ইউজার লগইন

জীবনের সবচাইতে বড় অভিজ্ঞতা Anyone can ever have...

ঘড়ির দিকে তাকিয়ে দেখি রাত ২.১০। ঘুম ভাঙ্গলো সুরেলা পাখির গানে। আমার বিছানার পাশের ছাদ ছোয়া স্লাইডিং গ্লাস ছারাও বাড়ির আর সব জানালা বন্ধ তবু এত জোরে পাখির গান শোনা যাচ্ছে যে আমার ঘুম ভেঙ্গে গেছে। মনে মনে ভাবালাম পাখিটা বোধহয় আমাদের বেডরুমের ব্যালকনিতে বসে। ত্বারস্বরে গান করে যাচ্ছে, সুরটা যদিও চমৎকার ছিল তবু রাত ২ টায় গান যত সুমধুরই হোকনা কেন ঘুম ভাঙ্গিয়ে তা শোনালে মেজাজ ভাল থাকবার কথা নয়। জানি এর পরে ২/৩ ঘন্টা আমার আর ঘুম হবে না। ফোন হাতে নিয়ে দেখি শ্রাবনের ভয়েস মেসেজ। সকালে ফোন করব বলে মেসেজ দিয়ে ঘুমানোর চেস্টা চালালাম। কিন্তু এত বড় গানের শব্দে তা সম্ভব হচ্ছে না, পরের চার ঘন্টা জেগে কাটিয়ে সকালের দিকে একটু করে ঘুমিয়ে পরলাম।

পরের দিন রাতে সকাল সকাল ঘুমোতে গেলাম গতরাতে ঘুম হয়নি বলে। কাপাল আর কাকে বলে ঠিক গানের আওয়াজে রাত ২ টায় আবার ঘুম ভাঙ্গলো। কি যন্ত্রনারে বাবা Angry রাত ২ টায় পাখি তোর গান গাওয়ার কি হলো। সবাই ঘুমায় তোর স্বজাতিয়েরাও তো ঘুমায়, তোর এত গানের নেশা ভাল কথা তাবে রাত ২ টায় কেনরে বাবা, তাও আবার আমার ব্যালাকনিতে কেন?

সেদিন ক্লিফ আর আমি একটা মিউজিক্যাল স্টেজ ড্রামা দেখতে গিয়েছিলাম নাম, "মেনোপোজ"। তাতে দেখলাম যাঁরা মেনোপোজে আছেন তাদের আর সব সাফারিং সাথে ইনসমনিয়া একটা সাফারিং। ভাবি এই পাখিটার কি মেনোপোজ হলো নাকিরে বাবা। হায়রে কি দিনকাল আসলো পাখিদেরও মেনোপোজ হয় আর তার ঝামেলায় আমারও রাতে পর রাত ঘুম নস্ট :#( ।

আমি ঘুম কাতুরে মানুষ আগেও একবার কোন এক পোস্টে বোধহয় বলেছিলাম। তাই পর পর চার রাত পাখির গানে ঘুম না হওয়ায় আমার মন মেজাজ আর অবস্থা দুটোই খারাপ ক'দিন থেকে। তাছাড়া সিংগাপুর থেকে ব্রিসবেনে এসেছি পর্যন্ত একধরনের ডিপ্রেশনে ছিলাম ভেতরে ভেতরে। বেশ কিছু ঘটনাও কাজ করছিল আমার ডিপ্রেশনের পেছনে। প্রথমেই ব্রিসবেনের বন্যায় ঘরবাড়ি ভেসে যাওয়া, মারা যাওয়া মানুষদের দেখে মনে বেশ দাগ কেটেছিল। এর পরে কয়েকটা ঘটনা যেমন ক্রাইস্টচার্চের ভুমিকম্প, জাপানের স্যুনামি জীবন কতটা ক্ষনস্থায়ি জানিয়ে দিয়ে গেল। বড় ধাক্কাটা লাগলো তারিক মাসুদ ও মিশুক মুনিরের খবরটাতে। এর হতভম্বতা আমাকে বিশাল ও গভীর আরেক ডিপ্রেশনে ডুবিয়ে দিল। সাত আটদিন কারো সাথে কথা পর্যন্ত বলতে ইচ্ছে করেনি। হাতের কাছে অনলাইনে বন্ধু তুষারকে পেয়ে ডিপ্রেশনে ফ্রাসট্রেটেড হয়ে দেশের সিটেমের উপর রেগে গিয়ে ওর উপর হতাশা আর অশহায়ত্বের রাগ ঝাড়লাম। এটা শেষ হবার আগেই ব্রিসবেনে এক পরিবারের ১১ জন সদস্য বাড়ি সুদ্ধ পুরে মারা গেলেন রাতে ঘুমের ভেতর, শুধু যিনি বাবা উনি বেচে বের হতে পেরেছিলেন আগুনে পোড়া বাড়ি থেকে। মা আর বাচ্চারা সব বাড়ির সাথে পুরে গেলেন। এই খবরটা আমাকে আরো কঠিন ভাবে ভেঙ্গেদিল।

সারাক্ষন মনে হয় বাচার কি যুক্তি, কোন কিছু করার কি মানে। একদিন সকাল থেকে আমিও আর কোথাও থাকবোনা। সব কিছু চলবে, নতুন মানুষ আসবে আবার সবাই চলে যাবে, আমিও চলে যাবো, কি হবে কোন কিছু করে। এই চিন্তা আমাকে ভেতরে ভেতরে ভেঙ্গে দিচ্ছিল গত ৬/৭ মাস ধরে। আমি ইন্ট্রোভার্ট মানুষ সুখের কথা সবাইকে বলি তবে দুঃখ গুলো শেয়ার কথা আমার জন্য অসাধ্য সাধন। শ্রাবন কে এর জন্য ধন্যবাদ দেই অনেক সময় আমাকে খুচিয়ে কষ্টগুলো বের করে বলতে হেল্প করে, মনটা হালকা করে তাতে। তবু বলাটা এত সহজ নয় আমার। নতুন বন্ধু শিল্পি সেদিন কাঁধ বাড়িয়ে দিয়ে ছিল, তবু বলতে কি পেরেছি? পালিয়ে বেড়িয়েছি ওর কাছ থেকে। আমার সময় লাগে মন খুলতে বুক খুলতে, সরি ফর দ্যাট Sad..... তবু ধন্যবাদ শিল্পিকে।

ক্লিফের সামনেই বলে ফেললাম ক'য়েকদিন, "কি হবে কোন কিছু করে, কি হবে আর এত ঘটা করে বেচে" জানি আমার এই কথা ওকে ভেঙ্গে দেবে তবু কি করে যে মুখদিয়ে বের হয়ে এসেছিল। আমার ডিপ্রেশন আর ফ্রাসট্রেশন যখন চুড়ান্ত পর্যায়ে তখন উপরি ঝামেলা এই পাখির গানে ঘুম না হওয়া। মরার উপর খাড়ার...??? Something .....জানিনা শেষটা Sad

সেদিন শনিবার ১৭.০৯.২০১১। গত শনিবার। রাতে মেনোপোজাল পাখির গানে ঘুম হয়নি আবার ঘুমও ভাঙ্গলো সকাল ৭.৩০শে। মন মেজাজ চুড়ান্ত পর্যায়ে। ক্লিফ আমার আগেই উঠে কফি খেয়ে রেডি কোথায় যেন যাচ্ছে। আমাকে বলল বাইরে যাচ্ছে ঘন্টা খানেকের জন্য....কোথায় যাচ্ছে জানবার আগ্রহ নেই আমার নির্বিকার ভাবে বললাম, "ওকে" কোন ব্যাপার না...কি হবে জেনে?

আমি আমার রেগুলার এ্যাব সার্কেল প্রো'র ওয়ার্কআউট সেরে চা নিয়ে টিভির সামনে বসি...কিছু কি দেখি???......নাহ কিছু বোধ হয় না, শুধু চেয়ে থাকা। ঘণ্টা খানক পরে ক্লিফ ফেরে। একটা সাদা এনভেলোপ এগিয়ে দিয়ে বললো, "Babe listen, this is my gift to you for our wedding anniversary, And i think you need this now, this will give your life back to you" বলে আমাকে এনভেলাপটা ধরিয়ে দিল। আমি হাতে নিয়ে তাকিয়ে থাকি কয়েক মুহুর্ত। ভাবি কি আছে ভেতরে যা আমাকে আমার জীবন ফিরিয়ে দেবে :|। খুললাম, ভেতরে দেখি আমার জন্য স্কাই ডাইভিং এর টিকেট পরের দিন রোববার সকালের ১৮.০৯.২০১১। আগে কোন এক পোস্টে বলেছিলাম আমাদের বাসার সামনের বিচে স্কাই ডাইভিং এর প্যারাস্যুটার জাম্প হয়। এরা আকাশে উড়ে প্লেন থেকে জাম্প দিয়ে আমাদের বাড়ির সামনের বিচে নামে। ক্লিফ একবার করেছে ওটা একা একা কোন Tandem Master ছারাই। আমাকে একদিন ও জিঙ্গাসা করল আমি অমন জাম্প করতে পারবো কিনা With a Tandem Master। Tandem Master হলো পেশাদার প্যারাট্রুপার বা স্কাইডাইভার। সে'ই বেসিক্যালি সব করবে আমাকে তার শরীরের সাথে বেধে নিয়ে। আগা মাথা না ভেবেই সেদিন বলেছিলাম, "হ্যা পারবোনা কেন" ও বলল,"সত্যি পারেবে তো ভয় পাবেনা?" আমি বীরের মতন না বুঝেই বলি " অবশ্যই পারব"। ও বলল, "Be careful what you wish for Wink!!!"

Now here i am standing with a ticket for Extreme Challenge - Tandem Skydiving to jump off the plane from 14,000ft height .......Confused

ক্লিফ বললো, "আমি জানি তুমি কতটা ডিপ্রেস্ড আর ফ্রাসট্রেটেড কিছুদিন থেকে, আমি বলছি, ট্রাস্ট মি, এই স্কাই ডাইভিং তোমাকে আবার বাচতে সাহস দেবে। আমার ভয়ে আত্বা খাচা ছাড়া তখন। নিজের চুল নিজে ছিড়তে ইচ্ছে করেছে:#(:#(। ডিপ্রেশন জানালা দিয়ে পালাবার পথ খুজছে ভয়ের ঠেলায়। মরার আগেই আমি মরে ভুত :P। বললাম আর কিছু পেলে না দেবার জন্য X#(। ও বলল "ট্রাস্ট মি ইউ নিড দিস, জাস্ট ডু ইট, ইউ উইল ফিল মাচ বেটার, ইউ উইল ফিল দ্যা ডিফরেন্স"।

আমি মনে মনে সাহস করার চেষ্টা চালাই। একা একা দেশ ছেড়ে সাত সাগড় পারি দিয়ে কারো সাহায্য ছাড়া যদি অন্য একটা দেশে টিকে থাকতে পেরেছিলাম ১০ বছর আগে এই সমান্য একটা ব্যাপার পারবোনা? নিজের ইগো নিজেকে লজ্জা দেয় হার মানতে। আবার পেটের ভেতরও ইলিবিলি করতে থাকে ভয়ে। সারাদিন এটা সেটা হাসির কথা বলে ক্লিফ আমাকে ব্যস্ত রাখলো।

[img|http://media.somewhereinblog.net/images/thumbs/ariana_albatross_1316396466_9-297215_10150374049626798_712956797_9756088_934660953_n.jpg]
বিকেলে গেলাম সানকর্প স্টেডিয়ামে রাগবি সেমি ফাইনাল খেলা দেখতে। সবই করছি হাসি মুখে তবে ভেতরে আমার জানটা মরি মরি করে কাল সকালের ভয়ে। মাঝে মাঝে ইচ্ছে করছে না বলে একদিনের জন্য পালিয়ে যাই কোথাও :#(:#(

রোববার সকাল ৭.৩০শে রিপোর্টিং। আমারা ৬.৩০শে ঘুম থেকে উঠে রেডি হলাম। আমার মুখে কোন কথা নেই, মনে মনে ভাবি সুখে থাকতে ভুতে কিলায় ব্যাপারটা কত যে ঠিক। ছিলাম ভালই, যাচ্ছি গায়ে পরে আকাশ থেকে ঝাপিয়ে পরে মরতে। ক্লিফ বলে "তুমি না মরতে চেয়েছিলে, তো এভাবেই মরাটা তো আরো ইন্টারেসটিং !!! এটলিস্ট মরার আগে পৃথিবীর একটা চমৎকার রুপ দেখে মরতে পারবে ক'য়টা মানুষ পারে এভাবে মরতে।" এই কথা আমাকে অবশ্য একটু সাহস দিল। /#) (???) আমি শেষ বারের মতন বাড়ি ঘরের দিকে মায়া ভড়া মুখে তাকালাম, মনে কোথায় যেন কস্ট সব ছেড়ে যেতে। ক্লিফ কে বললাম, "Babe If i don't come back, If the gear doesn't open or doesn't work.....just wanted to let you know i love you so very much and i always did."

On the way i sent sms to Shrabon, " I am going for a skydiving, in case if i don't come back, Just wanted to let you know that i love you" মনে এসেছিল আরো ক'জনের কথাও তবে এস এম এস করে জানাতে পারার মধ্যে শ্রবনের কথাই কেন যেন মনে এসেছিল।

রিপোর্টিং এর পরে ফর্ম ফিলাপ করে নিজের মৃত্যু পরোয়ানা লিখে সাইন করে অনুমতি দিলাম :#(:#(। তখন মুহুর্ত যেন হাজার বছর। অপেক্ষা করছি আমার Tandem Master Tony 'র. Tony helped me to wear the gear belt and hook। আমাকে সাহস দিয়ে বলল let's go we will have so much fun up there B-)B-)WinkWink. I said, "Really You sure????:#(:#("

304913_10150374171831798_712956797_9757426_1828734408_n_0.jpg
যাবার আগে ক্লিফকে বড় একটা হাগ আর Kiss করে রওনা দিলাম আমার মতন আরো ১০ জনের সাথে। সবাই Tandem Master এর সাথে জাম্প করবে। Tony ভিডিও করা শুরু করল। আমার তখন প্রানটা আর শরীরে নেই। রেডক্লিফ থেকে ১০ মিনিটের ড্রাইভে আমরা পৌছালাম একটা ছোট্ট এয়ার পোর্টে। ছোট্ট একটা প্লেন এগিয়ে এলো আমাদের দিকে। যার ভেতরে দাড়াবার কোন উপায় নেই, কোন ভাবে হামা দিয়ে বসা যায় মাত্র। আমার ১০ জন ১০ Tandem Master এর সাথে ঠাসা ঠাসি করে কোন ভাবে উঠে বসলাম ওতে। প্লেনে কোন দরজা নেই, একটা প্লাস্টিকের স্লাইডিং ঝাপি আছে মাত্র। যে যার Tandem Master এর সামনে বসা। টোনি'র সামনে বসলাম আমি আর টোনি ওর গিয়ারের সাথে আমার গিয়ার বেধে নিলে টাইট করে। প্লেন উড়তে শুর করলে। আমি মনে মনে ভাবছি "Am i really doing this? I can't believe i am doing this, Why do i have to do it, Why can't i go back now......God I am hungry :#(:#(:#(!!!

টোনি আমার ভিডিও করতে থাকলো আর কিছুক্ষন পর পর সে বলে "You ready to go? happy happy? Wink!! Smile " মনে মনে বলি ছাগল একটা Angry হ্যাপি হ্যাপি মানে?? মরতে যাচ্ছি আর বলে কিনা হ্যাপি হ্যাপি X#(। মুখে হাসি দিয়ে বলি, "আমি রেডি হ্যাপি হ্যাপি ;)" :#(:#(। খিদেয় আমার প্রান যায় তখন। আগেও বলেছি যেকোন ইমোশোনাল সিচুয়েশনে আমার খিদে লাগে তা রাগ, দুঃখ, ফ্রাসট্রেশন, ডিপ্রেশন, কান্না, ভয় হলে ১০০ গুন বেশি খিদে লাগে। মনে আর পেটে তখন খাবার চিন্তা আর চোখে নিচে অপরুপ পৃথিবী!!

আকাশ থেকে আমাদের রেডক্লিফ, উডিপয়েন্ট আর আমাদের বাসাটা দেখলাম, টোনি কে দেখালাম আমাদের বাসাটা।। আমারা আকাশে ১৪,০০০ ফিট উপরে উঠে গেলাম। অপূর্ব সুন্দর পৃথিবীরে রুপ দেখতে দেখতে ভয় কাটাচ্ছিলাম আমি - ভাবি আরে কোন ব্যাপার না (:#(:#()।

আমার পাশেই ছিল জ্যাপানিজ একটা মেয়ে। ও জাম্প করবে প্রথম। ভয়ে ওর মুখ শুকনা তবু আমার দিকে তাকি হাসল, আমিও হাসলাম, ও বললো "আমার ভয় করছে"। ও ওর বয়ফ্রেন্ড কে নিয়ে ৩ সপ্তাহ হলো ব্রিসবেনে এসেছে বেড়াতে। ওর বয়ফ্রেন্ডও জাম্প করছে আমাদের সাথে ৫ জনের পরে। হায়রে কপাল বেঘড়ে মরতে এসেছি আমরা ক'জন এখানে :#(

সবাই সবার টেনডেম মাস্টারের সাথে বাধা। হঠাৎ প্লাস্টিকের স্লাইড উঠিয়ে দিল ওরা। ৩ সেকেন্ড সময় নিয়ে জ্যাপানিজ টা কিছু বোঝার আগেই ওকে নিয়ে ওর মাস্টার ঝাপ দিল খোলা দরজা দিয়ে। টোনির ভিডিও ক্যামেরাটা হাত থেকে হঠাৎ প্লেনের মেঝেতে পরে গেল, এসে পরল আমার সামনে। আমি কুড়িয়ে নিয়ে ওর হাতে দিলাম। টোনি আমার চোখে গ্লাস পরিয়ে দিল, মনে মনে বললাম বিদায় পৃথিবী....বুকে ধুক পুকানি চড়ম পর্যায়ে তখন, জীবনের শেষ মুহুর্ত গুলো এত তাড়াতারি চলে যাচ্ছে তখন। এই সবই ঘটল ১০ সেকেন্ডের ভেতর, জ্যাপানিজের পরে আরো দুজন চলে গেল এরই মাঝে, টোনি আমাকে ছেড়ে দরজার কাছে আনতে আনতেই মুহুর্তে আমি একসাথে অনুভব করলাম বিশাল শুন্যতা, পতন, ২/৩টা শুন্যে ডিগবাডি, পিঠে ৭০ কেজি আলুর বস্তা (টোনি Wink) নিয়ে তীব্র গতিতে পতন, আর প্রচন্ড বাতাসের ধাক্কা চোখে, মুখে, নাকে, কানে। নাক কান মুহুর্তেই বন্ধ হয়ে গেল, কোথাও কোন শব্দ নেই শুধু বাতাসের প্রচন্ড সাই সাই শব্দ ছাড়া, ৩ সেকেন্ড চোখ বন্ধ করে এই সব হজম করলাম আগে। চোখ খুলতেই আবারো আরেক অনুভুতি.....আমি পিঠে ৭০ কেজি আলুর বস্তা নিয়ে পাখির মতন ভাসছি। নিচে ফগে ঢাকা অপুরুপ পৃথিবী আর উপরে আমি বাতাসের অভাবে নিঃশ্বাস নিতে পারছি না, এত বাতাস নাক, মুখ, কান সব দিয়ে ভেতরে ঢুকে আমাকে suffocate করেছে । আমার সর্দিতে নাক বন্ধ ছিল। নাক দিয়ে যতটুকু বাতাস যাচ্ছে ফুসফুসে তাতে অক্সিজেন কম থাকায় আমার দম বন্ধ হয়ে আসতে থাকলো। আমি প্যানিক ফিল করলাম। মাথা ঠান্ডা করে মনে কে বোঝালাম এটা জীবনের একটা অসাধারন সুযোগ প্যানিক করে নষ্ট করলে চলবে না। নাকে নিঃশ্বাস নিতে না পারি মুখে নেই। নিজে কে শান্ত করে মুখ হা করে নিঃশ্বাস নিতে থাকলাম, অনেক বেটার ফিল করলাম তখন। নিচে পৃথিবী আর উপরে আমি দুহাত দুপাশে বাড়িয়ে ডানা মেলে পাখি, অসাধারন অনুভুতি !! খুব কষ্ট হচ্ছিল যদিও নিঃশ্বাস নিতে তবু মনে মনে ভাবছিলাম গড আমাকে এই ফ্রি ফল এর ৬০ সেকেন্ড টা পার করে দাও শুধু।। টোনি তখনও ভিডিও করছে কিন্তু ওর ক্যামেরা টা পরে যাওয়ায় ছবি গুলো ঝাপসা এলো এর পরের গুলোতে :(। টোনি ওর হাত দিয়ে আমার হাত ধরে থাম্বস আপ করানো চেষ্ট চালালো....আমারা তখনও ফ্রি ফলে আর আমি নিঃশ্বাস নেবার প্রান পন চেষ্টা চালাচ্ছি। ৬০ সেকেন্ড যেন আর চলে না....এর যেন আর শেষ নেই। আমি রেড স্কার্ব্রা, রেড ক্লিফ আর উডি পয়েন্ট, নীল সাগর দেখতে পেলাম ফগ আর হেইজ পেরিয়ে, অপুরুপ সে দৃশ্য - নীল সাগর সবুজ মাটি!! প্রচন্ড ঠান্ডা বাতাস তখনও চোখে মুখে ঝাপটা মারছে আর আমার মুখের চামড়া পত পত করে পতাকার মতন উড়ছে। এর সাথে একমাত্র ৩০০ মাইল স্পিডে চলা গাড়ির জানালা দিয়ে মুখ বাড়িয়ে দেয়াকেই তুলনা করতে পারি এই মুহুর্তে।

298913_10150374172076798_712956797_9757430_343636536_n_0.jpg
হঠাৎ নিজেকে একটা বড় ঝাকি দিয়ে সোজা দাড়ানো অবস্থায় উপরে উঠে যেতে ফিল করলাম। বুঝলাম টোনি আমাদের প্যারাস্যুট খুলে দিয়েছে। কতদুর সাই সাই করে উপরে উঠে যেন সব শান্ত। আমরা বাতাসে হালকা হয়ে ভাসছি Smile... আহ কি শান্তি!!! নিচে অপূর্ব পৃথিবী, মাটি, নীল পানি, উপরে নিল আকাশ মাঝখানে আমি পাখি আকাশের কত কাছাকাছি, মাটির কত দূরে। আস্তে আস্তে পাখির মতন এপাশ ওপাশ গোত্তা দিয়ে দুলে দুলে নিচে নামতে থাকলাম....আহা কি চমৎকার অনুভূতি।

304055_10150374172146798_712956797_9757432_308948035_n_0.jpg
আমি প্রথম গলা দিয়ে আওয়াজ বের করতে পারলাম আবারও, গলা ছেরে চিৎকার করে নিজের Existence জানালাম, বেঁচে আছি ব্যপারটা কি যে ভাল লাগলো তখন, নতুন করে যেন জীবনে ফিরে এলাম। টোনি আমাকে ব্রাইবি আইল্যন্ড দেখালো নিচে। দেখলাম মরটন আইল্যান্ড, ছোট ছোট ঢেউ তুলে ছোটা জাহাজ গুলো কে খেলনা লাগলো দেখতে, জীবনটা অনেক সুন্দর!! বেচে থাকাটা অনেক ভাল লাগার!

307095_10150374172226798_712956797_9757433_2087679210_n_0.jpg
স্কার্ব্রা বীচে আমরা ল্যান্ড করব। নিচে স্কার্ব্রা বীচের পাশে সারি বাধা মাছ ধরা নৌকা গুলো কি সুন্দর লাগছিল। বিচের কাছাকাছি চলে এলাম। বলা ছিল নিচে নামার আগে দুহাত দিয়ে আমার পা সামনে তুলে ধরতে হবে। টোনি বললে পা নামাবো। দুরে নিচে ক্লিফকে দেখে চিৎকার দিয়ে ডাকলাম। বেচারা শুনতে পেলনা আমরা এত উপরে......তখনও। টোনি কে বললাম "I still can't believe i just did it".

300594_10150374172911798_712956797_9757443_1039614012_n_0.jpg
আমরা অবশেষে ল্যান্ড করলাম। প্রথম কথা আমার মুখ দিয়ে বের হলো, "WOW I am still alive" এখনও আমি বেচে আছি!!!!!! শুধু বাচতে নয় এখন আমি যে কোন কিছু করতে পারবো!!

319955_10150374172356798_712956797_9757435_1796936639_n_0.jpg

293407_10150374172641798_712956797_9757438_1828415933_n_0.jpg

ক্লিফ এগিয়ে এলো আমার দিকে। আমি দুহাত বাড়িয়ে হাগ করলাম ওকে। আমার জীবনে ফিরে আসা অনুভব করলাম। অমনি শুরু হলো আমার হাচি। কঠিন হাচি শুরু করলাম, ক্লিফ মরে যাচ্চে আমার আকাশ অভিঙ্গতার কথা জানতে ....আমার হাচি আর থামে না, হাচির পরে হাচি আসতে থাকলো বুক মাথা খালি করে। পরের দশ মিনিট আমি কোন কথা বলতে পারলাম না শুধু হেচেই চললাম। মাথায় যত সর্দি ছিল সব বেড়িয়ে এলো এক ধাক্কায়।

ক্লিফ আমাকে ব্রেকফাস্ট করাতে নিয়ে চলল এক কফিশপে। ঝাড়া ১০/১৫ মিনিট হাচার পরে শুরু করলাম আমার গল্প। আর মনে হলো জীবনে কোন কিছুই কোন ব্যাপার না সবই করা সহজ....এখন আমি সব পারবো....যে কোন কিছুকে হ্যান্ডেল করা আমার জন্য কোন ব্যাপার না আর......

Sky diving - an Amazing experience

Sky diving - an Amazing experience

315724_10150374231496798_712956797_9758263_1410490044_n_0.jpg

Nothing will be impossible for me to do anymore. I jumped off the plane from 14,000ft ......if i can do that then i can do anything, nothing will stop me. I got back my life. Thanks to Cliff - my lovely and wonderful Husband who always understood me and knew what i need at every single step of my life.....my inspiration to live my life.

294010_10150374200821798_712956797_9757801_157775975_n_0.jpg

আমি এখন অন্য মানুষ। জীবনে অনেক কিছু করার আছে। জীবনে যেটুকু সময় পাই তাকে অভিজ্ঞতায় আর কাজে ভরে তোলাই ছোট জীবনটার সার্থকতা।

পোস্টটি ৬ জন ব্লগার পছন্দ করেছেন

উচ্ছল's picture


সারাক্ষন মনে হয় বাচার কি যুক্তি, কোন কিছু করার কি মানে। একদিন সকাল থেকে আমিও আর কোথাও থাকবোনা। সব কিছু চলবে, নতুন মানুষ আসবে আবার সবাই চলে যাবে, আমিও চলে যাবো, কি হবে কোন কিছু করে।

---- চমৎকার কথা, এক্কেবাের মনের কথাটাই বললেন ।। তাছাড়া আপনার অসাধারণ অভিজ্ঞতা েশয়ার করার জন্য অনেক ধন্যবাদ।।

দিশা স্যান্ডফোর্ড's picture


উচ্ছল অনেক ধন্যবাদ পড়বার জন্য...ভাল থাকবেন। Smile

শামান সাত্ত্বিক's picture


বেশ ভাল লাগলো জেনে। অনেক ধন্যবাদ অভিজ্ঞতার ভাগ দেয়ার জন্যে। এমন দুর্লভ অনুভূতি জানার জন্য উন্মুখ হয়ে থাকি। ভাল থাকুন এখন।

দিশা স্যান্ডফোর্ড's picture


অনেক ধন্যবাদ আপনার চমৎকার মন্তব্যের জন্য।ভাল থাকবেন Smile

রাসেল আশরাফ's picture


পুরা লেখার মতো

জীবনে অনকে কিছু করার আছে। জীবনে যেটুকু সময় পাই তাকে অভিঙ্গতায় আর কাজে ভরে তোলাই ছোট জীবনটার সার্থকতা।

এইলাইন দুটো অসাম।

দিশা স্যান্ডফোর্ড's picture


পড়বার জন্য ধন্যবাদ। "অসাম" মানে বুঝি নি Sad

মাহবুব সুমন's picture


হুক্কা ব্রিসবেনের বাতাসে মনে হয় ফ্যাট বেশী ! আ[পনারে েবশ স্বাস্থ্যবতী লাগছে।
চোখ টিপি

দিশা স্যান্ডফোর্ড's picture


আমি গিয়ার পরেছিলাম। তাছাড়াও শীতকাল বলে ২/৩ পরত কাপড় ও জ্যাকেট পরাছিলাম। আকাশে অনেক বেশি ঠান্ডা :)। ওজন কিছু তো বেড়েছেই বয়স হচ্ছে না Wink

লীনা দিলরুবা's picture


আমার উচ্চতা ভীতি আছে। ফেইসবুকে তোমার আপলোড করা ভিডিওটা দেখেছি, সাহস বটে!

১০

দিশা স্যান্ডফোর্ড's picture


Smile অনেক ধন্যবাদ পড়ার জন্য। এখানে কি ভিডিওটা দেখা যাচ্ছে না?

১১

অতিথি's picture


asole sobar life amon kichu ghotona asa uchit jate se life ta ke bujte pare ki kora uchit r ki korchi amra.............thanks apnake apnar experience shear korar jonno...............

১২

কিছু বলার নাই's picture


এইটা আমি করতে চাই, তবে পিঠের উপর কোন বস্তাটস্তা ছাড়া।

১৩

লীনা দিলরুবা's picture


আফা আপ্নের কয়টা নিক Wink

১৪

কিছু বলার নাই's picture


একটি আন্তর্জাতিক সমস্যার কারনে নামটা পাল্টাইতে হইল। মডু আমার 'নিজের সম্পর্কে' যা লিখছিলাম সেইটারেই নিক বানাইয়া দিছে Sad

১৫

লীনা দিলরুবা's picture


তোমার প্রো-পিকটা জটিল, পছন্দ হৈছে।

১৬

কিছু বলার নাই's picture


'Amelie' দেখেন, আরো পছন্দ হবে Smile

১৭

লীনা দিলরুবা's picture


772.JPG

এইটা? দারুণস।

১৮

দিশা স্যান্ডফোর্ড's picture


ধন্যবাদ!

১৯

দিশা স্যান্ডফোর্ড's picture


এই মন্তব্যটা কিছু বলার নেই এর জন্য- But not showing under her comment Sad

করে ফেলেন :)। আমি অতটা সাহস করতে পারিনি কোন ট্রেনিং ছাড়া। ওর জন্য ট্রেনিং নিতে হয়। আমার তা ছিল না।

উইশ ইউ অল দ্যা বেস্ট!!

২০

দিশা স্যান্ডফোর্ড's picture


এই মন্তব্যটা আপনার জন্য করা ছিল কিন্তু কোন কারনে এটা আপনার মন্তব্যার নিচে আসছেনা Sad ডিলিট করার কোন উপায়ও খুজে পেলাম না Sad

"করে ফেলেন :)। আমি অতটা সাহস করতে পারিনি কোন ট্রেনিং ছাড়া। ওর জন্য ট্রেনিং নিতে হয়। আমার তা ছিল না।

উইশ ইউ অল দ্যা বেস্ট!!"

২১

দিশা স্যান্ডফোর্ড's picture


করে ফেলেন :)। আমি অতটা সাহস করতে পারিনি কোন ট্রেনিং ছাড়া। ওর জন্য ট্রেনিং নিতে হয়। আমার তা ছিল না।

উইশ ইউ অল দ্যা বেস্ট!!

২২

দিশা স্যান্ডফোর্ড's picture


করে ফেলেন :)। আমি কোন ট্রেনিং ছাড়া একা করতে সাহস পাইনি। একা করতে ট্রেনিং নিতে হয় যা আমার ছিল না।

উইশ ইউ অল দ্যা বেস্ট!!!

২৩

দিশা স্যান্ডফোর্ড's picture


করে ফেলেন :)। আমি কোন ট্রেনিং ছাড়া একা করতে সাহস পাইনি। একা করতে ট্রেনিং নিতে হয় যা আমার ছিল না।

উইশ ইউ অল দ্যা বেস্ট!!!

২৪

জ্যোতি's picture


খাইছেরে! জোশ লাইফ! লেখাও।

২৫

দিশা স্যান্ডফোর্ড's picture


Smile আপনার কমেন্ট ও জোস Wink

২৬

মাহবুব সুমন's picture


আমারো দিতে ইচ্চে হচ্চে কিন্তু সাহসে কুলোয় না চোখ টিপি

২৭

দিশা স্যান্ডফোর্ড's picture


একবার করে ফেলেন চোখ বন্ধ করে Smile

২৮

তানবীরা's picture


জীবনে অনকে কিছু করার আছে। জীবনে যেটুকু সময় পাই তাকে অভিঙ্গতায় আর কাজে ভরে তোলাই ছোট জীবনটার সার্থকতা।

জিন্দেগী না মিলেগি দোবারা দেখে আমারো ভালো লেগেছে কিন্তু আমি ভীতুর আন্ডা মার্কা ডিম Puzzled

২৯

দিশা স্যান্ডফোর্ড's picture


সাহস করে করে ফেলেন। আর আপনার এই কথাটা বুঝিনি "জিন্দেগী না মিলেগি দোবারা"

৩০

তানবীরা's picture


এটা একটা রিসেন্ট রিলিজ হওয়া হিন্দি ফ্লিমের নাম। থাক এই বয়সে আমি আর হাড্ডিগুড্ডি না ভাঙ্গি, তোমরা করো, আমাদের পড়েই আনন্দ Big smile

৩১

দিশা স্যান্ডফোর্ড's picture


Smile

৩২

অপু's picture


আপনি লাফ দেয়ার পর যতক্ষন প্যারাসুট না খুলছে ততক্ষন পর্যন্ত আপনার চোখ মুখ দেখার মতো ছিলো। Tongue

তবে একটা সত্য কথা কই আমার এতো সাহস জীবনেও হবে না। Sad

৩৩

দিশা স্যান্ডফোর্ড's picture


নিঃশ্বাস নেয়া কস্টকর ছিল ঐ সময়টা। দম বন্ধ হয়ে মারা যাবার একটা আশংকা করছিলাম তাই প্রান পনে অক্সিজেন নেয়েটাই ছিল প্রথাম চিন্তা। বাতাসে মুখের চামড়া পত পত পতাকার মত উড়ছিল। Smile পুরোই অন্যরকমের অভিজ্ঞতা Smile

৩৪

জুলিয়ান সিদ্দিকী's picture


এত্ত উপ্রে থাইক্যা নিচে দেখা! আমি দম বন্ধ হইয়াই মরতাম!

৩৫

দিশা স্যান্ডফোর্ড's picture


দম আসলেই বন্ধ হয়ে আসতে চায় Wink

৩৬

একজন মায়াবতী's picture


একবার সাহস করে লাফ দিয়ে ফেললে খারাপ লাগবে না মনে হয়। Smile
সুযোগ আসলে কখনো অবশ্যই হাতছাড়া করবো না। অনেক ধন্যবাদ শেয়ার করার জন্য।

৩৭

দিশা স্যান্ডফোর্ড's picture


নিশ্চই সুযোগ এলে করে ফেলবেন.... উইশ ইউ অল দ্যা বেষ্ট Smile

৩৮

টুটুল's picture


আপনার লেখা সুন্দর... পারলে নিয়মিত হইয়েন

৩৯

দিশা স্যান্ডফোর্ড's picture


ধন্যবাদ পড়বার জন্য। নিয়মিত হওয়ার মত সময় পাওয়া খুবই কস্ট :)। ভাল থাকবেন।

৪০

বিষণ্ণ বাউন্ডুলে's picture


অসাধারণ লেখা।
ইনস্পায়ারিং।

আপনার লেখার ধরন খুব সুন্দর।
এত কম লেখেন কেন?

৪১

দিশা স্যান্ডফোর্ড's picture


লেখার জন্য টপিক লাগে :)। টপিক না এলে লেখা হয় না। আবার টপিকটি খুব ইন্টরেস্টিং না হলে লিখতে ইচ্ছে করে না :(। সময় ও মুড অনেক সময় শত্রুতা করে Wink

পড়বার জন্য ধন্যবাদ Smile

মন্তব্য করুন

(আপনার প্রদান কৃত তথ্য কখনোই প্রকাশ করা হবেনা অথবা অন্য কোন মাধ্যমে শেয়ার করা হবেনা।)
ইমোটিকন
:):D:bigsmile:;):p:O:|:(:~:((8):steve:J):glasses::party::love:
  • Web page addresses and e-mail addresses turn into links automatically.
  • Allowed HTML tags: <a> <em> <strong> <cite> <code> <ul> <ol> <li> <dl> <dt> <dd> <img> <b> <u> <i> <br /> <p> <blockquote>
  • Lines and paragraphs break automatically.
  • Textual smileys will be replaced with graphical ones.

পোস্ট সাজাতে বাড়তি সুবিধাদি - ফর্মেটিং অপশন।

CAPTCHA
This question is for testing whether you are a human visitor and to prevent automated spam submissions.

বন্ধুর কথা

দিশা স্যান্ডফোর্ড's picture

নিজের সম্পর্কে

আমি লেখক নই, গ্রাফিক ডিজাইনার। লেখালেখির হাত কখনই ছিল না। ১৩/১৪ বছর বয়সে একবার বিচিত্রায় লিখেছিলাম বিচিত্রার প্রতি আমার ভালবাসা নিয়ে। লজ্জায় কাওকে বলা হয়নি। তবে নিজের লেখা নিজেই লুকিয়ে বহুবার পড়ে মুগ্ধ হয়ে যাচ্ছিলাম হা হা..............! তারপর আর লেখা হয়নি কোনদিন।

এই ব্লগের কথা শুনেছি এক বন্ধুর কাছ থেকে যে আমাকে এখানে লিখতে উৎসাহিত করে বাংলায় আমি অগা বগা জেনেও ;)। তো তাই এখানে শুরু করলাম লেখা। নিশ্চই আমার ছগা মগা লেখা দিয়ে খুব বেশি ঝামেলায় ফেলবনা আপনাদের Smile