ইউজার লগইন

উদাসী স্বপ্ন'এর ব্লগ

একটা অদ্ভুত পলিসি!!!!

দেশের অবস্হা কেমন? এই কথাটা এখন আর কেউ এক কথায় দিতে পারে না। কারো কাছে এই প্রশ্নের উত্তর নেই এটা ভুল কথা। রাস্তার টোকাইটাও এই প্রশ্নের উত্তর দিতে পারবে খুব ভালো ভাবে।

একটা সময় রাস্তার টোকাই যারা তারা টিকটিকির লেজ দিয়ে নেশা করতো। রাংতা পুড়িয়ে চামচে গরম করে ভাব নিতো, রাস্তায় উপুড় হয়ে শুয়ে থাকতো। যারা মেয়ে হয়ে জন্মাতো তারা প্রতিরাতে এরকম নেশার ঘোরে কতবার ধর্ষিত হতো তার কোনো হিসেব থাকতো না।
সাভারের অদূরে জায়গার নামটা ভুলে গেছি এক খ্রিষ্টান পাদ্রির দেখা পেয়েছিলাম। গ্রামীন ফোন থেকে আমাদের একটা টিম পাঠিয়েছিলো তার জন্য ফ্রিতে ইন্টারনেট কানেকশন ঠিক করে দিতে।

খুব সুন্দর একটা জায়গা ছিলো। যতদূর চোখ যায় শুধু ধান ক্ষেত, তার এক কোনে দাড়িয়ে ৫ তলা পাকা বিল্ডিং। ওখানে ঢুকতেই দেখি বিশাল একটা কক্ষে অনেকগুলো ছেলে মেয়ে বিভিন্ন বয়সী গ্রুপে গ্রুপে ভাগ করা। সবাই বিশাল একটা থালে রাখা চাল আছে সেগুলো থেকে ময়লা আলাদা করছে।

একটা সামাজিক ক্যাম্পেইন শুরু করতে চাই, সেটা সকল বাংলা ব্লগ থেকেই! সাথে কেউ না থাকলে আমি একাই এগোবো

আমাদের দেশে অনেক সমস্যা! গুনে শেষ করতে পারবেন?

আমার সব লেখাতেই আমি আমার বন্ধু, ক্লাস মেটদের টেনে আনি! কেন জানি মনে হয় আমি জীবনে কিছু অত্যন্ত মেধাবী অথচ বেখেয়ালী মানুষদের সখ্যতা গড়ে তুলেছি। রাসেল তাদেরও একজন, ও আমাকে বলে,"দেশ আগাইছে ভূয়া কথা! ৭১ এর পর স্বাধীন দেশের যাত্রা শুরু হইলো জনসংখ্যা সমস্যা নামক প্রধান সমস্যা নিয়া! আজকা ৪০ বছর পর এইটা এখনও সমস্যার টপলিস্টে!"

ছোট বেলা বায়তুল মোকাদ্দমে যখন প্রথ বেন্ঞ্চের ছাত্র হিসাবে ভর্তি হলাম তখন দেখতাম পিছনের বেন্ঞ্চে একজন ছেলে নাম আকন্দ। প্রতিদিন মার খেতো পড়া না পারার কারনে! খুব দয়া হতো আবার হাসিও পেতো যখন ওর পিঠে লম্বা লম্বা বেতের বাড়ি পড়তো আর যন্ত্রনায় ছটফট করে লাফাতো! আমরা বলতাম ব্রেকড্যান্স!