ইউজার লগইন

রাসেল'এর ব্লগ

কোথাও তাল কেটে গেছে

দুঃখ আর হতাশা ভুলে সামনে এগিয়ে যেতে হবে, দীঘদিন তিক্তস্মৃতিচারণে বিষন্নতাই বাড়ে শুধু। আবার হাসছি, আড্ডা দিচ্ছি রোজকার মতো, সব ভুলে দিব্যি মেতে উঠেছি খুনসুটিতে, জীবন থেমে থাকে না, বিভিন্ন রকম অর্থনৈতিক ঝক্কি নিয়েই জীবনযাপন, পেটের দায়ে সদ্যোজাত সন্তান ফেলে মা দুয়ারে হানা দিলে বুঝি কংক্রীটের শহরটা নির্মম, এখানে ফিরে তাকাবার অবসর নেই।

পুরোনো স্কুল

পুরোনো স্কুলে গেলেই পুরোনো রকম বিহ্বলতা ভর করে, সেই পুরোনো স্যারের সামনে কাঁচুমাচু দাঁড়িয়ে থাকা, স্যারের চেনা ধমক, সেই পুরোনো শ্রদ্ধা আর ভীতি- নিজেকে পুনরায় স্কুল-পালানো একজন মনে হয়। এখন যারা স্কুলের মাঠার চারপাশে দাঁড়িয়ে আছে, তাদের কেউই আমি স্কুল ছাড়বার সময়ও জন্ম হয় নি। আমাদের স্কুলত্যাগের বয়েস এতটাই বেড়েছে, মাঝে একটা প্রজন্মের ব্যবধান। স্কুলের সামনের মাঠ বদলে গিয়েছে, আমরা যে মাঠে ফুটবল খেলতাম সে

হাসপাতালে

আমরা জাতিগত ভাবেই নোংরা এটা বুঝা যায় সরকারী হাসপাতালগুলোতে গেলে,আমাদের সৈন্দর্য্যসচেতনতা, বিবেচনা ও পরিচ্ছন্নতা বোধের পরিমাণ শূণ্যের চেয়ে নীচে। সরকারী হাসপাতালের স্বাস্থ্যসেবার মান হয়তো অন্যান্য সস্তা প্রাইভেট ক্লিনিকের তুলনায় ভালো, সেরা সেরা ডাক্তারেরা সেখানে চিকিৎসা সেবা প্রদান করেন তবে যদি রোগী এবং তাদের স্বজনদের ভেতরে পরিচ্ছন্নতাবোধটুকু না থাকে তাহলে সেখানে স্বাস্থ্যকর পরিবেশ বজায় রাখা কঠিন।

বাঙ্গালের প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় দর্শণ

গতকাল বিকেল থেকে একটা চিন্তাই মাথায় ঘুরছিলো কিভাবে আবেদনটুকু প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে দেওয়া যায়। বাংলাদেশের মাননীয়া প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ঠিকানা জানে পোষ্ট অফিসের কর্মচারীগণ। প্রধানমন্ত্রী বরাবর যেকোনো চিঠিই তারা পৌঁছে দিবে পুরানা এয়ারপোর্টের পাশে তার কার্যালয়ে তবে শুধু আবেদনপত্র পৌঁছে দিলেই কাজ হয়ে যাবে এমনটা আশা করা অনুচিত, প্রেক্ষাপট এমনই যে সেটা স্বহস্তে জমা দিয়ে রেফারেন্স নাম্বার আর এক্সে

জাহানারাকে বাঁচান , আপডেটঃ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে কিভাবে আবেদন করা যায় সেটা জানান,

প্রথমেই বলতে হবে জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউটের চিকিৎসক এবং সহকারীদের ব্যবহারে আমি মুগ্ধ। তারা নিতান্ত অপরিচিত আমাদের সাথে যেভাবে কথা বলেছেন তাতে এই সম্মাননাটুকু না দিলে তাদের আন্তরিকতাকে অপমান করা হবে।
আরও বেশী ধন্যবাদ রায়হান ভাইকে, যিনি না থাকলে হয়তো এতটা সহজে সব কিছু ঘটতো না।

আগামী সৌভাগ্যের রজনী কি জাহানারার জন্য সৌভাগ্য বয়ে আনবে- আপনারা চেষ্টা করলে তাই হবে। আশা করি তাই যেনো হয়।// আপডেটঃ

ভেবেছিলাম হাতে খানিকটা সময় আছে তবে সকালে ফোন পেয়ে বুঝলাম আমার/আমাদের হাতে তত বেশী সময় নেই।