ডা. মুশতাক হোসেন '৭১ সালের স্বাধীনতা যুদ্ধকালে বাংলাদেশের ডাক্তারদের হত্যা করার জন্য গোলাম আযম সহায়তা দিয়েছেন বলে সাক্ষ্য প্রদান করেন। ১৩-১৫ নং সাক্ষীগণ অন্যান্য সাক্ষীদের সমর্থন করেন। গণআদালত উপরে বর্ণিত সাক্ষ্য প্রমানাদি সঠিকভাবে পর্যালোচনা করে ১-৬ এবং ৯-১৫ নং সাক্ষীগণ পন্ডিত এবং সমাজের শীর্ষস্থানীয় ব্যক্তি ৭/৮ নং সাক্ষীদ্বয় শহীদ পিতার পুত্র। তাদের সাক্ষ্য এত সহজ-সরল এবং এমন প্রত্যয়ী যে, তাদের সাক্ষ্য বিন্দুমাত্র সন্দেহের উদ্রেক করে না। আমরা সাক্ষীদ্বয় প্রদত্ত সাক্ষ্য সত্য এবং দাখিলকৃত প্রদর্শনীসমূহ অকাট্য বিবেচনা করের সর্বসম্মতভাবে অভিযুক্ত গোলাম আযমের বিরুদ্ধে প্রতিটি অভিযোগ প্রমাণ হয়েছে বলে মনে করি এবং আনীত প্রতিটি অভিযোগের প্রত্যেক অপরাধে তাকে দোষী সাব্যস্ত করছি। বাংলাদেশসহ পৃথিবীর সমস্ত গণতান্ত্রিক দেশে উপরোক্ত অপরাধ দৃষ্টান্তমূলক মৃত্যুদণ্ডযোগ্য অপরাধ।

যেহেতু গণআদালত কোনো দণ্ডাদেশ কার্যকর করে না, সেহেতু অভিযুক্ত গোলাম আযমকে আমরা দোষী সাব্যস্ত করে তার বিরুদ্ধে উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য বাংলাদেশ সরকারের নিকট অনুরোধ জানাচ্ছি।

২৬ মার্চ, ১৯৯২
..................................................................................................................

গণআদালতের কার্যক্রম পর্যবেক্ষণের জন্য এসেছিলেন আন্তর্জাতিক পর্যবেক্ষক দল। এদের মধ্যে ছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের এটর্নি টমাস কিটিং। তিনি বলেছিলেন, "যুদ্ধাপরাধী গোলাম আযমের গণ-আদালতে বিচারের সময় যুদ্ধাপরাধীদের বিরুদ্ধে স্বতঃস্ফুর্ত জনতার বিশাল সমাবেশ পৃথিবীর একটি বিরল দৃষ্টান্ত।"

আগেই বলেছি, এই রায় কার্যকর হয়নি। তৎকালীন সরকার গোলাম আযমকে নিরাপত্তা হেফাজত দিয়ে গণআদালতকারীদের রাষ্ট্রদ্রোহী ঘোষণা করে হয়রানী করেছে!

এই গণ আদাল ঠেকাতে তৎকালীন সরকারের চেষ্টার কোনো কমতি ছিলো না। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সেদিন সকাল থেকে সব গেট বন্ধ করে দেয়া হয় এবং বিপুল সংখ্যক পুলিশ ও বিডিআর মোতায়েন করা হয়। বেলা ১২টার দিকে জনতার স্রোত বন্ধ গেট ভেঙ্গে ভিতরে প্রবেশ করে। কিছুক্ষণ পর জনতার ঢল দেখে পুলিশ, বিডিআর এলাকা ত্যাগ করে। অত্যন্ত শান্তিপূর্ণ ও শৃঙ্খলার মধ্যে গোলাম আযমের বিচার কাজ চলে।

গণ-আদালত গঠন এবং তার সামনে জনধিকৃত গণশত্রুর বিচার এ ভূখন্ডে নতুন এবং অভিনব হলেও এর নজির আছে। ভিয়েতনামে মার্কিনীদের আগ্রাসনকে কেন্দ্র করে লর্ড বার্টান্ড রাসেলের নেতৃত্বে একটি গণ-আদালত হয়। সেখানে ওই যুদ্ধে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার হয়। পরে রোমে একটি সংগঠন প্রতিষ্ঠিত হয় ইন্টারন্যাশনাল পিপলস ট্রাইব্যুনাল নামে। এই ট্রাইব্যুনাল পরে ভুপালে গ্যাস ট্র্যাজেডিতে যে গণহত্যা হয়েছিল তার বিচার করেছিল। ভিয়েতনামে অরেঞ্জ এসিড রেইনের জন্য দায়ী ব্যক্তিদের বিচার করে।

২৬ এপ্রিল ১৯৯২ বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে লক্ষাধিক মানুষের জনসমাবেশে জাহানারা ইমাম গণআন্দোলনের ৪ দফা ঘোষণা করেন। তিনি দাবী জানিয়েছিলেন গণ-আদালতের রায় কার্যকর করার এবং জামাত-শিবিরের ধর্ম-ভিত্তিক সাম্প্রদায়িক রাজনীতি বন্ধ করার। গণ-আদালতের উদ্যোক্তা জাহানারা ইমামসহ ২৪ জনের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহী মামলা করা হয়েছিল। এই মামলা প্রত্যাহার ও জাতীয় সমন্বয় কমিটির নেতা কর্মীদের বিরুদ্ধে পুলিশী হযরানি বন্ধ করার দাবীও জানানো হয়েছিল।

কিন্তু কিছুই হয়নি। সেদিনের সেই আন্দোলন বিএনপিকে হটিয়ে আওয়ামী লীগকে মসনদে বসার সুযোগ করে দেয়। তখনও জনগনের ধারণা ছিলো আওয়ামী লীগ যুদ্ধাপরাধের বিচার করবে। কিন্তু হয়নি।

আওয়ামী লীগ যদি মনে করে তাদের অতীত কোনো সুকীর্তির বলে তারা এবার দায়িত্ব পেয়েছে দেশ পরিচালনার। তারা ভুল করবে। বাংলাদেশের নতুন প্রজন্ম আগের চেয়েও বেশি সোচ্চার যুদ্ধাপরাধীদের বিচার দাবীতে। তার প্রতিফলন স্পষ্ট হয়ে দেখা গেছে গত সংসদ নির্বাচনে।
কিন্তু গত টার্মের মতোই এবারও যেন তারা ভুলতে বসেছে তাদের প্রধান দায়িত্বখানা। গড়িমসি করেই চলেছে। আশা করবো তারা যত দ্রুত সম্ভব ভুল বুঝতে পেরে সঠিক পথে আসবেন।

১১ জন বিচারকের সমন্বয়ে গঠিত এই গণআদালতের পঞ্চম বিচারক ব্যরিস্টার শফিক আহমেদ। যিনি বর্তমান সরকারের আইন মন্ত্রীও বটে।
বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণ আদালতের পর পর এই আন্দোলনের সঙ্গে সহমত ঘোষণা করে বলেছিলেন বুকের রক্ত দিয়ে হলেও তিনি এদেশে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করবেন।
এবং আমরা এও জানি বর্তমান সরকার ক্ষমতায় এসেছে প্রধানত যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করার প্রতিশ্রুতি দিয়েই।

আমরা অপেক্ষায় আছি...

পোস্টটি ৩০ জন ব্লগার পছন্দ করেছেন

রুবেল শাহ's picture


পোষ্টটি ষ্টিক করা হোক ..........

নজরুল ইসলাম's picture


আপনার অনুরোধ রক্ষা করা হয়েছে দেখছি
ধন্যবাদ আপনাকে

নুরুজ্জামান মানিক's picture


জরুরি দলিল । সরাসরি প্রিয়তে রাখলাম ।

নজরুল ইসলাম's picture


ধন্যবাদ মানিক ভাই

প্রাকৃতজন's picture


ধন্যবাদ নজরুল ইসলাম, সময়োপযোগী এই পোষ্টটা যথা সম্ভব ছড়িয়ে দিন।

নজরুল ইসলাম's picture


ধন্যবাদ প্রাকৃতজন

মামুন হক's picture


আমরা অপেক্ষায় আছি...

নজরুল ইসলাম's picture


সাহাদাত উদরাজী's picture


সময় নিয়ে পড়ব।

১০

নজরুল ইসলাম's picture


পড়ে জানায়েন

১১

লীনা দিলরুবা's picture


অনেকদিন পরে ছবিগুলো দেখলাম। ছবি কথা বলে।
বিশাল একটি কাজ করেছেন নজরুল ভাই। সেই আন্দোলনের পুরো ইতিহাসটি এক জায়গায় নিয়ে এসেছেন। গ্রেট ওয়্যার্ক।

১২

নজরুল ইসলাম's picture


আপনাকেও ধন্যবাদ লীনা আপা

১৩

মাসুদ's picture


অসাধারন কাজ।
ধন্যবাদ নজরুল ভাইকে। পোস্ট প্রিয়তে।

১৪

নজরুল ইসলাম's picture


আপনাকেও ধন্যবাদ

১৫

টুটুল's picture


প্রিয়তে ...

১৬

নজরুল ইসলাম's picture


ধন্যবাদ টুটুল ভাই

১৭

ভাস্কর's picture


প্রয়োজনীয় পোস্ট...

১৮

নজরুল ইসলাম's picture


ধন্যবাদ ভাস্করদা

১৯

বিবর্তনবাদী's picture


সংগ্রহে রাখবার মত পোস্ট। ধন্যবাদ।

২০

নজরুল ইসলাম's picture


আপনাকেও ধন্যবাদ

২১

নজরুল ইসলাম's picture


মনজুরুল আজিম পলাশ ভাই পোস্টটি পড়ে ব্যক্তিগত মেসেজে জানিয়েছেন-

পড়লাম... ভালো লেগেছে... অনেক ইনফর্মেটিভ... গণ আদালত নিয়ে যারা জানতে চাইবে তাদের জন্য কাজে লাগবে লেখাটা। ধন্যবাদ আসলে আপনাকেই লেখাটার জন্য, আমার ছবিগুলো তবু একটু জায়গা পেলো!

আবারো ধন্যবাদ জানাচ্ছি পলাশ ভাইকে

২২

Monjurul Azim Palash's picture


porlam...bhalo legheche...onek informative....bortoman pathoker jonno ebong agamite gono adalot niye jara jante chibe tader jonno kaje laghbe lakhata....dhonnobad ashole apnake-ei lakhatar jonno, amar chobigulo tobu ekthu kaje laghlo!

২৩

নজরুল ইসলাম's picture


পলাশ ভাই, আপনাকে মন্তব্য করতে দেখে ভালো লাগলো
আর এই ব্লগটা তৈরিই হতো না আপনার সহযোগিতা ছাড়া
ভালো থাকবেন

২৪

লোকেন বোস's picture


অত্যন্ত প্রয়োজনীয় এবং সময়োপযোগী পোস্ট। সংগ্রহে রাখলাম।
ধন্যবাদ মনজুরুল আজিম পলাশ এবং নজরুল ইসলামকে।

এই আন্দোলনের পুরা সুফল আওয়ামীলীগ ভোগ করেছে, এখনো করছে। কিন্তু বিনিময়ে কাজের কাজ কিছুই করেনি। এবার যদি না করে, তাহলে তারা অস্তিত্ব সঙ্কটে পড়বে বলে ধারণা করছি।

২৫

নজরুল ইসলাম's picture


আওয়ামীলীগ এই ভুলের বৃত্ত থেকে বের হয়ে আসবে বলেই আশা করি। নাইলে খবরাছে

২৬

জ্বিনের বাদশা's picture


অসংখ্য ধন্যবাদ নজরুল ভাই।
আবারও স্যালুট জানাই শহীদ জননীকে। যে স্বপ্ন নিয়ে তিনি সেই দুর্বার অভিযান শুরু করেছিলেন, দেরীতে হলেও তার বাস্তবায়নের সময় এসেছে বলে মনে হচ্ছে। বাস্তবায়ন হোক, জামাত শিবির যুদ্ধাপরাধীদের সবগুলার বিচার চাই

২৭

নজরুল ইসলাম's picture


জামাত শিবির যুদ্ধাপরাধীদের সবগুলার বিচার চাই।

২৮

নাহীদ Hossain's picture


ছবি আর তথ্যের খুবই চমৎকার একটা আয়োজন ...... ধন্যবাদ।

২৯

নজরুল ইসলাম's picture


আপনাকেও ধন্যবাদ নাহীদ

৩০

মীর's picture


নজরুল ভাই গ্রেট জব। আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ।

৩১

নজরুল ইসলাম's picture


আপনাকেও ধন্যবাদ মীর ভাই

৩২

এ টি এম কাদের's picture


মীর ভাই, ১মে ক্ষমা চেয়ে নিচছি দোষ যদি কিছু করে থাকি ! এইযে এতদিন বিনা কারণে আপনার পাঠকদের মনোক্ষুন্ন করে রখলেন এ বিচার আপনার উপর ছেড়ে দিলাম কিন্তু, ন্যায়বিচার পাবো আশা করি । হৃদয়হীণ মানুষ.! এভাবে বন্ধুদের ভুলে যেতে হয় !

৩৩

তানবীরা's picture


আমিও ছিলাম সেদিন সেখানে, ভাবতে ভালো লাগে,

প্রিয়তে। লাইক শুদ্ধ

৩৪

নজরুল ইসলাম's picture


আমরা তো অসীমের সহযাত্রী

৩৫

tareq ahmed's picture


thank u so much for this blog which contains historical evidences of the nation's struggle for raising voice for punishing the culprits like:Rajakars,AL Badrs and other war criminals.my heartiest wishes for Polash,who did a splendid job through documenting that historic day.it's almost 18 years!

৩৬

নজরুল ইসলাম's picture


ধন্যবাদ তারেক ভাই

৩৭

সাঈদ's picture


দারুন নজরুল ভাই।

শহীদ জননীর প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা ।

৩৮

নজরুল ইসলাম's picture


ধন্যবাদ সাঈদ ভাই
খেলা দেখতে দেখতে একলা একলা বিরিয়ানি আর বুরহানি খাওয়া ভালো না কিন্তু... হুশিয়ার Wink

৩৯

শওকত মাসুম's picture


সেই দিনটিতে আমিও ছিলাম সেখানে।
জননীকে শ্রদ্ধা।
পোস্টটা প্রিয়তে নিলাম।

৪০

নজরুল ইসলাম's picture


ধন্যবাদ মাসুম ভাই

৪১

ভাঙ্গা পেন্সিল's picture


মডুরা কেউ ছবিগুলা সাইজ করে দিয়েন। জোস পোস্ট।

৪২

নজরুল ইসলাম's picture


মডুরা তো সাইজ করে দিলো না Sad

৪৩

নুশেরা's picture


অসাধারণ পোস্ট!
যুদ্ধাপরাধীদের সাজা হোক।

৪৪

নজরুল ইসলাম's picture


যুদ্ধাপরাধীদের সাজা হোক।

৪৫

বোহেমিয়ান's picture


প্রিয়তে নেয়া হল ।

থ্যাঙ্কস নজরুল ভাই

৪৬

নজরুল ইসলাম's picture


ধন্যবাদ বোহেমিয়ান
চেতনাটা হৃদয়ে থাকুক

৪৭

নুরুজ্জামান মানিক's picture


জামায়াত শিবিরও জড়ো করেছিলো তাদের ক্যাডার বাহিনী।

হয়ত বিনয়ের কারণে নজরুল এই তথ্য ব্লগে উল্লেখ করেনি যে, জাশি’র মোকাবেলায় আমরাও তৈরি ছিলাম । আমাদেরও যুব কমান্ড ছিল ।

৪৮

নজরুল ইসলাম's picture


না বস, বিনয় না। আমি জানি সবই। আমিও পথেই ছিলাম। ৯২ থেকে ৯৪ ঘাদানিকের সব কর্মসূচীতেই রাস্তায় ছিলাম। কখনো লাঠি হাতে কখনো খালি হাতে।

কিন্তু শিবিরের ক্যাডার বাহিনীর মোকাবিলায় আমি ৫ লক্ষ মানুষের স্বতস্ফুর্ত অংশগ্রহণরেই বড় করে দেখাতে চাইছি। আসলে এটাই বড়। শিবির ঐখানে আক্রমন করে কিছুই ছিঁড়তে পারতো না। পাবলিকেই পিটায়া মেরে ফেলতো।

৪৯

নুরুজ্জামান মানিক's picture


শিবিরের ক্যাডার বাহিনীর মোকাবিলায় আমি ৫ লক্ষ মানুষের স্বতস্ফুর্ত অংশগ্রহণরেই বড় করে দেখাতে চাইছি। আসলে এটাই বড়। শিবির ঐখানে আক্রমন করে কিছুই ছিঁড়তে পারতো না। পাবলিকেই পিটায়া মেরে ফেলতো।

হ ।

৫০

নুরুজ্জামান মানিক's picture


তবে, (আশাকরি আপনিও একমত হবেন ) কিছু বিশেষ সময়ে ক্যাডারিজম কাজে দেয় -হুমায়ুন কবিরের কবিতার ভাষায় ট্রিগার চেপে ইশ্বর হবার দরকার পরে ।

যতদুর মনে পড়ে ঘাদানিকের বিপরীতে গড়ে উঠে ভারতীয় দালাল নির্মূল কমিটি ও যুব কমান্ড । যুব কমান্ডের নেতা ছিলেন আবু নাসের রহমতুল্লাহ । মূলত ফ্রিডম পার্টির সহযোগিতায় এটি পরিচালিত হয় । আর এদের নানা রকম নাশকতামুলক কর্মাকান্ডে সক্রিয়ভাবে ছিলেন একজন সেক্টর কমান্ডার ! ঐ যুব কমান্ড পরে নাম পরিবর্তন করে হয়েছে স্বাধীনতা ফোরাম । এই ফোরামের উপদেষ্টা মওদুদ আহমদ । জামাতের সংগ্রামের পাশেই এর দপ্তর ।

৫১

নজরুল ইসলাম's picture


হ... মনে পড়লো "ভারতীয় দালাল নির্মূল কমিটি"র কথা
আর মওদুদ একজন বাতিল মাল, তারে নিয়া কিছু বলার নাই

৫২

আশফাকুর র's picture


পোস্ট প্রিয়তে

৫৩

আশফাকুর র's picture


প্রথমে শুধু ছবি দেখে প্রিয়তে এড করেছিলাম।এখন পড়লাম..।অনেক তথ্য জানা গেল...।এখন ডাউনলোড করে পিডিএফ করে রাকছি.।নজরুল ভাই আপনাকে অনেক ধন্যবাদ।চারদিকের অপরাধিদের নির্লজ্জ আস্ফালন দেখতে দেখতে হতাশ হয়ে যাচ্ছিলাম।আপনার এ পোস্ট টা মনে সাহস এনে দিলো।

৫৪

নজরুল ইসলাম's picture


ধন্যবাদ আশফাকুর
সাহস থাকলে অনেকদূর যাওয়া যাবে
বিচার চাই গোলাম আযমদের

৫৫

নীড় সন্ধানী's picture


ছবিগুলিই একটা ইতিহাসের স্বাক্ষী। প্রিয়তে নিলাম। অসাধারণ পোষ্ট, তার চাইতেই বড় কথা এই সময়ের সবচে প্রাসঙ্গিক পোষ্ট। নজরুল ভাইকে ছবি সংগ্রহের প্রয়াসের জন্য ধন্যবাদ।

৫৬

নজরুল ইসলাম's picture


ধন্যবাদ নীড়দা

৫৭

মেসবাহ য়াযাদ's picture


স্যালুট বস... কত ছবি... কত স্মৃতি... মা'র আত্মার শান্তি হোক

৫৮

রানা's picture


এই তথ্যবহুল পোষ্টটার জন্য নজরুল ইসলামকে অনেক ধন্যবাদ

৫৯

নড়বড়ে's picture


দুর্দান্ত! 
বিচার দেখতে চাই ...

৬০

রুমন's picture


স্যালুট জানায়ে গেলাম বস।
সোজা প্রিয়তে

৬১

~স্বপ্নজয়~'s picture


অসাধারন একটা পোষ্ট হয়েছে ..... নজরুলকে কৃতজ্ঞতা ....

৬২

সামছা আকিদা জাহান's picture


অসাধারন পোস্ট। আপনাকে অভিনন্দন।

৬৩

শেখ আমিনুল ইসলাম's picture


অসাধারণ পোস্ট! সত্যিই অসাধারণ!
স্যালুট নজরুল ভাই। Applause Applause Applause Applause

৬৪

রণদীপম বসু's picture


দুর্দান্ত কাজ হয়েছে নজু ভাই ! ব্যাপক তথ্য-উৎস হিসেবেও কাজে লাগবে। স্যলুট।

৬৫

নীড় _হারা_পাখি's picture


অসাধারন পোষ্ট.। অনেক ইনফরমেটিভ.। প্রিয়তে নিলাম.। ধন্যবাদ নজরুল ভাই কে ।

আওয়ামীলীগ এই ভুলের বৃত্ত থেকে বের হয়ে আসবে বলেই আশা করি। নাইলে খবরাছে

জামাত শিবির যুদ্ধাপরাধীদের সবগুলার বিচার চাই।

৬৬

অতিথি's picture


চমতকার লাগলো।

৬৭

স্বাধীন's picture


স্যালুট!

৬৮

মজিবর's picture


গ্রেট জব। আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ না দিলেই নয়।

৬৯

অমি রহমান পিয়াল's picture


এই পো্স্টটা দেখে আমি কিছুক্ষণ শুধু কাঁদছি। সেই দিনটার প্রতিটি মুহূর্ত প্রতিটা উত্তেজনা যেন ফিরায়া দিলো ছবিগুলা। আম্মা তুমি জানো তোমার পা ছুয়ে নেয়া শপথ তোমার এই ছেলেটা ভুলে নাই, সে এখনও মাঠে আছে, এখনও লড়াইয়ে আছে।

আমরা বন্ধু কর্তৃপক্ষরে অন্তর থেকে শুভেচ্ছা এমন একটা পোস্টরে কাভারেজ দেওয়ার জন্য। আমার একটা ভুল ধারণা ছিলো এখানে মনে হয় এই ধরণের পোস্ট কেউ চায় না, সেটাও ভাঙলো।

নজরুল স্যালুট, পোস্টটা ফেসবুকে শেয়ার করলাম

৭০

হিমেল নাগ রানা's picture


আমি তখন ক্লাস ফাইভে পড়ি। ময়মনসিংহে থাকি। ঢাকায় বাবা থাকেন। রোজার মাশের বিশাল ছুটিতে ঢাকা বেড়াতে আসি প্রতি বছর। পত্রিকায় কাহিনী পড়ে বাবা খুব উত্তেজিত এবং আমাদের কে নিয়ে যাবেন বলে অফিস যাননি। এর পর যদিও বেশিদূর যেতে পারিনি কিন্তু সন্ধ্য পর্যন্ত বাসায় বসে বাবার ছটফটানি এখনো মনে পড়ে। সেই দিনের আর তার পরের দিনের ভোরের কাগজ আর ইত্তেফাক এখনো বাবার পার্সোনাল কালেকশন এ আর আমাদের মনে মনে। আপনারা অনেকেই সেই ইতিহাসের প্রত্যক্ষদর্শী আপনাদের কথা সরাসরি শোনাও আমার কাছে অনেক কিছু।

৭১

রাইয়ান আহমেদ's picture


অসাধারন! অনেক কিছু জানলাম। এই ঘটনা জানতাম না। ছবিগুলো খুব ভালো লাগছে। ইনশাল্লাহ, আমরা সব শক্তি দিয়ে এই জানোয়ারদের আটকাতে পারব। কিন্তু এই সমস্ত বেজন্মাদের কেন বিচার এর কাঠগড়ায় দাড় করানো হচ্ছে? সরাসরি মেরে ফেলতে পারলে কি ভাল হতো না? যেমনটা তারা ৭১ এ করেছিলো?

৭২

কুচ্ছিত হাঁসের ছানা's picture


জাস্ট একটা সশস্ত্র স্যালুট দিয়ে গেলাম।
অসাধারণ।

৭৩

মাটি's picture


একটা সেলুট দিয়ে গেলাম।

৭৪

টোকাই's picture


অসাধারন !

৭৫

এ টি এম কাদের's picture


খুবই প্রয়োজনীয় পোষ্ট ! প্রিয়তে নিলাম ।
বিদেশ ছিলাম সে সময় । গণ আদালতের কার্যক্রম সম্বন্ধে বিশেষ জানতে পারতামনা । বাংলা পেপার পাওয়া যেতনা তখন । অধির আগ্রহ নিয়ে অপেক্ষা করতাম, দেশ থেকে কারো আসার । আজো সকাল থেকে ওয়েট করছি ! কোটি মানুষের আকাংক্ষিত রায়টি আসছে কি ! না আসেনি ! কুত্তাটা পার পেয়ে গেছে । শংকা অবশ্য এমনটা ছিল । দুদিন আগে গওহর আর রাজ্জাক সিটিং করেছে । তো রায় নেতীর কথার বাইরে কি করে হয় ! ওকে আগামী ভোটে পার পেতে হবে যে !
গোলামের কোন প্রত্যক্ষ অপরাধ খঁুজে পায়নি ট্রাইবুনাল । জামাতের তত্কালীন চীফ হিসাবে তার অনুসারীদের কুকর্মের সাজা তাকে দেওয়া হয়েছে । এই একই নিয়মে বর্তমান দলীয় চীফদের তাদের সোনার ছেলেদের অপরাধের জন্য বিচার হবে কি ভবিষ্যতে ? হো নোজ ?

৭৬

মোহাম্মদ কামরুল ইসলাম's picture


বাংলাদেশ

৭৭

বাপ্পী নৃ's picture


চমৎকার পোস্ট। আমি কি ইস্টিশন ব্লগে আমার একটা লেখার জন্য এখান থেকে ছবি ও রেফারেন্স ব্যবহার করতে পারি?

মন্তব্য করুন

(আপনার প্রদান কৃত তথ্য কখনোই প্রকাশ করা হবেনা অথবা অন্য কোন মাধ্যমে শেয়ার করা হবেনা।)
ইমোটিকন
:):D:bigsmile:;):p:O:|:(:~:((8):steve:J):glasses::party::love:
  • Web page addresses and e-mail addresses turn into links automatically.
  • Allowed HTML tags: <a> <em> <strong> <cite> <code> <ul> <ol> <li> <dl> <dt> <dd> <img> <b> <u> <i> <br /> <p> <blockquote>
  • Lines and paragraphs break automatically.
  • Textual smileys will be replaced with graphical ones.

পোস্ট সাজাতে বাড়তি সুবিধাদি - ফর্মেটিং অপশন।

CAPTCHA
This question is for testing whether you are a human visitor and to prevent automated spam submissions.