ইউজার লগইন

নিশ্চয় তাঁর মধ্যে কিছু আছে, আসুন সবাই রেশমার মুরিদ হই

সাভারে ভবন ধসে বহু মানুষ মারা গেলো। ১৭ দিন পর শুধু রেশমা জীবিত ও অক্ষত অবস্থায় উদ্ধার হলো। কি আচানক কাহিনী!।
নিশ্চয়ই রেশমার মধ্যে বাতেনী এলেম রয়েছে বিধায় সৃষ্টিকর্তা কেবল তাঁর প্রতিই সহায় হয়েছেন। আসুন আমরা রেশমার মুরিদ হই। তাঁহার পড়া পানি পান করি। এতে অশেষ নেকী হাসেল হওয়ার পাশাপাশি রোগবালাই এবং বালা-মুসিবতও হয়তো দুর হবে। রেশমা যদি একটু ভেগ ধরেন তবে ব্যবসাও হবে বেশ।
রেশমাকে জীবিত উদ্ধারের ঘটনার পর বহু মানুষ যেন নতুন করে ঈমান ফিরে পেয়েছেন। পথেঘাটে, বাসে, ব্লগে, ফেসবুকে বহু মানুষ ঘটনাটিকে অলৌকিক অ্যাখ্যা দিয়ে এবং ঈশ্বরের কুদরতের কথা ভেবে পাগলপাড়া হয়ে পড়ছেন। বাসে যাতায়াতের সময় উত্তেজিত কোনো কোনো যাত্রীর কণ্ঠ থেকে আক্রোশমূলক বচন ঝড়ে পড়তে দেখেছি। কি? ‘এরপরও যদি কেও অবিশ্বাস করে...সে কি মানুষ? এদের উচিত শিক্ষা দেওয়া উচিত’।
হঠাৎ করে ঈমানের তেজ অনেকের এতোটাই বেড়ে গেছে যে, মনে হয় কোনো অবিশ্বাসীকে কাছে পেলে ওই যাত্রী নগদে হত্যা করবেন।
যতদূর জানি, আটকে পড়া অবস্থায় রেশমার জন্য আসমান থেকে খাবার নাজিল হয়নি। পরিস্থিতির কারনে রেশমা বেঁচে গেছেন। এখানে অলৌকিকতার প্রসঙ্গ আনাটা অর্থহীন। বিশ্বাস জিনিসটা সাটিফিকেটধারী তথাকথিত অনেক শিক্ষিত লোককেও যুক্তিশুন্য করে ফেলেছে। বিশ্বাসের যথাথতা নিশ্চিত করার জন্য তারা আকড়ে ধরছে অযৌক্তিক যুক্তি।
বিশ্বের বড় বড় ভবন ধস বা খনি ধসের পর এরকম দুই একজনের সৌভাগ্য হয় ব্যতিক্রম পরিস্থিতিতে পড়ার। এতোবড় একটা আরসিসি পিলার বিশিষ্ট ভবন ধসের ঘটনায় এরকম পরিস্থিতি একজন না পড়াটাই বরং অস্বাভাবিক ছিল।
রেশমার উদ্ধারের ঘটনার পর বিপুল সংখ্যক মানুষ যেভাবে ঘটনাটিকে অলৌকিক আখ্যা দিচ্ছেন তাতে একটা বিষয়ই পরিস্কার হয় দেশে ঈমানদার ব্যক্তি নেই বললেই চলে। মনে হয় যেন তারা নতুন করে সৃষ্টিকর্তাকে খুঁজে পেয়েছেন। আগে পাননি বা আগে বিশ্বাসের ঘাটতি ছিল। বিশ্বাসই যদি করবি তো যুক্তি খুঁজবি কেন? তাহলে বিশ্বাস থাকলোটা কই?
মূল কথা হলো একজন বিশ্বাসীর মধ্যেও অবিশ্বাস লুকিয়ে থাকে। এ কারনেই বহু মানুষ রেশমার বেঁচে থাকাকে অলৌকিক বলে আখ্যা দিয়ে সান্তনা খুঁজতে চান। ঈমানদার বা বিশ্বাসীরা কখনো যুক্তি খুঁজে ঈশ্বরকে বিশ্বাস করতে চাইবে না। চতুষ্পদীয় মস্তিষ্কের এই বিশ্বাসীরা মূলত নিজেদের সঙ্গে তাঁদের ধমটারও ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করছে এবং নিজেদের খেলো করছে।

অটল বিশ্বাস স্থাপন করার পর কেন আমি অবান্তর যুক্তি খুঁজবো?
রেশমার উদাহরণ দিয়ে যারা সৃষ্টিকর্তার প্রমাণ দেখাতে চান তাঁদের আসলে ঈমান নেই। সৃষ্টিকর্তাকে মানতে হলে বিশ্বাস করতে হবে। কিন্তু যখন কেও সৃষ্টিকর্তাকে মানার জন্য (অবান্তর) যুক্তির আশ্রয় নেয় তখন বুঝতে হবে তাঁর বিশ্বাস নেই।
একটা বিষয় পরিস্কার, একজন ধার্মিকের মধ্যে বিশ্বাস এবং অবিশ্বাস দুই-ই বিদ্যমান। তাঁদের অবচেতন মনে অবিশ্বাসটাও কাজ করে সাঙ্ঘাতিকভাবে। যে কারনে তারা জাগতিক ব্যাখ্যা না খুঁজে অযৌক্তিক-যুক্তি খুঁজে সৃষ্টিকর্তাকে প্রমাণ করতে যান।
বিশ্বাস-অবিশ্বাসের দোলাচলে থেকে ভণ্ডামি করার অর্থ কি? হয় বিশ্বাসী হোন। না হয় অবিশ্বাসী হোন। বিশ্বাসী হলে অলৌকিক (অবান্তর) যুক্তি খোঁজা বাদ দিন। যুক্তিবুদ্ধিকে বিসজন দিয়ে বিশ্বাস নিয়ে পড়ে থাকুন। আর না হয় অবিশ্বাসী হোন।

পোস্টটি ১১ জন ব্লগার পছন্দ করেছেন

মানুষ's picture


আল্লাহর কি কুদরত
লাঠির ভিতর সরবত!

পরাজিত মধ্যবিত্তের একজন's picture


আলবত

তানবীরা's picture


লাইকড লাইকড লাইকড Big smile Big smile Big smile

মন্তব্য করুন

(আপনার প্রদান কৃত তথ্য কখনোই প্রকাশ করা হবেনা অথবা অন্য কোন মাধ্যমে শেয়ার করা হবেনা।)
ইমোটিকন
:):D:bigsmile:;):p:O:|:(:~:((8):steve:J):glasses::party::love:
  • Web page addresses and e-mail addresses turn into links automatically.
  • Allowed HTML tags: <a> <em> <strong> <cite> <code> <ul> <ol> <li> <dl> <dt> <dd> <img> <b> <u> <i> <br /> <p> <blockquote>
  • Lines and paragraphs break automatically.
  • Textual smileys will be replaced with graphical ones.

পোস্ট সাজাতে বাড়তি সুবিধাদি - ফর্মেটিং অপশন।

CAPTCHA
This question is for testing whether you are a human visitor and to prevent automated spam submissions.

বন্ধুর কথা

পরাজিত মধ্যবিত্তের একজন's picture

নিজের সম্পর্কে

মধ্যবিত্তের তথাকথিত ভদ্দরনোকি আমার মধ্যে নাই। আমি কটূবাক্য বর্ষণ করতে পছন্দ করি। আমার কোনো পোস্টে মন্তব্য দেওয়ার সময় দ্বিতীয়বার চিন্তা করার আহবান জানাই। অবান্তর মন্তব্য করে আমাকে কটূশব্দ ও বাক্য টাইপ করতে বাধ্য করবেন না। আমার কাছে ভদ্দরনোক শব্দের অর্থ হলো আপোষকামী। মধ্যবিত্ত শ্রেনীটিকে আপোষ করে চলতে গিয়ে ভদ্দরনোক হতে হয়। এই শ্রেণীর অংশ হিসেবে বাধ্য হয়ে সমাজে আমাকেও আপোষ করে চলতে হয়। তাই আমি মধ্যবিত্ত শ্রেণীর অন্য পরাজিতদের মধ্যে একজন, যারা আপোষকামী নয়, কিন্তু বাধ্য হয়ে যাদেরকে আপোষ করে চলতে হয়।