ইউজার লগইন

একজন গ্ল্যাডিয়েটর

একজন গ্ল্যাডিয়েটর

বিরক্তিকর অথচ অবশ্য প্রয়োজনীয় অ্যালার্মটা বাজতে শুরু করেছে - অনাকাঙ্খিত শব্দ তরঙ্গ চিরে দিচ্ছে ঘরের নিস্তব্ধ আবহ - মানুষটার সুপ্ত স্নায়ুতে সাড়া পড়তে থাকে - মস্তিস্ক শরীরকে জানান দেয় - এবার জাগতে হবে - ধীরে ধীরে মানুষটা চোখ মেলে - এ যেন প্রাণান্ত আয়াস - শরীরের প্রতিটি কণিকা যেন অতিরিক্ত পাঁচটি মিনিট সুখনিদ্রার জন্য আকুল হয়ে থাকে - কিন্তু না - সেটা সম্ভব নয় - যদিও ঘর এখনো অন্ধকার - জানালার শার্সিতে লালচে আভাস দিনের আগমনী বার্তা ঘোষণা করছে.

পাশে শুয়ে থাকা সঙ্গিনীর ঘুম এখনো ভাঙ্গেনি - ঘুমে অচেতন প্রাণপ্রিয় শিশুপুত্র ও - মানুষটা এক মুহূর্ত যেন থমকে যায় - কি এক নির্মোঘ মোহে তাকিয়ে রয় ভালবাসার মানুষগুলোর দিকে - বুক চিরে বেরোয় অকারণ দীর্ঘ নি:শ্বাস - অত:পর গা ঝাড়া দিয়ে আলস্য কাটায় - স্নায়ু এখন তার পূর্ণ সজাগ এবং প্রস্তুত - প্রস্তুত লড়াইমুখর একটি নতুন দিনের জন্য - রাতে বিছানায় ঘুমিয়েছিল একজন বাবা - একজন স্বামী - জেগে উঠেছে একজন লড়াকু যোদ্ধা - একজন গ্ল্যাডিয়েটর.

তারপরের কাজগুলো রুটিন বাঁধা - প্রাত:কৃত্য - স্নান - ক্ষৌরি - কাজের ফাঁকেই মাথাটা খেলতে থাকে - দিনের কর্ম তালিকা গুছিয়ে নেয় মনের কোণে - যদিও জানে - তালিকার অধিকাংশ দায়িত্বই অসমাপ্ত থেকে যাবে দিনের শেষে - এর মাঝে সঙ্গিনীর ঘুম ভাঙ্গে - রান্নাঘর থেকে ভেসে আসে পরিচিত গৃহস্থালী শব্দ - সংক্ষিপ্ত প্রার্থনা আর প্রস্তুতি সেরে গ্ল্যাডিয়েটর যখন নাস্তার টেবিলে - ঘড়ির কাঁটা তখন বিপদসীমা ছুঁইছুঁই - টেবিলে তেমন একটা কথা হয়না - সঙ্গিনী এটা ওটা এগিয়ে দেয় - সময়ের তাড়াটা দুজনেই বোঝে - নাকে মুখে খানিকটা গুঁজেই গ্ল্যাডিয়েটর উঠে দাঁড়ায় - সঙ্গিনীর চোখে ফুটে ওঠা হতাশা দেখেও যেন না দেখার ভান করে - বেরোবার আগে পুত্রের মুখটা একবার দেখে নেয়া - টিফিন ব্যাগটা হাতে তুলে নেয়া - এটাই যেন শরীরী বিদায় সম্ভাষণ - এর চেয়ে বেশি নয় - এস্ত পায়ে সিঁড়ি বেয়ে নেমে যায় গ্ল্যাডিয়েটর - সঙ্গিনী তখনও দোরগোড়ায় দাঁড়িয়ে - হয়ত কিছুটা আশাহত - যাবার সময় মানুষটা কিছুই বলে গেল না - নিদেন পক্ষে একবার ................ এই যান্ত্রিক শহর মানুষটার সব আবেগ কি তবে কেড়ে নিল ? বুক চিরে বেরিয়ে আশা দীর্ঘনি:শ্বাসটা অনেক কষ্টে আটকে রাখে মেয়েটি - কিন্তু তার জানা নেই - ওই একই দীর্ঘ নি:শ্বাস সিঁড়ি বেয়ে নেমে যাওয়া মানুষটিকে ক্ষত বিক্ষত করে প্রতিনিয়ত.

রাস্তায় নেমেই গ্ল্যাডিয়েটর ডানে বামে তাকায় - সুলভ কোনো বাহন চোখে পড়ে না - শহরের প্রান্তিক এলাকা এটা - ছয় তলা ভবনের পঞ্চম তলায় তার বাস - একটু নিরিবিলি পরিবেশই তার পছন্দ - কিংবা কে জানে - এই বেশি দুরে বেশি উচ্চতায় থাকার অভিলাষটা আর্থিক অসঙ্গতি থেকেই উদ্ভূত কিনা ?

বাস ধরার জন্য বেশ খানিকটা হেঁটে মূল রাস্তায় আসতে হয় - এটা যাত্রাপথের শুরুর দিক বলে আগে তেমন ভীড় হত না - এখন আর সে দিন নেই - উপচে পরা ভীড় এখানেও - মাত্র সকাল হয়েছে - এর মাঝেই বাস কাউন্টার গুলোতে দীর্ঘ লাইন - গ্ল্যাডিয়েটর খানিকটা দমে যায় - পরক্ষণেই সাহসে বুক বাঁধে - এই শহরে ভীতু সত্তার কোনো স্থান নেই - টিকিট কেটে লাইনে দাঁড়ায় - চঞ্চল চোখ থাকে ঈপ্সিত বাসের অপেক্ষায় - বাড়তে থাকে স্নায়বিক চাপ - মূল্যবান মুহুর্তগুলো পার হয়ে যাচ্ছে এই ভাবনা তাকে অস্থির করে তোলে.

অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে বাসটা দৃষ্টি গোচর হয় - অপেক্ষমান দীর্ঘ লাইনটাতে যেন একটা আলোড়ন ওঠে - গ্ল্যাডিয়েটরের সবগুলো স্নায়ু সজাগ হয়ে ওঠে - টিফিন ব্যাগটা হাত বদল করে ডান হাতটা মুক্ত করে নেয় - বাসটা তখনও পুরো থামেনি - লাইনটাতে যেন বিস্ফোরণ ঘটে - চাক ভাঙ্গা মৌমাছির মত যাত্রীরা ছুটে যায় বাসের দিকে - গ্ল্যাডিয়েটরও ব্যতিক্রম নয় - যেন অনন্য এক স্প্রিন্টার সে - কিংবা অসাধারণ একজন রাগবি খেলোয়াড় - চোখ ধাঁধানো দৌড়ের মাঝেই সবল কনুইয়ের ধাক্কায় ছিটকে দেয় আশেপাশের অপেক্ষাকৃত দুর্বল প্রতিদ্বন্দ্বীদের - দৌড়ের শেষটা যেন নান্দনিক - অসাধারণ রিফ্লেক্সে ডান হাতে আড়াআড়ি ভাবে আঁকড়ে ধরে বাসের হ্যান্ডেল - একটা পা রাখে পাদানিতে - নিখুঁত স্ট্র্যাটেজি - এখন আর কেউ তাকে টপকে বাসে উঠতে পারবে না - কন্ডাক্টর টিকিট ছিঁড়েছে কি ছিঁড়েনি এর মাঝেই কিছুটা স্বেচ্ছায় কিছুটা পৃষ্ঠ চাপে গ্ল্যাডিয়েটর পৌঁছে যায় বাসের অভ্যন্তরে - প্রাথমিক বিজয় অর্জিত হয় - এখন চূড়ান্ত বিজয়ের অপেক্ষা - অপেক্ষা বসার জন্য একটি আসন প্রাপ্তির.

এই অপেক্ষা সহজে শেষ হবার নয় - বাস ভর্তি লোক - সীট বা ফ্লোর কোনটাতেই তিল ধারণের জায়গা নেই - গ্ল্যাডিয়েটর তবু হতাশ হয় না - অনেকটা গায়ের জোরেই দাঁড়াবার একটা জায়গা করে নেয় - বাস চলতে শুরু করে - উপচে ভরা ভীড় - সামান্য দুলুনিতেই যাত্রীদের ঠোকাঠুকি হয়ে যায় - বহুমুখী খিস্তি খেউরের ঝড় ওঠে - কোনটা চালকের প্রতি - কোনটা বা পারস্পরিক.

গ্ল্যাডিয়েটর পোড় খাওয়া চোখে সব দেখে - কিছুই তার চোখের আড়াল নয় - ঘাঘু শকুনের মত সীটে আসীন যাত্রীদের হাবভাব লক্ষ্য করে - কে কোথায় নামবে বোঝার চেষ্টা করে - উদ্দেশ্য একটাই - খালি হওয়া আসনের দখল নেয়া - নিজের দিকেও তাকে খেয়াল রাখতে হয় - মানিব্যাগটা জায়গা মত আছে তো ? বুক পকেটের মোবাইলটা কেউ তুলে নিচ্ছে না তো ? তেলাপোকার নাকি সহস্র চোখ থাকে - তার আছে মাত্র দুটো - তবু সে সবদিকে নজর রাখে - রাখতে হয় তাকে.

পাশে দন্ডায়মান যাত্রীর সাথে ধাক্কা লাগে - লোকটা খিস্তি করে ওঠে - গ্ল্যাডিয়েটর ঠান্ডা শীতল চোখে তাকে দেখে - সেই দৃষ্টির সামনে লোকটা কেমন যেন কুকড়ে যায় - অস্ফুটে কি যেন বলে - শব্দটা বোধয় 'সরি'.

সুযোগটা আচমকা তৈরী হয় - পার্শ্ববর্তী একটি আসন খালি হয় - কেউ কিছু বোঝার আগেই গ্ল্যাডিয়েটর আসনটা হস্তগত করে - এতক্ষণে সে কিছুটা স্বস্তিবোধ করে - পাশের দন্ডায়মান মানুষদের ভ্রুকুটি মোটেও গায়ে মাখে না সে.

গ্ল্যাডিয়েটর জানালা দিয়ে বাইরে তাকে - দেখে নগরীর ব্যস্ত জনপথ - কর্মজীবী মানুষের গন্তব্যে পৌঁছানোর সাহসী সংগ্রাম - বাস - ট্রাক - সিএনজি - রিক্সা - এমনকি পায়ে হেঁটে - কত বিচিত্র উপায়ে মানুষ চলেছে কর্মস্থলে - কি সীমাহীন ভোগান্তি তাদের - ভাবা যায় না - তবে ব্যতিক্রম আছে - ঐ যে দৌড়ায় লেক্সাস - ল্যান্সার - পাজেরো - বলেরো - দৌড়ায় টয়োটা - করোলা - প্রাডো - প্রিমিও - মাঝে সাঝে রাজকীয় বিএমডব্লিউ - এখানে ভিন্ন গল্প - এই আরোহীরা ভিন্ন জগতের মানুষ - গ্যালারিতে বসা মধ্যযুগীয় রাজন্যদের মত - গ্ল্যাডিয়েটরদের মৃত্যু সংগ্রাম যাদের বিকৃত আনন্দের খোরাক - গ্ল্যাডিয়েটরের মন কেমন এক বিতৃষ্ণায় ভরে যায় - তার ভেতরে কি তবে ঈর্ষা কাজ করে - নাকি গ্যালারিতে বসার অপূর্ণ ইচ্ছা তাকে আগ্রাসী করে তোলে ?

আজকের দিনটা তার নয় (কবেই বা দিনটা তার হয় ? ) - সীটটা হাতছাড়া হয়ে যায় - নিজের নির্বুদ্ধিতাতেই - বাস তখন গন্তব্যের মধ্যপথ পেরিয়ে গেছে - আগের স্টপেজে ওঠা এক বৃদ্ধ ভদ্রলোক তার পাশেই দাঁড়িয়েছিলেন - কি যে হলো তার - মুখ ফসকে বলে ফেলল - 'আপনি এখানে বসুন' - ভদ্রলোক কৃতজ্ঞ চোখে তাকিয়ে সীটে আসীন হলেন - আর গ্ল্যাডিয়েটর আবার দন্ডায়মান - নিজের উপরই বিরক্ত হয় সে - কিছুটা যেন বিস্মিত ও - কি হলো তার ? মানবিক আবেগ কি তাকে মানায় - টিকে থাকার এই নিত্য সংগ্রামে উদারতার অবকাশই বা কোথায় ? তবে কি মনের গভীরে আজও সে আগের মানুষটিই রয়ে গেছে ?

বাকি পথটুকু সেই চিরন্তন দুলুনি - শক্তি পরীক্ষা - টালমাটাল শরীরের ভারসাম্য রক্ষা - অর্থহীন সিগন্যালে আটকে থেকে হারিয়ে ফেলা অমূল্য সময় - কখনো বা অক্ষম ক্রোধান্ধ গর্জন আর ক্রমবর্ধমান স্নায়বিক পীড়নের গল্প.

শেষ পর্যন্ত গ্ল্যাডিয়েটর অফিসে পৌঁছায় - ঘড়ির কাঁটা তখন নির্ধারিত সময় পেরিয়ে গেছে - বসের ভ্রুকুটি - সহকর্মীদের তির্যক হাসি - সব উপেক্ষা করেই সে কাজে ডুবে যায় - গ্ল্যাডিয়েটর কাজ করে - পথশ্রমের কথা তার মনে থাকে না - মনে থাকে না ন্যস্ত কাজ আর পারিশ্রমিকের অসম অনুপাতের কথা - শত অপ্রাপ্তি আর বঞ্চনার গল্প কিভাবে যেন সে বিস্মৃত হয় - সে কাজ করে যায় - যান্ত্রিক দক্ষতায় - জিডিপির বর্ধিত ইন্ডিকেটর কোনদিন তার হয়ে সাক্ষ্য দেবে না - তবু সে কাজ করে যায়.

দশটা পাঁচটা অফিসের গল্প তো রুপকথা - গ্ল্যাডিয়েটর যখন অফিস ছাড়ে - তখন দিনরাত্রির শেষ আজানের ধ্বনি বাতাসে ভাসে - তবু গ্ল্যাডিয়েটরের ভ্রুক্ষেপ নেই - ফিরতি যাত্রার আয়োজনে তখন সে ব্যস্ত - একই ভোগান্তি - একই পথ পরিক্রমা - এ যেন পুলসিরাত পার হওয়া - গ্ল্যাডিয়েটর অবশেষে ঘরে পৌঁছায় - সঙ্গিনী ছিল তার অপেক্ষায় - কিছুটা অভিমান - কিছুটা শঙ্কায় - দুটো মানুষ অন্তত কিছুটা সময় নিজেদের এক করে পায় - তৃতীয়টি তখন ঘুমন্ত - শয্যায় - শ্রান্ত গ্ল্যাডিয়েটরের খোলস ছেড়ে বেরিয়ে আসে একজন আবেগী স্বামী - এক স্নেহাকুল পিতা - এক টেবিলে সাদাসিধে খাওয়া - এক শয্যায় কিছু আবেগী মুহূর্ত - ভালবাসার দুটো বিমূর্ত উচ্চারণ - ঘুমন্ত শিশুপুত্রের কপালে স্নেহের চুম্বন - সুখের মানবিক মুহুর্তগুলো এত ক্ষণকালের কেন ? রাত বাড়ে - গ্ল্যাডিয়েটর প্রাণপণ চেষ্টা করে জেগে থাকার - কিন্তু ঘুম ভর করে তার চোখের পাতায় - দিনমান হারেনি যে একবারও - এখন শ্রান্তির কাছে তার হার হয়.

শুনছ গ্ল্যাডিয়েটর - অ্যালার্ম বাজছে আবার - রাজন্যরা আসছে গ্যালারিতে - যোদ্ধারা দাপাচ্ছে মাঠ - ওঠ - সময় হয়েছে আবার যুদ্ধে যাবার.

পরিশিষ্ট :শক্ত মুষ্ঠির সংগ্রামী মানুষগুলোর সাথে প্রতিদিন আমার দেখা হয় - আমরা পরস্পরের শত্রু নই - অস্তিত্বের খাতিরে তবু ডুয়েল লড়ি - কখনো হারি কখনো জিতি - রাজন্যর়া হাসছ নাকি - হেসো না - গ্যালারির নিশ্চিদ্র নিরাপত্তায় বসে আমাদের বিদ্রুপ কর না - একদিন আমরা জাগব নিশ্চয় - আর সেদিন জেন - সীমানা ছাড়িয়ে মাঠ গড়াবে গ্যালারী পর্যন্ত - আমরা আজ যারা ডুয়েল লড়ছি নিয়ত - সেদিন দাঁড়াব সহযোদ্ধার বেশে - তোমাদের হাসির দাঁত ভাঙ্গা জবাব সেদিন পাবে - শক্ত ঢাল যদি উঁচিয়েও রাখো - মুষ্টাঘাত কাকে বলে - তবুও সেদিন টের পাবে.

পোস্টটি ৮ জন ব্লগার পছন্দ করেছেন

নিভৃত স্বপ্নচারী's picture


শক্ত মুষ্ঠির সংগ্রামী মানুষগুলোর সাথে প্রতিদিন আমার দেখা হয় - আমরা পরস্পরের শত্রু নই - অস্তিত্বের খাতিরে তবু ডুয়েল লড়ি - কখনো হারি কখনো জিতি - রাজন্যর়া হাসছ নাকি - হেসো না - গ্যালারির নিশ্চিদ্র নিরাপত্তায় বসে আমাদের বিদ্রুপ কর না - একদিন আমরা জাগব নিশ্চয় - আর সেদিন জেন - সীমানা ছাড়িয়ে মাঠ গড়াবে গ্যালারী পর্যন্ত - আমরা আজ যারা ডুয়েল লড়ছি নিয়ত - সেদিন দাঁড়াব সহযোদ্ধার বেশে - তোমাদের হাসির দাঁত ভাঙ্গা জবাব সেদিন পাবে - শক্ত ঢাল যদি উঁচিয়েও রাখো - মুষ্টাঘাত কাকে বলে - তবুও সেদিন টের পাবে.

টিপ সই

উচ্ছল's picture


উপরের বর্ননা মোতাবেক আমি একজন গ্ল্যাডিয়েটর । এই চক্রে ঘুরছে জীবন.....বের হবার কোন উপায় নাই.....চলছে আর চলছে............এর নামই কি বেচেঁ থাকা?

তানবীরা's picture


বেশ ভাল লেগেছে লেখাটা।

বিষণ্ণ বাউন্ডুলে's picture


লেখাটা অনেক অনেক অনেক ভাল লাগছে, প্রিয়তে রেখে দিলাম।

মন্তব্য করুন

(আপনার প্রদান কৃত তথ্য কখনোই প্রকাশ করা হবেনা অথবা অন্য কোন মাধ্যমে শেয়ার করা হবেনা।)
ইমোটিকন
:):D:bigsmile:;):p:O:|:(:~:((8):steve:J):glasses::party::love:
  • Web page addresses and e-mail addresses turn into links automatically.
  • Allowed HTML tags: <a> <em> <strong> <cite> <code> <ul> <ol> <li> <dl> <dt> <dd> <img> <b> <u> <i> <br /> <p> <blockquote>
  • Lines and paragraphs break automatically.
  • Textual smileys will be replaced with graphical ones.

পোস্ট সাজাতে বাড়তি সুবিধাদি - ফর্মেটিং অপশন।

CAPTCHA
This question is for testing whether you are a human visitor and to prevent automated spam submissions.

বন্ধুর কথা

হাসান আদনান's picture

নিজের সম্পর্কে

কিছু মানুষ জন্মায় - একাকিত্বের বীজমন্ত্র নিয়ে - জীবন তাদেরকে খেলায় - নাকি তারা জীবন কে নিয়ে খেলে - বোঝা দায় - সম্পর্ক - সেটা বন্ধুত্বের হোক - হোক ভালবাসার কিংবা রক্তের - তারা এড়িয়ে চলে - কিংবা কে জানে - বন্ধনে জড়ানোর যোগ্যতা হয়ত প্রকৃতি তাদের কে দেয়নি - অর্থহীন জীবন - মাঝরাতে দুঃস্বপ্ন দেখে জেগে ওঠা - তারপর অঘুমো বিভীষিকাময় মুহূর্ত গুলো - তবু কাউকে ডাকা নয় - ডাকার জন্য যে প্রণোদনা লাগে তারা তা হারিয়ে ফেলেছে - শুধু ভোরের প্রতীক্ষা - যদিও জানে - ভোর আসবে না - এসব মানুষের জীবনে ভোর আসেনা- আসতে নেই - প্রসারিত কোনো হাতেই এরা হাত রাখে না - বিশ্বাস এদের নড়ে গেছে শুরুতেই - যেন সিজোফ্রেনিয়ার রোগী - এক বিচিত্র জগৎ - কোনো বন্ধন নেই - ভুল হলো- একটি বন্ধন আছে - থাকে - বিধাতার সাথে - সে বন্ধনে কখনো প্রার্থনা থাকে - কখনো ঘৃণা - কখনো অসম লড়াই - আর কখনো সীমাহীন - ব্যাখ্যাতীত অভিমান (আমি হয়ত এমনই একজন )

hasan_adnan'র সাম্প্রতিক লেখা