ইউজার লগইন

ফেরানো গেল না কিছুতেই

বহুকালের পরিচিত সেই জটিল মুখটি দেখার জন্যে পাশে মুখ ফেরালাম। সেই একই ভঙ্গী! কোনকিছু মনমতো না হলে দু’ঠোঁট চেপে রাখা ওর সবসময়ের অভ্যাস।ভেবে ভেবে দিশেহারা হওয়া মনে হয় একেই বলে! কিভাবে আমি ওকে আজ বিয়ের কথা বলব! বললে প্রতিক্রিয়াই বা কী হবে!ভ্রু থেকে ঘাম গড়িয়ে পড়লো;আমার পাগলপারা দশাকে ওর কাছে একেবারে উন্মুক্ত করে দেবার জন্য যে এটা যথেষ্ট হবে আমি জানতাম।
ও আমার দিকে মুখ ফেরালো, স্বাভাবিক প্রশ্নটাই ছুড়েঁ দিলো – তুমি এভাবে ঘামছো কেন?
বোকার মতো হেসে বললাম, “এখানে আজকে খুব গরম, না কি বলো? দাঁড়াও গাড়ির জানালার কাঁচ নামিয়ে দেই।”
কাঁচ নামানোর সুইচে হাত দিতে গিয়েই দেখলাম ও সিট বেল্ট বাধেঁনি, নিশ্চয়ই প্র্যাগন্যান্সির এমন অ্যাডভান্স স্টেজে বেচারার সামনের সিটে সিটবেল্ট বেঁধে অনেক সময় ধরে বসতে খুবই কষ্ট হবে!পরক্ষণেই মনে হলো ও সামনের সিটে, সিট বেল্ট ছাড়া বসাটা বিপদজনক তো বটেই, বিশেষ করে হাইওয়েতে।
সিটয়ারিংয়ে হাত রেখেই বললাম রাস্তা দেখতে দেখতে, “তারা, বেল্ট বেঁধে নে প্লীজ।”
এতক্ষণে প্রথমবার ওর নাম ধরে ডাকাতেই কি না, না কি ‘তুই’ বলাতে জানি না, ঝট করে তারা আমার দিকে তাকালো একদম স্থির দৃষ্টিতে এবং অবিচল কণ্ঠে বললো, ‘তোমাকে বিয়ে করার কথা বলবে আজ তুমি, তাই না?’
এত অসহায় কখনো লাগেনি এতটা বয়সে, আমার ঘাড় নিজের অজান্তেই কেমন শক্ত হয়ে গেল, কিছুতেই আমি রাস্তা থেকে চোখ সরাতে পারলাম না। যে কেউ আমাকে দেখলে ভাববে আমি রাস্তার মসৃণতা বা এর গড়নের উপর কোন গবেষণা করছি।
গত কয়েকমাসের খুটিঁনাটি সব স্মৃতি এক ঝলকে আমার মাথায় ঝাঁপ দিয়ে পড়তে থাকলো।
তারা একেবারেই ভেঙ্গে পড়েছিলো যখন আমি হঠাৎ করে বললাম কেনসাস ইউনিভার্সিটিতে একবছরের জন্যে এমএস কোর্স করতে যাব। তারা আমার এই সিদ্ধান্তে একেবারে হতবাক হয়ে গিয়েছিলো, কারণ তখন আমরা এতবছরের সম্পর্কের পর মাত্র ভাবছি একসাথে থাকা শুরু করব, বিয়ে করব, তারার ইচ্ছেমতো ওর নিজের একটা বাচ্চা হবে। যদিও আমি লেসবিয়ান যুগল হিসেবে বাচ্চা নিয়ে বন্ধুবান্ধবের সামনে আর নাটক করতে চাইনি, বাচ্চা না নেয়ার ব্যাপারে আমার একধরনের একগুয়েঁমি ছিল। অন্য সবাই নিচ্ছে আর এটা এখন এখানে খুবই স্বাভাবিক ঘটনা। কিন্তু আমি আমার স্বপ্নের এত কাছাকাছি এসে একেবারে উন্মাদ বলতে যা বুঝায় তাই হয়ে গেলাম। তারা নিজের মনকে পোষ মানানোর আগেই আমি “মাত্র তো এক বছর!” – এই একটা কথা বলে সত্যি সত্যি কেনসাস চলে এলাম। আমার চলে আসার সময় ওর ঐ নীরবতা, পাথরের চোখে চেয়ে থাকা...সব পেছনে ফেলে আমি উড়াল দিলাম।মনে মনে ভেবেছি এক বছর এমন আর কী! সবই ঠিক থাকবে। কিন্তু যখন ফিরলাম তখন আর কিছুই আগের মতো নেই।

যাবার পর থেকে তারা কোন যোগাযোগ করলো না, একদম চুপ। নিজের অপরাধী মনে নিজে দগ্ধ হতে হতে আট মাসের মাথায় যখন বুঝলাম তারা আমাকে সত্যি ছেড়ে যাচ্ছে তখন আমি আর পারলাম না। আমি আমার(!)তারার কাছে আবার উড়াল দিলাম।এসে দেখলাম তারা সাজিদের বেবী পেটে নিয়ে ঘুরছে, আর আমাকে সেই পাথর চক্ষুর দৃষ্টি দিয়ে নীরবতার চরম শাস্তি দিচ্ছে।
আজকে শিকাগোর পথে লং ড্রাইভে বেরিয়েছি গত দু’মাসের অক্লান্ত পরিশ্রমের পর। দিনের পর দিন আমি আমার অপরাধের প্রায়শ্চিত্ত করেছি সেইসাথে তারাকে বলেছি বারবার আমার বুকের গভীরে আজ কি শূন্যতা ওকে ছাড়া, সেই এমএস আমি ছুড়েঁ ফেলেছি মাঝপথে, শেষ করিনি, আমি আর কিছু চাই না, শুধু তারাকে আবার চাই। নিজের বোকামীর কথা যতভাবে পারা যায় স্বীকার করেছি। এখনো জানি না তারা আজ কি বলবে!

নিজের এতদিনের আবেগ, কান্না, অপরাধবোধ, তারার প্রতি ভালোবাসা সব কেমন যেন আমাকে বিবশ করে দিচ্ছে। এত ভয় অনেকদিন লাগেনি, ফাইনাল পরীক্ষার রেজাল্টের দিন যেমন লাগে আমার এখন তেমন লাগছে!

নিজের অবশিষ্ট সাহস এক করে তারার দিকে শেষ পর্যন্ত আমি তাকালাম......পৃথিবীর সব ভয় সেই দৃষ্টিতে জড়ো হওয়া, চোখ সামনের রাস্তার দিকে....শুধু দেখলাম রডে বোঝাই এক বিশাল ট্রাক আমাদের গাড়ির সামনেটা পুরো ঢেকে ফেলেছে, আমি কিছুতেই আমাদের গাড়ির সেই রডের উপর আছড়ে পড়া ঠেকাতে পারলাম না..........

(মূল : নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বন্ধু
অনুবাদ : আফসানা কিশোয়ার)

পোস্টটি ৫ জন ব্লগার পছন্দ করেছেন

মাহবুব সুমন's picture


জটিল

মেঘকন্যা's picture


সময় তো সহজ নেই। বদলে যাচ্ছে মানুষে মানুষে সম্পর্কের অভিধা...তাই গল্পও ভোল পাল্টাচ্ছে

আইরিন সুলতানা's picture


ওহ! পরিণতিটা এমন হলো !

মেঘকন্যা's picture


হুমম আমিও মূল লেখককে এই প্রশ্নটাই করেছিলাম

মীর's picture


গল্প খুবই পছন্দ হইসে। অনুবাদককে অসংখ্য ধন্যবাদ।

মেঘকন্যা's picture


আপনাকেও পড়ার জন্যে ধন্যবাদ

কৌশিক আহমেদ's picture


উপস....এমন হলো কেনো!

মেঘকন্যা's picture


লেখকের শোধ অথবা রাস্তায় অসাবধানে চলাচলের ফল...

মেসবাহ য়াযাদ's picture


আহ্ হারে !

১০

মেঘকন্যা's picture


আমিও আপনার মতোই এমনই ভেবেছি মূল গল্প পড়ে "ইস্..."

১১

জ্যোতি's picture


Sad Sad

১২

মেঘকন্যা's picture


এই মন খারাপটুকুই মনে হয় লেখকের সাথর্কতা বা প্রাপ্তি

১৩

লীনা দিলরুবা's picture


জটিল মনস্তত্ব, খুবই জটিল। মাথার উপ্রে দিয়া যাওনের মতো।

১৪

মেঘকন্যা's picture


তোমার তো মাথার উপর দিয়ে যাওয়ার কথা না...

১৫

লীনা দিলরুবা's picture


হুমম।

১৬

মেঘকন্যা's picture


আমার বিশ্বাস ইংলিশটা পড়লে সবার আরো ভালো লাগবে। তাই সেই ভার্সন দিলাম

I looked at my side and saw her in a perplexed face with pressed lips, I was just wondering how to ask her hand for marriage, and how is she going to respond. A trickle of sweat dropped over my eyebrows. Just at that moment, she moved her face to me and said, ‘why are you sweating?’ I kind of nervously smiled and said, ‘oh, it’s kind of hot here, ain’t it? Let’s roll down the window of the car a bit’. While I was pressing the button, found that her seat-belt is not fastened, I found with such an advanced stage of pregnancy, it might be uncomfortable for her to sit for such a long time with the seat belt on. But she is in the front seat, and I felt really worried, coz it’s a rough highway. Putting my hands right over the steering, I looked sideways at her and said, ‘Tara, please fasten your belt’. She suddenly looked at me with her fixed eyes, and told me, ‘you are going to ask me to marry you today, aren’t you?’ I got really stiff in my shoulders, and couldn’t move my eyes from the road. I was looking at the road, so keenly, as if I am doing a research on the quality check of the highway itself! All pieces of last few months came rushing into my head. How she was shattered by my sudden desperate decision of going to University of Kansas, USA for the year long Ph.D, while we were in the middle of moving together and planning for marriage, and she about to make me crazy with her desire to have a baby of her own, and I, being too stubborn of not making a scene within our friends to get a baby being a lesbian couple…Though it had become quite a common thing surrounding us! So, in the middle of all these, when I got this tremendous dream opportunity of mine to complete my Doctorate in my dream university, she couldn’t gather herself to believe that I m leaving her for a year, to me it was “just 1 year”! And Tara said just nothing…she seemed to be, like stoned… And I flew! Thinking, everything will fall into places, when I return, but nothing did.

After 8 months of guilt-filled mind and complete silence from Tara, I became wild with the thought of her leaving me and I came back. Only finding Tara to be pregnant with Sajid’s kid and stoney eyes over me. And here we are, in a long drive towards Chicago together, after last 2 months of relentless persuasion of making her understand not only my unwavering deep rooted feelings for her but also my sincere-most regret of making such a stupid move at such a time! And I still don’t know, what will be her answer today.

And here I was, having a rush of emotions within my heart and the feeling of a nervous student before the result day!

Finally I gathered all my courage, looked at her……………………only to see the scariest look in her eyes towards the road ahead and the next thing I found was, a huge truck with steel rods stuck just ahead of my car and I had no way to stop smashing towards it……………………………………………………………………………..

১৭

কামরুল হাসান রাজন's picture


হুমমমম

১৮

নাজ's picture


অন্য রকম!
তবে শেষটা এমন না হলেও পারতো Sad

১৯

মেঘকন্যা's picture


একমত

২০

শওকত মাসুম's picture


আগের লেখকরা অসম কিছু নিয়ে লিখলে নায়ক-নায়িকাকে মেরে ফেলতো। এরকম কোনো ভাবনা থেকে কী এভাবে শেষ করা হল?

২১

মেঘকন্যা's picture


হতে পারে আবার নাও হতে পারে কারণ প্রেমটা তো ছিল সম Smile

২২

তানবীরা's picture


হুমম।

মন্তব্য করুন

(আপনার প্রদান কৃত তথ্য কখনোই প্রকাশ করা হবেনা অথবা অন্য কোন মাধ্যমে শেয়ার করা হবেনা।)
ইমোটিকন
:):D:bigsmile:;):p:O:|:(:~:((8):steve:J):glasses::party::love:
  • Web page addresses and e-mail addresses turn into links automatically.
  • Allowed HTML tags: <a> <em> <strong> <cite> <code> <ul> <ol> <li> <dl> <dt> <dd> <img> <b> <u> <i> <br /> <p> <blockquote>
  • Lines and paragraphs break automatically.
  • Textual smileys will be replaced with graphical ones.

পোস্ট সাজাতে বাড়তি সুবিধাদি - ফর্মেটিং অপশন।

CAPTCHA
This question is for testing whether you are a human visitor and to prevent automated spam submissions.

বন্ধুর কথা

মেঘকন্যা's picture

নিজের সম্পর্কে

ব্লগিং করছি 2005/2006 থেকে। এখানে এসে দেখলাম কেউ আগে থেকেই আমার "মেঘ" নিকটা নিয়ে নিয়েছে, যা আমি এত বছর ব্যবহার করছি।
ভালোবাসা লেখালেখি।নিয়মিত লিখতে চাই। জীবনের কোন একসময় শুধুই লেখক হিসেবে স্বীকৃত দাবী করব Smile এই আশায় বেঁচে থাকি...