ইউজার লগইন

নীলপদ্মের অপেক্ষা

আমি নীলপদ্ম। একটি বালি হাঁস। শরের আঘাতে ওড়ার ক্ষমতা হারিয়েছি। হারিয়ে আপনাদের হাওড়ের বিলে আমার হাঁসজীবনের শেষ বাসাটি বানিয়েছি। সেখানে বসে বসে অনেক মজার ঘটনার সাক্ষী আম হই। মাঝে মাঝে মনে হয় কথাগুলো কাউকে জানাই। এই সেদিনই যেমন এক মুহূর্তের ব্যাবধানে সময় পরিভ্রমণ করে আসলাম।

সেদিন পড়ন্ত বিকেলের আলোয় বাড়ির ছাদে আরামকেদারায় অলস বসে দেখছিলাম আমার পোষা কাঁচপোকাটার চোখের ভেতর সোনালী রঙয়ের ঝিলিক। সারাদিন সঙ্গিনীর দেখা না পেয়ে একটা অস্থির খয়েরী রঙয়ের শালিক দূরের ঝাউগাছের ডালের বসে খুব মনের সাধ মিটিয়ে ছটফট করছিলো সে সময়টায়। জনমানবহীন নিরব প্রান্তরটা এইসব উপঢৌকনের সাহায্যে আমাকে আপনজনদের সান্নিধ্য-সুখ দিচ্ছিলো। আর কাছের নদীর পাড়টি শোনাচ্ছিলো সুদূর অতীত থেকে ভেসে আসা কোনো সমধুর জলসঙ্গীত। হয়তো বেহুলার কান্নার সুর মিশে ছিলো সেই সঙ্গীতে। হয়তো ওদের জীয়নদ্বীপে পৌঁছুনোর পরের সুখের কান্নাই ছিলো সেটা। কিংবা হয়তো ছিলো আসমানীদের বাড়ির বাতাসে ঘুরপাক খেতে থাকা সেই খিলখিলে হাসির সুর।

আমার অতো সাত-পাঁচ ভেবে কাজ নেই বলে, আমি শুধু চেয়ে চেয়ে দেখছিলাম। ঘন হয়ে বৃষ্টি নেমে এলো সেই অবসরে। হাওড়ের মতো চারপাশের সবকটি চর ভেসে উঠলো সেই বৃষ্টি-জানালার ফাঁক গলে। আর আমি হাওড়ের পানিতে ভাসানো ডিঙি নৌকায় শুয়ে আকাশপানে তাকিয়ে দেখেছি দূর কৈশোরে ফেলে আসা এক পরিচিতাকে। কেন যে এক মুহূর্তের জন্য অমন করে পুরোনো একটি স্মৃতি মনে পড়ে যায় তা কোনো মস্তিষ্ক বিজ্ঞানী এখনও বের করতে পারেননি।

সহস্র সবুজ রঙধনু ঘুঙুর হয়ে লুটিয়েছিলো সেই কিশোরীর পা'য়। ধূসর মেঘেদের সমান্তরালে উড়ে যাওয়া বালিহাঁসের কলতান থেমে গিয়েছিলো যার নিঃশব্দ আগমনী বার্তায়। ব্রহ্মপুত্র নদ জমাটবদ্ধ হয়ে নির্মাণ করেছিলো তার চলার পথ আর পৃথিবীর সবগুলো কাশফুল গাছ হাজির হয়েছিলো মৃদু থেকে মৃদুতর বাতাসের সংস্থান ঘটাতে, কিশোরীর জন্য।

কিশোরী যথারীতি একমুহূর্তই সেই নীলিমায় দাঁড়িয়েছিলো।

হয়তো আপনমনের কোনো অজানা খেয়ালে ভেবেছিলো কোনো এক অচিন রাজকুমারের কথা। তারপর ছুটে ফিরে গিয়েছিলো নিজের সজীব কলাপাতারঙা নীড়ের পানে। জানতাম এর পুরোটাই ছিলো কিশোরী মনের খেলা।

তারপরও লক্ষ শরে বিদ্ধ হয়ে উড়তে উড়তে এসে পড়েছিলাম এই তেপান্তরের মাঠে।

---

পোস্টটি ৮ জন ব্লগার পছন্দ করেছেন

রায়েহাত শুভ's picture


হুমমম...

রুম্পা's picture


হমমমমম....

মনজুর আনাম's picture


কোথাও কেউ নেই

বিষণ্ণ বাউন্ডুলে's picture


মন টা কি আজ খুব বেশি খারাপ? Sad

রাসেল আশরাফ's picture


একজন নীলপরী আরেকজন নীল পদ্ম।দুনিয়া দেখি নীলে নীলাকার হয়ে গেলো।

রন's picture


পাশে আসলেই কেউ নেই!

একজন মায়াবতী's picture


একজন নীলপরী আরেকজন নীল পদ্ম। দুনিয়া দেখি নীলে নীলাকার হয়ে গেলো

জ্যোতি's picture


সব জায়গায় এত শূণ্যতা কেন বুঝি না।

প্রিয়'s picture


আপ্নেরতো টিন এজ চলতেসেনা। তাইলে এত দুঃখবিলাসীতা ক্যান?

১০

উচ্ছল's picture


ভাই মীর লেখাটা মন ছুয়ে গেল তবে পরের লেখাটা যেন অনেক মজার হয়, আনন্দময় হয়।

১১

শাতিল's picture


মন খারাপ কেন রে ভাই Sad

১২

নিভৃত স্বপ্নচারী's picture


চমৎকার সাহিত্য।
এরকম লেখা আরও চাই।

১৩

অনিমেষ রহমান's picture


আজ আমার ডানায় জোর নেই। সঙ্গীরা পাশে নেই। বহুদিন আগে ভুলে গেছি বাড়ি ফেরার সেই চিরচেনা পথ। এক ঐশ্বরিক বাদলধারায় সিক্ত হয়ে চলেছি জন্ম-জন্মান্তর ধরে। এক উচ্ছল নদীর পাড় কেবল এ যাত্রায় সঙ্গী হয়েছে। এছাড়া আশপাশে আমার আর কেউ নেই।

আছেন কেমন গুরু?
আমাকে ভুলে গেছেন?
লেখা ভালো লেগেছে!!

মন্তব্য করুন

(আপনার প্রদান কৃত তথ্য কখনোই প্রকাশ করা হবেনা অথবা অন্য কোন মাধ্যমে শেয়ার করা হবেনা।)
ইমোটিকন
:):D:bigsmile:;):p:O:|:(:~:((8):steve:J):glasses::party::love:
  • Web page addresses and e-mail addresses turn into links automatically.
  • Allowed HTML tags: <a> <em> <strong> <cite> <code> <ul> <ol> <li> <dl> <dt> <dd> <img> <b> <u> <i> <br /> <p> <blockquote>
  • Lines and paragraphs break automatically.
  • Textual smileys will be replaced with graphical ones.

পোস্ট সাজাতে বাড়তি সুবিধাদি - ফর্মেটিং অপশন।

CAPTCHA
This question is for testing whether you are a human visitor and to prevent automated spam submissions.

বন্ধুর কথা

মীর's picture

নিজের সম্পর্কে

স্বাগতম। আমার নাম মীর রাকীব-উন-নবী। জীবিকার তাগিদে পরবাসী। মাঝে মাঝে টুকটাক গল্প-কবিতা-আত্মজীবনী ইত্যাদি লিখি। সেসব প্রধানত এই ব্লগেই প্রকাশ করে থাকি। এই ব্লগে আমার সব লেখার কপিরাইট আমার নিজেরই। অনুগ্রহ করে সূ্ত্র উল্লেখ না করে লেখাগুলো কেউ ব্যবহার করবেন না। যেকোন যোগাযোগের জন্য ই-মেইল করুন: bd.mir13@gmail.com.
ধন্যবাদ। হ্যাপি রিডিং!