ইউজার লগইন

আহমাদ আলী'এর ব্লগ

ভুলের ভাণ্ডার

এক.
‘ভুল’ বানানটি সঠিক বটে
লিখবেন না কেউ ভূল
তুল লিখেন টুল লিখেন
লিখবেন না বানান মুল।

‘মূল’; কিন্তু মুল নয়
রাখবেন মনে সবে
মুল যদি লিখে কেউ
ভুল জানবেন তবে।

‘কুল’ যদি বরই হয়
‘কূল’ নদীর পাড়
ভুল বানানে অভ্যস্ত
লজ্জা পাবে সবার।

‘তুলা’ লিখেন ‘কুলা’ লিখেন
লিখবেন না কেউ মূলা
‘মুলা’ বানান সঠিক তবে
লিখবেন না ফরমূলা।

ফরমূলা নয়, ‘ফরমুলা’
জেনো নিশ্চয়
ইংরেজি উচ্চারণে
(ূ) ঊ-কার নাহি হয়।

কারণ বারণ মরণ লিখেন
ধরণ লিখবেন না
ধরণ যেন ‘ধরন’ হয়
লিখতে ভুলবেন না।

‘গুণ’ লিখেন ঘুণ লিখেন
গুন লিখবেন না
গুণিতকের মর্মকথা
এতে পাবেন না।

‘কাঁটা’-‘বোঁটা’ সবই লিখেন
ফাঁটা লিখবেন না
ফ-এর ওপর চাঁদ বসালে
‘ফাটা’ হবে না।

‘হাসি’ লিখেন ‘কাশি’ লিখেন
হাস লিখবেন না
চাঁদ ছাড়া ‘হাঁসফাঁস’
কিছুই হবে না।

বাড়ি-গাড়ি সবই লিখেন
হাড়ি লিখবেন না
‘হাঁড়ি’র ওপর চাঁদের টিপ
দিতে ভুলবেন না।

পরবাসী বাবা

আমার বাবার ছবি নেই
আছে স্মৃতি অল্প
ছড়ায় ছড়ায় লিখছি তাই
আমার বাবার গল্প।

সংসারের ছোট ছেলে
আদর পেতাম মস্ত
বাবা শুধু বাবাই নয়
ছিলেন জানি দোস্ত।

কর্মজীবী বাবা ছিলেন
সাদামাটা স্বভাবের
রাগতে তাকে দেখিনি তো
ছিল না ভাব নবাবের।

গ্যাস ব্যামোতে মাঝেসাঝে
কষ্ট পেতেন দিনরাত
অন্যের ভালোয় ভালো তিনি
বুঝতো না কখনো পাঁচসাত।

রোগে ভোগে বাবা একদিন
গেলেন পরপারে
ফিরলো না সে আর কোনোদিন
খুঁজবো কোথায় তারে।

জুন ২০, ২০১৬

একগুচ্ছ ছড়া

এক.
শর্ত একটি খাসি

কি লিখবো ছড়া
যদি পড়ি ধরা
হয় যদি ফাঁকি
কি করে ঢাকি।

লিখবো ছড়া তবে
অবসর হবো যবে
নেইকো কোলাহল
লিখবো ছলাত ছল।

এতে কি হবে খুশি
নয়তো হবো দোষী
লিখবো ছড়া বসি
শর্ত একটি খাসি।

দাও যদি এক খাসি
বাজবে মধুর বাঁশি
ছন্দ রাশি রাশি
তাইতো ভালোবাসি।

লিখবো ছড়া মধুর
ছাড়িয়ে সাত সমুদ্দুর
গাঁথবো ছন্দের মালা
মেটাবো শব্দের জ্বালা।

(পুনশ্চ: সোহানা লিটার অনুরোধে)

দুই.
কাড়ি কাড়ি টাকা!

থাকতে হলে ভাই ঢাকা
লাগবে তোমার কাড়ি টাকা
টাকা ছাড়া গতি নেই
বন্ধুভাগ্যের অভাব তাই।

মনে কভু হয় না মানুষ
মানুষ হয় স্বভাবে
ক্ষুধায় জ্বালা সইতে নারে
চুরি করে অভাবে।

অভাবে স্বভাব নষ্ট
বলো না ভাই কেউ কারে
ঘুষের টাকায় পাহাড় গড়া
অভাব বলো কে সারে।

বিয়ে করা যন্ত্রণা নয়
সংসার গুরু দায়িত্ব
প্রেম করা সবার সাজে
থাকে নাতো স্থায়িত্ব।

তিন.
মনমরা

হয়ো না তুমি মনমরা

বুড়ো খোকার জন্মদিন

বুড়ো খোকার জন্মদিন
কাটছে ভালো রাত্রি দিন
কর্মময় জীবন তার
১৮ ঘণ্টায় হচ্ছে পার।

ভোর বিহানে চোখ খুলে
কাজের মাঝে তাই দোলে
অফিস তো নয় যন্ত্র
হর রোজ হাজিরের মন্ত্র।

বয়স সবে পঞ্চাশ
সাক্ষ্য দেবে চারপাশ
বুড়ো খোকার জন্মদিন
এ যেন এক অর্বাচীন।

নিরোগ দেহ সতেজ মন
ন্যায়-নিষ্ঠায় সমর্পণ
অসৎ কাজে নেই ধরা
স্বল্প ভাষায় তাই কড়া।

মন আছে ধন নেই
পণ আছে জন নেই
নুন আনতে পান্তা তাই
আছে বেঁচে এ দশাই।

১০.১১.২০১৪
রাত-৭:৩০মি.

চাকরি!

চাকরি এখন হয় না জেনো
থাকলে শুধু মেধা
থাকেও যদি মামা চাচা
লাগবে সাথে চাঁদা।

এমন দেশে বসবাস
বলতে লজ্জা নেই
আসনটি চেপে আছে
হনুমান যেন সেই।

দেশ থেকে দেশান্তরে
ঘুরছে মেধার দল
যদি একটি চাকরি মিলে
পাবে বুকে বল।

ঘুরে ঘুরে হয় পেরেশান
মূল্যায়ন তো নেই
অবশেষে নাস্তানাবুদ
হারিয়ে ফেলে খেই।

মেধা যখন ছিল নাতো
চাকরি ছিল ঢের
মেধারা সব ছুটে পালায়
চিংড়ি মাছের ঘের।

চাকরি নাকি সোনার হরিণ!
কেউ ভেবো না তাই
চাঁদা ছাড়া চাকরির আশা
আনবে ব্যর্থতাই।

চাকরির বাজার বড়ই ফাঁকা
যদি থাকে মোটা চাঁদা!
থাক যতোই মামা কাকা
কাজ হবে না ঝাঁকানাকা।

*চাঁদা- ঘুষ, উৎকোচ, নগদ নারায়ণ, উপঢৌকন, দালালি, নজরানা, কন্ট্রাক্ট মানি।

০১.০৮.২০১৪

চোর

(১)
চোরের পক্ষে যারা
শিক্ষা পাবে তারা,
সর্বক্ষণ কান দুটি
রাখিস কিন্তু খাঁড়া।

দাঁড়া- একটু দাঁড়া
করবো ছন্নছাড়া,
পাপের অাগুনে তোরা
পড়লি বুঝি মারা।

(২)
চুরির চেয়ে ভিক্ষা ভালো
থাকে যদি জ্ঞানের আলো,
মূর্খের দল করবে চুরি
সুযোগ বুঝে দল ভারী।

হারাম হালাল বুঝো না
সুযোগ তুমি খুঁজো না,
চোরের যদি দশদিন
খাবেই ধরা একদিন।

ঘৃণার ঝুড়ি তোর কাঁধে
এই বুঝি পড়লি ফাঁদে,
কেউ তোর বন্ধু নেই
থু ছিটাবে হামেশাই।

করিস না আর গর্জন
চুরিই তোর অর্জন,
মল-মুত্র দেখ না চেঁখে
দীক্ষা নিস গুরু দেখে।

১৯.০৬.২০১৪

তোষামোদ

তোষামোদে নেই কখনো
খোশ মেজাজে থাকি,
তেল মারা নেইতো জানা
আছে এটাই বাকি।

তেল মারা তাদের সাজে
গো-বেচারা যারা,
তেলের পর তেল মারতে
ভুল করে না তারা।

মাস গুজারে কভু আমার
মাইনে যায় না পাওয়া,
সব শালার মালিক বুঝি
করে না নাওয়া-খাওয়া।

প্রকাশকের লানতখানি
নেয় ঝুলিয়ে গলায়,
মাসান্তে মাইনে চাইলে
লেজ গুটিয়ে পালায়।

প্রকাশকের ‘প’ বোঝে না
দিব্যি বনেছে মালিক,
সাংবাদিকরা ভাবে তাকে
গুখেকো এক শালিক।

ওয়েজবোর্ডের সব সুবিধা
দেয়ার অঙ্গীকারে
ভ্যাবাচেকা খেয়েই যেন
ধরফড়িয়ে মরে।

সাংবাদিক মানেই যেন
বাঁচার নিশ্চয়তা
নুন আনতে পান্তা ফুরায়
একি নিষ্ঠুরতা!

ভালোয় ভালোয় পত্রিকাটি
দিলাম একদিন ছেড়ে
শূন্যস্থান পূরণ করলো
খেঁকশিয়াল কুকুরে।

০৭.০৪.২০১৪

ব্যাঞ্জন বর্ণের ছড়া

ক দিয়ে কদম ফুল
বর্ষাকালে ফোটে
খ দিয়ে খরগোশ
দ্রুত বেগে ছোটে।

গ দিয়ে গরুর গাড়ি
নেইতো এখন ঢাকা
ঘ দিয়ে ঘর বানিয়ে
খেলছে খোকা একা।

ঙ দিয়ে ব্যাঙ ডাকে
ঘ্যাঙর ঘ্যাঙর ঘ্যাঙ
চ দিয়ে চশমা যেন
মেলে আছে ঠ্যাং।

ছ দিয়ে ছাতা মাথায়
যাচ্ছে দাদাবাবু
জ দিয়ে জলাশয়ে
জাল ফেলেছে হাবু।

ঝ দিয়ে ঝরনা ধারা
বইছে পাহাড় চিড়ে
ঞ দিয়ে মিঞা সাহেব
ফিরছে উঁচু শিরে।

ট দিয়ে টাকা-কড়ি
মিছে আশা সব
ঠ দিয়ে ঠেলাগাড়ি
নেইতো কোনো রব।

ড দিয়ে ডাবের পানি
সুস্বাদু মিষ্টি জল
ঢ দিয়ে ঢাকা শহর
ম্যাগাসিটি অবিকল।

ণ দিয়ে হরিণ হয়
দেখতে বেশ সুন্দর
ত দিয়ে তাল খেয়ে
বেতাল লখিন্দর।

থ দিয়ে থালা বাসন
সাজানো থরে থরে
দ দিয়ে দইচিড়া
শিশুর মন কাড়ে।

ধ দিয়ে ধনশালী
সবাই তাকে চেনে
ন দিয়ে নৌকাখানি
চলছে ভাটার টানে।

প দিয়ে পদ্ম ফোঁটে
বর্ষাকালের জলে
ফ দিয়ে ফল-ফলাদি
সবাই খাও মিলে।

ব দিয়ে বাবুই পাখি

স্বরবর্ণের ছড়া

অ দিয়ে অজগর
আসছে ওই তেড়ে
আ দিয়ে আমলকি
রোগ নিরাময় করে।

ই দিয়ে ইক্ষু রস
করে নাও পান
ঈ দিয়ে ঈদ হয়
মানে মুসলমান।

উ দিয়ে উৎসব
আসে সবার তরে
ঊ দিয়ে ঊষা হাসে
আঁধার বিলীন করে।

ঋ দিয়ে ঋষি মশায়
বসে করে ধ্যান
এ দিয়ে একতারায়
বাউল ধরে গান।

ঐ দিয়ে ঐকতানে
কণ্ঠ মেলায় খুকী
ও দিয়ে ওল খেলে
কমে রোগের ঝুঁকি।

ঔ দিয়ে ঔষধ হয়
জানা কথা সবার
ঔষধেই রোগ সারায়
বলবো কত আর।

২২.০৩.২০১৪

জামাই-শ্বশুর

(একটি বাস্তব ঘটনা)

অনেক দিন আগের কথা। পুরান ঢাকা লালবাগে এক হাজি সাহেব ছিলেন। তিনি ছিলেন বেশ রসিক। একদিন হাজি সাহেবের বাড়িতে একজন অতিথি এলেন। সম্পর্কে তার চাচা শ্বশুর। তিনি এবারই প্রথম বেড়াতে এসেছেন ভাতিজি জামাই বাড়িতে। একে নতুন অতিথি, অন্যদিকে স্ত্রীর আত্মীয় তাই অতিথি আপ্যায়নে হাজি সাহেবও কার্পণ্য করলেন না। দুদিন ধরে চলছে অতিথি আপ্যায়ন। এদিকে অতি আপ্যায়নের প্রেমে পড়লেন চাচা শ্বশুর। বাড়ি ফেরার তেমন তাড়া নেই, ভাবখানা এমন তিনি যেন এ পরিবারেরই সদস্য। হাজি সাহেব পড়লেন মহাভাবনায়। কিভাবে তাকে তাড়ানো যায়। যেই ভাবনা, সেই কাজ।

পরদিন সকালে হাজি সাহেব চাচা শ্বশুরের হাতে বাজারের থলেটি ধরিয়ে দিয়ে বললেন, ‘মিঞা সাহেব জরুরি কাজে আমি একটু বাইরে যাচ্ছি, কষ্ট করে বাজারটা যদি করে দিতেন...। ’ কিন্তু কোনো টাকা দিলেন না।

ভালোবাসার কাঁসুন্দি

ভালোবাসা একটি ভালো বাসা
ভালোবাসা জনম জনম ধরে
ভালোবাসা বিধাতার প্রতি
ভালোবাসা গর্ভধারীণির তরে।

ভালোবাসা বাবা আদম (আ.)
ভালোবাসা মা হাওয়াকে ঘিরে
ভালোবাসা যেন গোটা পৃথিবী
ভালোবাসা বিশ্বমানবের তরে।

ভালোবাসা সে তো ভালো বাসা
ভালোবাসা বিশ্ব সৃষ্টি রহস্য ঘিরে
ভালোবাসা স্বামী-স্ত্রী পরস্পরে
ভালোবাসা সন্তানের তরে।

ভালোবাসা শুধুই ভালো বাসা
ভালোবাসা আত্মা-প্রেতাত্মা ঘিরে
ভালোবাসা জন্মদাতার প্রতি
ভালোবাসা ভাইয়ের তরে।

ভালোবাসা একটি বাস্তবতা
ভালোবাসা জন্ম-জন্মান্তরে
ভালোবাসা বিশ্বমানবের প্রতি
ভালোবাসা সৃষ্টজীবের তরে।

ভালোবাসা ইহকাল-পরকালে
ভালোবাসা আদি-অনন্ত ঘিরে
ভালোবাসা দুনিয়ার প্রতি
ভালোবাসা নর-নারীর তরে।

ভালোবাসা ইউসুফ-জুলেখার
ভালোবাসা ইতিহাস গড়ে
ভালোবাসা লাইলি-মজনুর
ভালোবাসা প্রেমিকার তরে।

ভালোবাসা পৃথিবী সৃষ্টির
ভালোবাসা যুগ-যুগান্তরে
ভালোবাসা প্রেমিক ফরহাদের
ভালোবাসা শিরির তরে।

ভালোবাসা আগ্রার তাজমহল
ভালোবাসা প্রেমিক যুগল ঘিরে
ভালোবাসা সম্রাট শাহজাহান
ভালোবাসা মমতাজের তরে।

ভালোবাসা যেন প্রভাতফেরি
ভালোবাসা মাতৃভাষাকে ঘিরে

ফরম্যাট মামুন

স্লিপিং স্লিপিং ফরম্যাট ভাই
অফিসে এলে ভুলে যাই
নতুন বছরে ফরম্যাট নাই
কোথায় গেলে বল তা পাই।

তুমি ফরম্যাট জানে সবাই
তাইতো তোমার তুলনা নাই
ফরম্যাট ফরম্যাটে কাটে বেলা
কাজে তোমার নেই তো হেলা।

স্লিপিং স্লিপিং থাকো তুমি
কাজে তোমার ভিন্ন জমি
ক্যানভাসে তুমি আঁক ছবি
ফরম্যাট খেলা তোমারি হবি।

‘M’-ফর মামুন এটাই জানি
‘F’-ফর ফরম্যাট তাও মানি
তোমার ভাষা বোঝাই কঠিন
সব কিছুতেই সবুজ জমিন।

০২.০১.২০১৪

বড়দিনে ‘টপ সিক্রেট’

মনে পড়ে আজ থেকে পঁচিশ বছর আগে। ১৯৮৮ সালের ২৫ ডিসেম্বর দেশের একজন সুনাগরিকের সরকারি বাসায় গিয়েছিলাম। উদ্দেশ্য পরস্পরকে কাছ থেকে চেনা বা জানা। আমি তখন জগন্নাথ কলেজের ছাত্র। স্কুলজীবন থেকেই আমার লেখালেখির অভ্যাস। স্থানীয়ভাবে প্রকাশিত বিভিন্ন দেয়ালিকা, সাপ্তাহিক স্বদেশ খবর, সাপ্তাহিক সন্দ্বীপ, দৈনিক খবর, আজাদ এবং ইত্তেফাকসহ বিভিন্ন পত্রিকায় নানা সমস্যা-সম্ভাবনা, অনিয়ম-দুর্নীতি, সামাজিক অনাচার-অবক্ষয় নিয়ে লিখতাম। এর মাঝে ১৯৮৭ সালের দিকে বাজারে এলো দৈনিক ইনকিলাব নামে একটি পত্রিকা। এ পত্রিকায় ’৮৮ সালে যৌতুকবিরোধী আমার একটি লেখা প্রকাশিত হয়। এ লেখার জন্য একটি অভিনন্দন চিঠি আসে অফিসের ঠিকানায়। সে সময় লেখালেখির সুবাদেই ইনকিলাবে যাওয়া হতো। এখান থেকেই ইনকিলাবের তৎকালীন সহকারী সম্পাদক শ্রদ্ধেয় মফিজ ভাইয়ের (মরহুম মফিজ উদ্দিন আহমদ) সাথে আমার এক রকম হৃদ্যতা গড়ে ওঠে। তিনি আমাকে যারপরনাই স্নেহ করতেন। আমার ভালো-মন্দ খোঁজ-খবর করতেন। আমার প্রতি তার দাবি ছিল- আমি যাতে অন্তত সপ্তাহে একবার তার স্নেহধন্য আতিথেয়তা গ্রহণ করি। তার দেয়া রুটিন মতো তার অফিসকক্ষে ঢুকতেই বললেন, ‘তোমার একটি চিঠি আছে, যাওয়ার সময় নিয়ে য

আমার আমি : কিছু এলোমেলো স্মৃতি

জীবন থেকে প্রতিটি ক্ষণ হারিয়ে যাচ্ছে। মানবিক জীবন, সংসার জীবন, ব্যক্তি জীবন এমনকি পেশা জীবনও বাদ পড়ছে না এ গৎবাঁধা সময়সূচি থেকে। মহামনীষীদের লেখায় এ সত্যটি প্রকাশ পেয়েছে ঠিক এভাবে- ‘Time and Tide wait for none’- সময় এবং স্রোত কারো জন্য অপেক্ষা করে না। কেবলই বয়ে চলে।

পৃথিবীর প্রতিটি প্রাণীর সাথে সময়ের এ কঠিন নিয়মে আমিও আবদ্ধ। একে একে জীবন থেকে ঝরে গেছে চারটি যুগ, ৪৮টি বছর (নভেম্বর ১০, ১৯৬৫-২০১৩)। এ দীর্ঘ জীবন পরিক্রমায় কী পেয়েছি, কী পাওয়া উচিত ছিল- এ নিয়ে এখন কোনো অনুযোগ, অভিযোগ বা আক্ষেপের সুযোগ নেই। তবে গুণীজনেরা অকপটে লিখে গেছেন- ‘মানুষ যা চায় তা কখনো পায় না; যা পায় তা ভুল করেই পায়’। আমার চাওয়া-পাওয়ার ক্ষেত্রেও এর ব্যত্যয় ঘটেনি।

হাতিরপুলের সেকাল-একাল!

সেকাল:
হাতিরপুলে হাতি ছিল
মাঝখানে সড়ক আর
দুই ধারে বিল ছিল।

হাতিরপুলে পুল ছিল
মাঝখানের সড়কে
রেললাইনও ছিল।

হাতিরপুলের খুব
নামডাক ছিল
গা ছমছম ভয় ছিল।

হাতিশালায় হাতি আর
বিলঝিলে দস্যুদের
রামরাজত্ব ছিল।

পুলের ধারে মাহুত আর
ছিন্নমূলের বাস ছিল
হাতি পালন কাজ ছিল।

এককালে অনেক জমি ছিল
জমিতে ধান আর পাটের
ভালো চাষ ছিল।

তেজি রোদে মাথলা মাথায়
ফসল বোনা আর নিড়ানি
কৃষকের কাজ ছিল।

একাল :
হাতিরপুলে হাতি নেই
বিল নেই ঝিল নেই
পুল নেই রেল নেই।

গা ছমছম ভয় নেই
দস্যু নেই মাহুত নেই
জমি নেই ফসল নেই।

উঁচু কাঁচা সড়ক নেই
ছিন্নমূলের বাস নেই
ঘাস নেই গাছ নেই।

কৃষক নেই মাথলা নেই
ফসল বোনা নিড়ানি নেই
নামটি আছে সেই।

হাতিরপুল, ঢাকা
১৭.১২.২০১৩