ইউজার লগইন

জীবন থেকে নেয়া (টুকরা টাকরা গল্প)

আজকাল সাংবাদিকরা সবাই একযোগে এক কাজ করেন। বিশেষ করে কোন একটা কিছু হিট হয়ে গেলেতো কথাই নাই। সবাই তার পিছনেই ছুটবেন। ফেব্রুয়ারীতে বাংলা একাডেমীর বইমেলায় যেয়ে বাচ্চা আর বাচ্চার মায়েদের প্রশ্ন করা কেনো এই বইমেলা, একুশে ফেব্রুয়ারী মানে কি জানেন কিনা ইত্যাদি ইত্যাদি। বেশির ভাগ সময়ই যেসব মায়েরা বা তাদের বাচ্চারা সঠিক উত্তর দিতে পারে না, তাদের সাক্ষাতকার চ্যানেলে প্রচার করা, সব চ্যানেলেই মোটামুটি এই কাজটা গেলো দু/তিন বছর ধরে যত্নের সাথে করে যাচ্ছে। এই কাজটা করা তাদের নৈতিক সাংবাদিক দায়িত্বের মধ্যে পড়ে গেছে। মেয়ের বাবা বাংলাদেশের মানুষের ইতিহাসের জ্ঞানের এই বহর দেখে, এই পরিনতি নিয়ে যারপর নাই হতাশ। বিদেশে বসে নৈতিক হতাশা জ্ঞাপন করেন আর দেশের কি হবে ভেবে নিয়মিত আফসোসায়িত হন। আমি একদিন বল্লাম, চ্যারিটি বিগিনস এট হোম, তোমার মেয়েকেতো এতো একুশের প্রোগ্রামে নিয়ে গেছো, একুশে নিয়ে জ্ঞান দিয়েছো, কাঠ বিড়ালী কাঠ বিড়ালী আবৃত্তি করিয়েছো সাড়ে তিন বছর বয়েসে, তখনো বাংলা অক্ষর জ্ঞান নেই, কিন্তু ছড়া মুখস্থ করিয়েছি, জিজ্ঞেস করোতো ডেকে একুশে ফেব্রুয়ারী কি ব্যাপার? মেয়ের বাবা মেয়েকে ডাকলেন। মেয়ে নিনটেনডোতে গেম খেলতে খেলতে নিতান্ত অনইচ্ছুক গলায় বললো, জানিতো, পাকিস্তানিদের সাথে যুদ্ধ হয়েছিল। ব্যাস, শুধু মাথায় এটাই আছে যে পাকিস্তানিরা খুব খারাপ, বাংলাদেশীদের সাথে যুদ্ধ করেছে তাই যেকোন প্রশ্নে এই কুমীর ছানা প্রদর্শন হয়ে যায়। মেয়ের বাবা যখন বলতে গেলেন আবার একুশের ফেব্রুয়ারী আসলে কি ব্যাপার তখন আবার আরো ব্যস্ত গলায় জানিয়ে দিলো কন্যা, আমিতো জানি জানি।

কিন্তু হরতাল কি সেটা জানে বিদেশে বসে। নিজ দায়িত্বেই জানে। মিছিল দেখে, ধাওয়া পালটা ধাওয়া দেখে, বানান করে ব্যানার পড়ে আর জিজ্ঞেস করে এরা কি হরতালের পক্ষে বলছে না বিপক্ষে বলছে? কেনো একজন বাংলাদেশী আর একজন বাংলাদেশীকে মারছে? বাংলাদেশের রাজনীতিবিদদের সালাম – নমস্কার। প্রবাসে থাকা বাচ্চারাও জানে বাংলাদেশে কিছু একটা হয় যার নাম “হরতাল”। এখানে বসে বাচ্চাদেরকে “হরতাল” কি বস্তুর নাম তা ব্যাখা করা মুশকিল। আসলে তারচেয়েও বড় কথা হরতাল কি তাতো নিজেও জানি না। এটার উদ্দেশ্য বিধেয়ওতো জানি না। জানি কথায় কথা না মিললে মারামারি করার উছিলার নাম হলো হরতাল। হরতাল মানে ছোটবেলা থেকে দেখেছি, টায়ার পোড়ানো, কাঁদানে গ্যাস ছোঁড়া, দু চারজন টোকাই আর ছাত্র মারা যাওয়া, তা নিয়ে আবার মিছিল, বাসে আগুন, হল খালি, পরীক্ষা পিছানো, সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ, যার সাথে বাংলাদেশের মধ্যবিত্ত জনগোষ্ঠী কিংবা গ্রামে গঞ্জে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা মানুষদের আসলে কোন যোগাযোগ নেই। প্রতিবাদ এখানেও হয় তবে তার গড়ন ধরন এতো অন্য যে বাচ্চাকে কিছু বুঝাবো তো কি বুঝাবো? এপার থেকে ওপারের ঘটনা দেখলে অনেক সময় ছোটবেলায় দেখা টারজান সিনেমার কথা মনে পড়ে যায়। নেংটি পড়া জংলীরা যে তীর ধনুক নিয়ে মারামারি করতো, এখানে নেংটির বদলে আলখাল্লা পড়া থাকে এই যা পার্থক্য।

আমাদের ছয় বছরের আরভিন তার মায়ের সাথে শান্তিনিকেতন বেড়াতে গেছে। আমাদের ইংলিশ মিডিয়ামে পড়া ছেলে তার মাকে জিজ্ঞেস করেছে, এতো বড় বাড়ি কার? কে এই ভদ্রলোক? তার মা তাকে ব্যাখা করেছে পড়ে সে অবাক হয়ে বলেছে, শুধু স্টোরি লিখে এতো বড় বাড়ি পাওয়া যায়? স্টোরিতো আমিও কতো লিখি!!! আমারতো কিছুই নাই। মা বলেছেন, লিখতে থাকো বাবা, দেখো একদিন তুমিও.........

এবার বইমেলায় আমার প্রথম বই প্রকাশ হলো। আমি বাসায় ফোন করেছি, আমাকে আরভিন বলেছে, তোমাকে কনগ্রেচুলেশন্স। আমি বললাম কেনো বাবা? সে বললো, এবারের বুক ফেয়ারে তুমি একটা বুক পেয়েছো, তাই। আমি হেসে বললাম, কে বলেছে তোমাকে? আরভিনের নিরুত্তাপ জবাব, আম্মু।

এর ওপরে আর কি কথা থাকতে পারে?

এ পোষ্টটা আমাদের ছোট ভাই আরাফাত শান্তকে উৎসর্গ করা হলো। উৎসর্গের বিবিধ কারণ আছে

০১/০৬/২০১৩

পোস্টটি ১৩ জন ব্লগার পছন্দ করেছেন

বিষণ্ণ বাউন্ডুলে's picture


হরতাল কি কেবল জামাত হেফাজত ই দেয়?! Confused

আরভিনের জন্য শুভকামনা! Tongue

উত্‍সর্গের ধরনখানা ব্যাপক মজা দিল! Laughing out loud

এত্ত এত্ত দিনের পর
সকাল সকাল
এবি তে এসে আপনার
নতুন লেখা! আহ!
মন ভালো করে দেওয়ার জন্য ধন্যবাদ.. Smile

তানবীরা's picture


প্রথম মন্তব্যের জন্যও তোমাকে ধন্যবাদ Big smile

আহসান হাবীব's picture


এক নিশ্বাসে পড়লাম। হরতাল শুধু জামাত হেফাজত দেয় তা ঠিক না। তবে ওদের হরতালে যে জ্বালাও পোড়াও আতঙ্ক হয় তা আর কারো হরতালে হয় না। তাই ওদের টা নজরে বেশি আসে।
শান্ত ভাইয়্যা আপনার মত কবে হব জানিনা, তাইলে হয়তবা

বিষণ্ণ বাউন্ডুলে's picture


আওয়ামি লীগের হরতাল ভুইলা গেছেন এত তাড়াতাড়ি?!

আহসান হাবীব's picture


সে কি ভাই যায়রে ভূলা
৩৩ দিনের হরতাল গুলা
আমাকে করল থইলা ঝাড়া
একেবারে দেশ ছাড়া।

তানবীরা's picture


Laughing out loud

নাজনীন খলিল's picture


Star Star

Beer

তানবীরা's picture


আমার বাড়ি বেড়াতে আসার জন্যে অনেক ধন্যবাদ আপা

লীনা দিলরুবা's picture


সমরেশ এক লেখায় (বই এর নাম- 'বাঙালির নষ্টামি') হুমায়ূন আহমেদ সম্পর্কে লিখেছিলেন, সেদিনের ছোকরা হুমায়ূন একটি বই লিখে আগাম বাবদ ৫০ লক্ষ টাকা পায়, ভাবা যায় ! (কথাটা স্মৃতি থেকে লিখলাম, বিস্তারিত পড়লে মজা পাবে)। তো, বলতে পারি- শান্তিনিকেতনের বুড়ো লেখালেখি করে এত টাকা চোখেও দেখেন্নাই। Smile টাকা দিয়া কাম কি? সন্দীপনের মতো দু' লাইন লিখতে পারলে এ-জীবনে আর কিছু চাইতাম না।

হরতাল নিয়ে কি আর বলবো! "আমার প্রিয়" মন্ত্রী মহোদয়ের ভাষায় বলি- রাবিশ।

১০

তানবীরা's picture


এটা ঠিক হুমায়ূন আহমেদ লিভড লাইক এ কিং .।.।.।.।.।.।.।।। রবী ঠাকুর বেঁচে থাকলে ওনারও ফ্রা্সষ্টেশান হইতো হুমায়ূনকে নিয়ে আমি শিওর Smile

১১

শাপলা's picture


Tongue Tongue Tongue

১২

তানবীরা's picture


Cool Cool Cool

১৩

টোকাই's picture


অদ্ভুত ভাল লাগ্লো আপনার লেখা সব সময়ের মত

১৪

তানবীরা's picture


অদ্ভূত ধন্যবাদ সব সময়ের মতো Big smile

১৫

আরাফাত শান্ত's picture


সুইট একটা লেখা লিখে ফেললেন। আমি এরকম করে লিখতেই পারি না Stare তাই চেষ্টা করাও বাদ দিছি।

এতো অসাধারন পোষ্ট আমাকে উৎসর্গ করার জন্য ধন্যবাদ। এই ব্লগে কেউ কোথাও আমার নাম নিলেই মনে হয় এতো কষ্ট করে, পিসি হ্যাং খেয়ে মশার কামড় খেতে খেতে ক্লান্ত, এক লেখা তিনবার লিখে পোস্ট দিতে না পা্রার দুঃখ সব ভুলিয়ে দেয়। থ্যাঙ্কস এ লট আপু!

১৬

তানবীরা's picture


ইউ কাম কাম ছোট ভাই। তুমিতো একটা পোষ্ট এমনিতেই ডিজার্ভ করো আফটার অল ব্লগটাকে বাঁচিয়ে রেখেছো Glasses

১৭

মোহছেনা ঝর্ণা's picture


হরতালের যন্ত্রণায় জীবন অতিষ্ট।সবচেয়ে বেশি যন্ত্রণার কারণ আগে অফিস দু'দিন বন্ধ ছিল।আর এখন হরতালের কারণে শনিবারে অফিস করতে হয়।রাজনীতিবিদরা হরতালের ডাক দিয়ে নাকে তেল দিয়ে ঘুমাবে,আর তাদের চামচারা রাস্তায় পিকেটিং করে গাড়ি ভাংচুর করবে,কারো চোখ নষ্ট করবে,কারো হাত-পা ভাংগবে,কাউকে পুড়িয়ে মারবে,আর এত সব ঝুঁকির কথা জেনেও আমাদের মতো ছাপোষা কেরানীদেরকে অসুস্থ শরীর নিয়েও অফিস করতে হবে।একেই বলে কপাল!!!!!!!!
শান্ত'র খুশি খুশি চেহারা কল্পনা করতে ভালো লাগছে। Smile Laughing out loud Big smile

১৮

তানবীরা's picture


শান্ত'র খুশি খুশি চেহারা কল্পনা করতে ভালো লাগছে।

আমারো Tongue Wink Tongue

১৯

সাঈদ's picture


আপনি বলেন দেখি ২১ শে ফেব্রুয়ারি কি হয়েছিলো ? Wink

২০

তানবীরা's picture


তাইতো কি জানি হয়েছিলো ভাগন্তিস At Wits End

২১

সামছা আকিদা জাহান's picture


দাড়ি টুপি মানে জামায়াত মানে পাকিস্তানি মানে খারাপ মানে জম্বির মত খারাপ। তোমার বাচ্চার মত একই প্রশ্ন এরা ভাল না খারাপ। সেদিন ছেলে স্কুল থেকে বাড়ি ফিরেই চিতকার আমি ওই স্কুলে আমি আর যাবো না কারন কোন ছেলে নাকি ওকে গালি দিয়েছে।

ওকে নাকি বলেছে ওর বাবা জামাত করে।

আর এখন তো পাঞ্জাবী টুপি মানেই হেফাজতকি যে অবস্থা। যতই সংস্কার মুক্ত করতে চাই ততই জড়িয়ে যাচ্ছে।

২২

তানবীরা's picture


যতই সংস্কার মুক্ত করতে চাই ততই জড়িয়ে যাচ্ছে।

Sad(

২৩

সুমি হোসেন's picture


অনেকদিন পর লিখলেন আপু!!! Wink
আরভিনের ভাষায় "ওরা কি বোকা, হরতাল দেয় কেন? স্কুলে পড়েনি, জানেনা জিনিস নষ্ট করতে হয়না? আম্মু, ওদেরকে পানিশ দেয়না কেন পুলিশ? আমরা অন্য কোন প্রাইম মিনিস্টার নিতে পারি না?"

২৪

তানবীরা's picture


আমরা অন্য কোন প্রাইম মিনিস্টার নিতে পারি না?"

স্টক নাই অফার নাই Sad(

২৫

শাফায়েত's picture


জামাত-হেফাজত মিলে দেশের ধর্মপ্রাণ সহজ-সরল মানুষগুলোর জীবন ধারণও এখন কঠিন করে তুলেছে। আজকাল কেবল ধর্মকর্ম করা লোকদেরকেও একই পাল্লায় মাপা হয়। বুঝতে হবে জামাত-হেফাজত আর সাধারণ মুসলিম এক নয়। রাজাকার আর সাধারণ বাংলাদেশি যেমন এক নয়, তেমন।

২৬

তানবীরা's picture


Sad( Sad( Sad(

২৭

নিভৃত স্বপ্নচারী's picture


অনেকদিন পর লিখলেন, অবশ্য অনেকেই লেখা ছেঁড়ে দিয়েছে!
আরেকজনের লেখা বিশেষ মিস করি, সে হচ্ছে - মীর। লোকটা কোথায় যে ডুব দিল! Sad
আমরা এখন হরতালে অভ্যস্ত হয়ে গেছি। এই সপ্তাহটা হরতাল থেকে রক্ষা পেলাম, মনে হচ্ছে এটাই অনেক বড় পাওয়া।

২৮

তানবীরা's picture


এই সপ্তাহটা হরতাল থেকে রক্ষা পেলাম, মনে হচ্ছে এটাই অনেক বড় পাওয়া।

সত্যিই তাই

২৯

শওকত মাসুম's picture


হরতালে ভিআইপি রাস্তায় রিক্সায় অফিস আসার একটা আলাদা আনন্দ আছে

৩০

তানবীরা's picture


আলাদা আনন্দটা জানি জানতে চায় Big smile

মন্তব্য করুন

(আপনার প্রদান কৃত তথ্য কখনোই প্রকাশ করা হবেনা অথবা অন্য কোন মাধ্যমে শেয়ার করা হবেনা।)
ইমোটিকন
:):D:bigsmile:;):p:O:|:(:~:((8):steve:J):glasses::party::love:
  • Web page addresses and e-mail addresses turn into links automatically.
  • Allowed HTML tags: <a> <em> <strong> <cite> <code> <ul> <ol> <li> <dl> <dt> <dd> <img> <b> <u> <i> <br /> <p> <blockquote>
  • Lines and paragraphs break automatically.
  • Textual smileys will be replaced with graphical ones.

পোস্ট সাজাতে বাড়তি সুবিধাদি - ফর্মেটিং অপশন।

CAPTCHA
This question is for testing whether you are a human visitor and to prevent automated spam submissions.

বন্ধুর কথা

তানবীরা's picture

নিজের সম্পর্কে

It is not the cloth I’m wearing …………it is the style I’m carrying

http://ratjagapakhi.blogspot.com/