ইউজার লগইন

Then she gets you on her wavelength

গুগল কিপ ইদানিং হয়ে গেছে আমার আবোলতাবোল ভাবনার সিন্দুক। যখন যা মাথায় আসে তাই সাথে সাথে লিখে ফেলি। এমনভাবে অস্থির হয়ে যাই লেখার জন্য যেন লিখে ফেলার মধ্যেই আছে জগতের সমস্ত বিভ্রান্তির সমাপ্তি। এইযে ব্ল্যাক হোলের মতো সর্বগ্রাসী শূন্যতাটার সামনে দাঁড়িয়ে আছি, অক্ষরগুলো টাইপ করা শেষ হলেই যেন এখান থেকে উড়ে পালিয়ে যাওয়ার জন্য দুটো পাখা ম্যাজিকালি উদয় হবে আমার পিঠে। ওইসব হয়না, লেখা শেষ হলে আমি চুপচাপ সামনের অন্ধকারের দিকে তাকিয়ে আরেকটা বিড়ি ধরাই।

বেশিদিন ডরম্যান্সি থাকে না। যতই শীতঘুম দেয়ার জন্য শরীর মন প্রস্তুত হয়ে যাক না কেন, জীবন তার বেয়োনেট নিয়ে হাজির হবে নানাবিধ প্যারা দেয়ার জন্য। মৃত্যু নিয়ে আগে যেরকম হাস্যকর মেলোড্রামাটিক অনুভূতি ছিল এখন বেশ একটা নির্লিপ্ততা কাজ করে, এক সময় এইসব অহেতুক সময়ক্ষেপন শেষ হবে ভাবতে ভালই লাগে।

তবে আত্মহত্যার কথা কেন ভাবিনা সেটা নিয়ে বেশ ভাবছি, বুঝতে পারছিনা যদি সব শেষ হওয়ার জন্য আমার এতোই আগ্রহ থাকে তাহলে কেন সেদিকে পা বাড়াচ্ছিনা। অথচ একসময় ঘন্টার পর ঘন্টা কাটাতাম আত্মহত্যার সবচেয়ে নিরাপদ (!) আর কম মেসি পদ্ধতি খুঁজে বের করার জন্য। কিন্তু তখন করিনাই কারন কোন পদ্ধতিই মনে ধরেনাই আর খুব সম্ভবত জীবন ব্যাপারটার মধ্যে তখনও কিছু আশা ভরসা দেখতে পেতাম। এখন টানেলের শেষে কোন আলো আছে কি নাই সেটা জানারও কোন আগ্রহ বোধ করিনা, আত্মহত্যার চিন্তাও বাড়তি মনে হয়। এক টানেলের পর আরেক টানেলের পর আরেক টানেলের পর আরেক টানেল …আলো থাকা না থাকায় কিছুই আসে যায়না। মোট কথা, দেলোয়ার ভাই যেরকম বলে - “কালকে আসুম, আজকে আমার সব পাওয়ার গেছেগা”। সেরকম আমারো মনে হয় চিরতরে সব পাওয়ার গেছেগা। কিছুই মনে হয়না আর, কোন অনুভূতিই যথেষ্ট শক্তিশালী হয়না। থাকে শুধু সবকিছুর প্রতি চরম অনীহা। এটাকে সহজেই মিডলাইফ ক্রাইসিস ধরে নেয়া যেতো, কিন্তু এই Ennui জন্মমূহুর্ত থেকে আমার মধ্যে ডিফল্ট হিসাবে এসেছে, পুকুরে ভেসে আসা কচুরিপানার মতোন, সারাজীবন ধীরে ধীরে বেড়ে বেড়ে এখন পুরো অস্তিত্বের দখলদারিতা তার হাতে। হয়তো সবার মধ্যেই এটা ডিফল্ট থাকে, কিন্তু বেশিরভাগ মানুষ নানারকম ছোটবড় ঘটনা দিয়ে তাকে একরকম জীবন থেকে তাড়িয়ে দিতে পারে। আর কিছু কিছু মানুষ পারেনা, কিংবা পারার চেষ্টাও করেনা হয়তো।

মন্তব্য করুন

(আপনার প্রদান কৃত তথ্য কখনোই প্রকাশ করা হবেনা অথবা অন্য কোন মাধ্যমে শেয়ার করা হবেনা।)
ইমোটিকন
:):D:bigsmile:;):p:O:|:(:~:((8):steve:J):glasses::party::love:
  • Web page addresses and e-mail addresses turn into links automatically.
  • Allowed HTML tags: <a> <em> <strong> <cite> <code> <ul> <ol> <li> <dl> <dt> <dd> <img> <b> <u> <i> <br /> <p> <blockquote>
  • Lines and paragraphs break automatically.
  • Textual smileys will be replaced with graphical ones.

পোস্ট সাজাতে বাড়তি সুবিধাদি - ফর্মেটিং অপশন।

CAPTCHA
This question is for testing whether you are a human visitor and to prevent automated spam submissions.