ইউজার লগইন

ঝলমলিয়ায় সনাতন মেলায় - ১

জানা ছিলনা অথবা জেনে থাকলেও ভুলে গেছিলাম সনাতন মেলা জিনিসটা কী। বাগেরহাটের রামপালের ঝলমলিয়া গ্রামে অনুষ্ঠান এইটুকুন মাথায় রেখেই আমি আর বিমা এক দলের সাথে জুড়ে গেছি। আসলে একদিন হে-লালদাকে বলি সারাদিন আপনার স্যুটিংয়ে থাকতে চাই আপনার একশনের ছবি তোলার জন্য। হেলালদা বলে তাইলে ঝলমলিয়া চলেননা সেইখানে সনাতন মেলা নিয়া একটা ডকুমেন্টারি বানাইতেছি। আমি সাথে সাথে রাজি এবং বিমাও। কাউয়া বাপকে পাহারা দেয়ার জন্য যেতে পারেনা ইচ্ছা থাকা সত্বেও।

ধারণা করছিলাম লালদার সাথে চার পাঁচ জন যাবে। বাসে দেখি ৪৫ জনের দল। ঢোল, টোল ইত্যদি নানা বাদ্যযন্ত্র দিয়ে বাস চলার শুরু থেকে গান। গান গাওয়া প্রায় বিরামহীন ভাবে গন্তব্যে পৌছানো পর্য্যন্ত চলল। সবথেকে জমেছিল রাতে ফেরিতে পদ্মা পার হওয়ার সময় মাঝনদীতে উদাত্ত গলায় সবার নাচ গান। অন্য যাত্রিরা ভেবেছে বিয়ে বাড়ির দল।

মাঝরাতে বাস পৌছায় রামপাল। এরপর হাড়কাঁপানো শীতে নসিমনে করে ঝলমলিয়া সনাতনের বাড়ি। থাকার ব্যাবস্থা হল বড় দুইটা ঘরে মেঝেতে পাটি বিছয়ে। সাথে কম্বল। বাড়ির লোকজন সেই মাঝরাতে আমাদের জন্য ভাত নিরামিশ ডাল রান্না করে রেখেছে। মজাদার রান্না খেয়ে তৃপ্ত আমরা বিছানায়। লালদা আমাদের সাথে আড্ডায় কথাবার্তা কম বলে। ফেসবুকের থ্রেডেও কোনো আলোচনায় তেমন খলবলিয়ে উঠেন না। যাস্ট প্রয়োজনীয় কথাটা বলেই চুপ মেরে থাকেন। একবার যেমন বললেন, এইবার পিকনিকে পোলাপাইনের দ্রাক্ষার ভার আমার, বাকিটা আল্লা জানেন..। এইটুকুতেই আমরা বুঝে নিই। কিন্তু ঝলমলিয়া দেখলাম তার অন্য রূপ। একটার পর একটা মজার কথা বলে জমায় রাখছেন। এর আগের বার নাকি সারা রাত লোকজনকে ঘুমাতে দেন নাই। আমি অবশ্য শোয়ার পাঁচ মিনিটের মধ্যেই ঘুমিয়ে পড়ি। প্যাচাল অনেক হল, এইবার ছবি;
sonaton1

sonaton2

sonaton3

সকালে ঘুম থেকে উঠে দিঘি দেখে আমি চমকৃত। বিশাল দিঘিতে শাপলা ফুটে আছে। চার পাশে বড় বড় প্রাচীন বটগাছ। তার নীচে একটা নৌকা। শীতের সকালের কুয়াশা ঘিরে রাখা দিঘিটাকে অপার্থিব মনে হয়।

সৌন্দর্য্যর চেয়ে দিঘিটার অনেক বড় সিগনিফিক্যান্ট হল এর প্রয়োজনীয়তা। সমূদ্রের পাশে হওয়ায় সেখানকার পুকুর নদীর পানি লবনাক্ত। আশে পাশের দশ গ্রামের মধ্যে এইটাই উপ হার দেয় সুপেয় মিস্টি পানি। তাই লোকজন খাবার পানি নেয়া ছাড়া আর কোনো কাজে ব্যাবহার করেনা এটাকে। এমনকি মুখ ধোয়ার জন্য ও না। দিঘিটা যেমন পরম মমতায় দান করে যাচ্ছে পানীয় জল , লোকজনও অসীম কৃতজ্ঞতায়, ভালবাসায়, শ্রদ্ধায় ইশ্বরের পবিত্র দান সংরক্ষণ করছে।

sonaton4_1

sonaton4-1

sonaton5

sonaton6

চলবে..

পোস্টটি ১৭ জন ব্লগার পছন্দ করেছেন

রাসেল আশরাফ's picture


আপনে চলবে কইলে ডর লাগে।পরে আর খবর থাকে না। যেমন হল্যান্ডেরটা শেষ করেন নাই।
================

প্রথম ছবিটা অসাম।

হাসান রায়হান's picture


ধন্যবাদ। আল্লা চাহেতো এইবার শেষ করিব।

শর্মি's picture


আইলসামি করে সনাতন মেলায় না যাওয়াটা বিশাল ভুল হইসে!

আর প্লিজ চলবে বলে বন্ধ করবেননা। খুব খ্রাপ!

হাসান রায়হান's picture


ধন্যবাদ। আল্লা চাহেতো এইবার শেষ করিব।

লীনা দিলরুবা's picture


পোষ্ট পড়া শুরু করতেই শেষ Sad
অনেক মজা করেছেন বাসের ছবি দেখেই বুঝতে পেরেছি।
পরের পর্ব দ্রুত দেন।

হাসান রায়হান's picture


আগামীকল্য পরের পর্ব ইনশাল্লাহ্‌ । Smile

গৌতম's picture


আমার যাওয়ার কথা ছিল, কিন্তু অন্য প্রায়োরিটি থাকায় যেতে পারি নাই। এবারের সনাতন মেলায় সম্ভবত অনেকেই এরকম শ্যুটিং করেছে। ফকিরহাটের এক স্কুলে গেলাম, প্রধান শিক্ষিকা বলেন- তার ভাই সনাতন মেলায় শ্যুটিং করতে গেছেন।

হাসান রায়হান's picture


আমিও অল্পের জন্য সুন্দরবন মিস করেছি খেজুরের রসের লোভে।

একজন মায়াবতী's picture


দিঘিটা তো অসাধারণ Laughing out loud

১০

হাসান রায়হান's picture


ঝলমলিয়াটাই অসাধারণ।

১১

আহমাদ মোস্তফা কামাল's picture


আসলেই অপার্থিব দিঘি! এবং যথারীতি একলা একটি নৌকা...

১২

হাসান রায়হান's picture


হায়, মনে হয় আমি একলাই। কিন্তু প্রভু কৃষ্ণ কিন্তু একলা না বস। Laughing out loud

১৩

আহমাদ মোস্তফা কামাল's picture


কৃষ্ণ একলা হবেন কেন? তাঁর তো আটশ' গোপিনী। আপনি মাত্র কয়েকজনের ছবি তুলে প্রকৃত সত্যকে আড়াল ও নিজের ব্যর্থতাকে গোপন করার অপপ্রয়াস পেয়েছেন! এভাবে কি আর নিজের একলাত্ব ঘোচানো যায়? Tongue

১৪

রায়েহাত শুভ's picture


আমি সেই আপ্নের স্ট্যাটাস থিকা শুরু করছি, নেক্সট পর্ব পর্যন্ত চালায়া যাবো ইনশাল্লা Sad Sad Sad

১৫

হাসান রায়হান's picture


দেয়ার ইজ অলওয়েজ নেক্সট টাইম।

১৬

এ টি এম কাদের's picture


অপার্থিব দীঘি, শাপলা ভরা ! আর একলা একটা নাও । হাল নাই , মাঝিও নাই ! ঠিক আমার ছেলেবেলার স্বপ্নটির মতো !

শৈশবে রোজই একটা স্বপ্ন দেখতাম ! বিরাট বড় একটা দীঘি, কাক চক্ষু জল ! টইটম্বুর ! লাল লাল শাপলায় ঘেরা চার ধার ! ঠিক মাঝখানে ছোট একটা নাও ! মন পবনের ! না রবি ঠাকুরের সোনার তরী ঠিক ধরতে পারতাম না । প্রবল ইচ্ছা নাওটিকে আপন করে পাবার । কিন্তু উপায় ছিলনা কোন । অনেক উঁচু পাড় বেয়ে নীচে নামার কোন সিঁড়ি ছিলনা ! হতাশ আমাকে দাঁড়িয়ে থাকতে হতো পুরো রাত !

লেখককে অনেক অনেক ধন্যবাদ আমাকে ছেলেবেলায় নিয়ে যাওয়ার জন্য !

১৭

হাসান রায়হান's picture


আপনাকেও ধন্যবাদ।

১৮

লিজা's picture


দীঘিটা খুবই সুন্দর । আর কৃষ্ণ দেখি গার্লফ্রেন্ডদের নিয়ে রাধার সাথে পেম করছে Crazy । লগান সিনেমার সেই গানটা মনে পইড়া গেলো ( রাধা ক্যায়ছে না জ্বলে Waiting )

১৯

হাসান রায়হান's picture


Smile

২০

মীর's picture


ছবি-লেখা সবদিকেই দেখি সৌন্দর্যের সমাহার। দিঘীর ছবিটা সবগুলার চেয়ে ভালো। আর কৃষ্ণের ছবি সম্পর্কে কামাল ভাইয়ের ব্যাখ্যাটা চ্রম।
অ.ট.: ভাইজান আপনারে আমি প্রচুর হিংসাই।

২১

হাসান রায়হান's picture


কও কী!!!

২২

মীর's picture


হ, আপনার মতোন ছবি তুলার গুণ যদি আমারো থাকতো Day Dreaming

২৩

জেবীন's picture


নৌকাসমেত দীঘিটা অসহ্য সুন্দর লাগতেছে! কি শান্তির নিস্তব্ধতা যেন সারাটা ছবি জুড়ে!

অনেক মজার হইছে বাস জার্নিটা পড়তেই লাগছে। এত্তোজনে মিলে কোথাও গেলে মজাতো হবেই। পরের পর্বের অপেক্ষায় রইলাম Smile

মেসবাহভাই শুনলাম সূর্য উৎসব করে ঢাকা ফিরছেন, ব্লগে কবে আসবেন কাহিনী জানাইতে?

২৪

হাসান রায়হান's picture


ধন্যবাদ জেবীন। আমি তোমার মত সুন্দর করে লিখতে পারিনা।

২৫

জ্যোতি's picture


এত সুন্দর দিঘী আমি আর দেখিনি। আসলেই অসহ্য সুন্দর।
ব্যপক হিংসা দিয়ে গেলাম। At Wits End At Wits End Angry Timeout

২৬

হাসান রায়হান's picture


হিংসুটিয়া Cool

২৭

শওকত মাসুম's picture


কৃঞ্চ দেখি বড়ই অলস। অলওয়েজ খালি গায় থাকে

২৮

হাসান রায়হান's picture


অলস না টাইম নাই।

২৯

কিছু বলার নাই's picture


সামনের বছর যাবো। শাপলা দেখলেই খাইতে ইচ্ছা করে। অনেকদিন খাইনা।

৩০

হাসান রায়হান's picture


শাপলার সাথে পনিফল ও আছে।

৩১

কিছু বলার নাই's picture


পানিফল আমার ব্যাপক পছন্দ। কখনো এইটার গাছ দেখিনাই। সামনেরবার যাইতেই হবে।

৩২

অতিথি জালাল's picture


চলুক। দেখি সামনে কি আছে?

৩৩

প্রিয়'s picture


সবগুলা ছবিই সুন্দর কিন্তু ৩ নাম্বার ছবিটা চরম। ওইখানে যাইতে ইচ্ছা করতেসে।

৩৪

আনন্দবাবু's picture


ঝলমলে ঝলমলিয়া। মনটাও ঝলমল করে উঠলো।

৩৫

তানবীরা's picture


সবগুলা ছবিই সুন্দর কিন্তু ৩ নাম্বার ছবিটা চরম। ওইখানে যাইতে ইচ্ছা করতেসে।

৩৬

সামছা আকিদা জাহান's picture


ছবিগুলি দারুন। তৃতীয় ছবিটি চমৎকার।

৩৭

রাসেল's picture


রায়হান ভাই আপনি তো প্রায় ফটোগ্রাফার হইয়া গেলেন।

মন্তব্য করুন

(আপনার প্রদান কৃত তথ্য কখনোই প্রকাশ করা হবেনা অথবা অন্য কোন মাধ্যমে শেয়ার করা হবেনা।)
ইমোটিকন
:):D:bigsmile:;):p:O:|:(:~:((8):steve:J):glasses::party::love:
  • Web page addresses and e-mail addresses turn into links automatically.
  • Allowed HTML tags: <a> <em> <strong> <cite> <code> <ul> <ol> <li> <dl> <dt> <dd> <img> <b> <u> <i> <br /> <p> <blockquote>
  • Lines and paragraphs break automatically.
  • Textual smileys will be replaced with graphical ones.

পোস্ট সাজাতে বাড়তি সুবিধাদি - ফর্মেটিং অপশন।

CAPTCHA
This question is for testing whether you are a human visitor and to prevent automated spam submissions.

বন্ধুর কথা

হাসান রায়হান's picture

নিজের সম্পর্কে

অথচ নির্দিষ্ট কোনো দুঃখ নেই
উল্লেখযোগ্য কোনো স্মৃতি নেই
শুধু মনে পড়ে
চিলেকোঠায় একটি পায়রা রোজ দুপুরে
উড়ে এসে বসতো হাতে মাথায়
চুলে গুজে দিতো ঠোঁট
বুক-পকেটে আমার তার একটি পালক
- সুনীল সাইফুল্লাহs