ইউজার লগইন

পুরানো সেই দিনের কথা-৫

কিছুদিন আগে ইউনির ডরমিটরী ছেড়ে নতুন বাসাতে উঠেছি।বাসা থেকে পাক্কা উনিশ মিনিট হাটঁতে হয় ল্যাবে যাওয়ার জন্য।কিন্তু প্রতিদিনের এই হাঁটাটা আমি খুব উপভোগ করতেছি কিছুদিন ধরে।হাটঁতে হাটঁতে মনে পড়ে সেই স্কুলে যাওয়ার দিন গুলো।

আমি স্কুলে যেতাম হেটেঁ।মিনিট পচিশেক লাগতো হেটেঁ যেতে।কত কিছু করতাম এই হেটে যাওয়ার পথে।প্রতিদিন রাস্তার পাশের দোকান গুলোর নাম মুখস্ত করতাম।আব্বার অফিসের সামনের আখতার কাকার দোকান থেকে কলম আর বিস্কুটের প্যাকেট নিতাম প্রায়।স্কুলে যাওয়ার সময় একটা মেইল ট্রেন আসতো চাপাঁইনবাবগঞ্জ থেকে। সেই ট্রেনের নীচে পয়সা দিয়ে পয়সা চ্যাপ্টা করা ছিলো আমার প্রতিদিনের একটা কাজ।একদিন বড় বিপদে পড়ে ছিলাম আমার যেতে দেরী হয়ছিলো কিনা বা ট্রেন সেদিন কম লেইট করেছিলো কিনা জানি না দৌড়ায়ে পয়সা দিতে গিয়ে পড়ে গিয়েছিলাম।কোনমতে উঠে স্কুলে গেলাম কিন্তু কিছুক্ষন পর পা ব্যাথা শুরু হলো।শেষমেশ ব্যাথার চোটে টিকতে না পেরে টিফিনে বাসাতে চলে আসলাম।এসে আম্মার হাতে রাম ধোলাই খেলাম।

একবার স্কুলে এক ভাঙ্গা টেবিল ভাঙ্গার অপরাধে আমাদের চার বন্ধুর পঞ্চাশ টাকা করে জরিমানা করা হলো।বাসায় কি করে বলি এই নিয়ে মহা চিন্তায় পড়লাম।কারন আম্মা জানলে পিঠের ছাল তুলে দিবে আর আব্বা কে বললে পরবর্তী একশ্যান কি হবে বুঝতে পারছি না।শেষমেশ আব্বাকে খুলে বললাম ঘটনা।আব্বা শুনলেন দিয়ে পকেট থেকে পঞ্চাশ টাকা বের করে দিলেন আর বললেন স্কুলে বেশি দুষ্টামি না করার জন্য। কিন্তু কেন জানি সেই পঞ্চাশ টাকা স্কুলে জরিমানা হিসাবে দিতে হলো না।আমাকে আর পায় কে??স্কুলে যাওয়ার পথে পিঠা,কালাইয়ের রুটি মোড়ের দোকানের জিলাপী,স্কুলে অরেঞ্জ বেবী আইসক্রীম।কিন্তু এখন আফসুস হইয় সেই পঞ্চাশ টাকা আমি পুরা খরচ করতে পেরেছিলাম না।বাসায় বিশ টাকা ফেরত দিয়ে ছিলাম।

আরেকটু বড় হওয়ার পর স্কুলে যাওয়ার পথে স্টেশনে বসে বসে পেপার পড়তাম।আমাদের বাসার হকার হেলাল কাকা ঐ সময় পেপার গুছাতেন বিলি করার জন্য আর আমি সেই ফাকেঁ ভোরের কাগজ, আজকের কাগজ,ইনকিলাব,সংবাদে রিডিং দিয়ে দিতাম।বাসায় আরাম করে পড়তাম ইত্তেফাক।সিনেমার বিজ্ঞাপন গুলো কেটে জুতার প্যাকেট দিয়ে বাসাতে একটা সিনেমা হল বানাতাম।আমার ছোটটা ধারবিবরনী দিতো আর আমি সিনেমা চালাতাম।

স্কুলে যাওয়ার পথে একটা পোস্ট অফিস ছিলো প্রায় চিঠি পোস্ট করতাম আমার পত্র বন্ধুদের।একদিন এইরকম চিঠি পোস্ট করতে গিয়ে একটা চিঠি পেলাম স্কুলে গিয়ে সব বন্ধুরা খুলে পড়লাম।পড়ে দেখি ইউনি বন্ধ প্রেমিকা গেছে বাড়ি প্রেমিকের রাজশাহী শহরে দম বন্ধ হয়ে আসতেছে তাই তারা দুজন মিলে চাপাইঁনবাবগঞ্জের মহানন্দার ব্রীজের উপরে একটু বাতাস খেতে চায় এই আকুলতা জানিয়ে প্রেমিকার কাছে প্রেমিক একটা পত্র লিখেছেবে।আমরা ভাবলাম দাড়াও বাপধন বাতাস খাওয়াইতেছে। এইজন্য মেয়ের কাছে আলাদা একটা চিঠি আর মেয়ের বাবার কাছে মেয়ের প্রেমিকের চিঠিটা পাঠিয়ে দিলাম। এখন মাঝে মাঝে ভাবি সেই বেচারা সেইদিন মহানন্দার ব্রীজে সেই মেয়েটার জন্য কতক্ষন অপেক্ষা করেছিলো?মনে মনে হয়তো তার প্রেমিকারে অভিশাপ দিয়েছিলো?ইউনি খোলার পর কি তাদের সম্পর্ক টিকে ছিলো??

কি জানি? কিন্তু এত টুকু জানি সেই প্রেমিকের বদদোয়া লেগেছিলো আমার তা না হলে এতদিনে একটা প্রেম কেন করতে পারলাম না।কেন কেন কেন???

আমার স্কুলের একটা ছবি
seroil.jpg

পোস্টটি ৮ জন ব্লগার পছন্দ করেছেন

নুশেরা's picture


বাহ কী সুন্দর স্মৃতি!
পঞ্চাশ টাকার অনিঃশেষ সঞ্চয়ের গল্প অনেকেরই বোধহয় আছে। তবে প্রেমিকযুগলের প্রতি বড় অন্যায় হয়ে গেছে ভ্রাত। কী আর করা, বিবাহোত্তর প্রেমের আশায় থাকো Smile)

রাসেল আশরাফ's picture


এই আকাম ছাড়া আরেকটা আকাম করেছিলাম।

আমাদের পাশের বাসার এক বড় আপু ছিলো চেহারা মাশাল্লাহ ছিলো ভালোই।তার প্রেমে পরলো আব্বার কলিগের ছোট ভাই।আমারে একদিন একটা চিঠি দিয়ে বলে ভাতিজা এটা তোমার আপুরে দেয়া লাগবে।আমি বললাম কোন সমস্যা নাই।দিয়ে দিমু নে।বাসায় এসে সেই চিঠি আমাদের বাগানের এক পচাঁ কাঠের নীচে রেখে দিয়েছিলাম আর সেই চাচার কাছ থেকে কত দিন যে কত কিছু খাইছি।

জ্যোতি's picture


প্রেম করতে পরলাম না...কেনু কেনু কেনু কইলেই কি আমরা বিশ্বাস করুম?আজব! আর বিশ্বাস যদি করি তাইলে তো বলবো আপনি পুরাই বুকটুস।
লেখাটা পড়তে গিয়ে ছোটবেলায় স্কুলে যাওয়ার কথা মনে পড়লো। আমরা ভাইবোনরা একসাথে যেতাম, ঝগড়া মারামারি, দুষ্টামি...কত কি ছিলো!

রাসেল আশরাফ's picture


তাইলে তো বলবো আপনি পুরাই বুকটুস।

কি জানি হয়তো তাই। Glasses Glasses

বকলম's picture


রাসেল ভাইয়ের কমেন্ট যেমন মজার পোষ্টও তেমনি উমদা।

রাসেল আশরাফ's picture


কি যে কন আরিফ ভাই??

আপনার মতো উমদা ছবি যদি তুলতে পারতাম। Sad Sad

হাসান রায়হান's picture


মজার স্কুলবেলা।
আমার স্কুলে যাওয়াটা বিষের মত লাগত। তার উপর বাসা থেকে ছিন চার কি.মি হেটে স্কুলে যেতে হত। ফেরার সময় কমলাপুর স্টেশনের ভিতর দিয়ে রেললাইনের উপর দিয়া হাটতে হাটতে আসতাম। একবার বোধহয় পয়সা চ্যাপটা করেছিলাম।

রাসেল আশরাফ's picture


ক্যান রায়হান ভাই??স্কুল বিষ ছিলো ক্যান??

জ্যোতি's picture


স্কুলে মনয় বান্ধবী আছিলো না।

১০

রাসেল আশরাফ's picture


না বান্ধবীতে ছ্যাকা দিছিলো??? Shock Shock

১১

বকলম's picture


এখন যেমন সব্বাইরে ছুডো ভাই বানায়া ফেলে স্কুলেও মুনেলয় মাইয়াগো ছুডো বইন বানাইয়া ফেলছিল। আপসুস Tongue

১২

জ্যোতি's picture


ছুডু ভাই বানায় বইলা কি বইন বানায় নাকি? ঝানতাম না তো!

১৩

রাসেল আশরাফ's picture


রায়হান ভাই দেখি ম্যালা আগে থেকেই মুরব্বী। Tongue Tongue

১৪

জ্যোতি's picture


আপনিও দিলে দাগা দিলেন? বুঝছি আপনি কেন খোঁচান। কারণ রায়হান ভাই যেদিকে তাকায় আপনিও সেইদেকে তাকান তো তাই। Laughing out loud

১৫

রাসেল আশরাফ's picture


বুঝলাম না ম্যাডাম।যদি একটু উদহারণ সহ বুঝায় দিতেন। Glasses Glasses

১৬

হাসান রায়হান's picture


খাইছে, বকলম সাবও দেখি পেচ্ছাপেচ্ছি করবার চায়।

১৭

বকলম's picture


Tongue জীবনে যদি একটু পেচ্ছাপেচ্ছিই করতে না পারলাম, তাইলে আর কিই পারলাম?! কি কন বড় ভাই?! Smile

১৮

হাসান রায়হান's picture


করেন

১৯

জ্যোতি's picture


লোকজন ১ বছর ধরে পেচ্ছাপেছি করে না।খ্রাপ হইয়া গেছে।

২০

রাসেল আশরাফ's picture


হ বিশেষ করে রায়হান ভাই মুরুব্বী হওয়ার পর থেকে।

২১

নুশেরা's picture


অচিন্দা কেন মুরুব্বী- ঝাতি ঝান্তে চায়

২২

রাসেল আশরাফ's picture


উনি আজ মুখে কুলুপ আর হাতে পাথর বাধঁছে।উত্তর দিতো না আজকে।

২৩

লিজা's picture


ইশকুল তো মহা আনন্দের জায়গা ।
আপনার জন্য আফসোস!! ৫০ টাকাও খরচ করতে শিখেননাই ওই বয়সে । আমি হইলে নির্ঘাত ৫ টা মিমি কিনতাম! ব্যাস, ৫০ টাকা খতম ।
আর একটা জিনিস, আপনি কালাইয়ের রুটির কথা বেশ বলেন। এইটা খাইতে কি খুব মজা? কি দিয়া বানায়? কলাই ডাল দিয়া?

২৪

রাসেল আশরাফ's picture


আসলে ঐ আমলে মিমি চকলেট কি তাই জানতাম না। Sad Sad

কালাইয়ের রুটি খেতে মজাই তো।যদিও আমি বেশি খেতে পারিনা চাপা ব্যাথা করে।এটা বানায় কালাইয়ের ডাল দিয়ে।হাতে তৈরী রুটি।

২৫

ঈশান মাহমুদ's picture


আপনার স্কুলের ছবিতো মাশাল্লা জোস আসছে। রাজধানীতে থাইকাও এমন শানদার অট্টালিকায় পড়ার সৌভাগ্য হয় নাই। জীবনে একটাও প্রেম হয় নাই! আফসুস। এক কাম করেন, এলেমদার কোন ফকির ধরেন...।

২৬

রাসেল আশরাফ's picture


হুম

স্কুলের মাঠটা সবচেয়ে জোশিলা।এত বড় স্কুল মাঠ আমি দেখি নাই এখন পর্যন্ত।

এলেমদার ফকিরনী ধরবো ভাবছি।এক ঢিলে দুই পাখি মারবো। Tongue Tongue

২৭

নাজমুল হুদা's picture


স্কুলের কথা, স্কুলের বন্ধুদের কথা মনে পড়লে মনটা কেমন যেন করে । সব কিছু ঠিক মত মনে করতে পারিনা, আবার স্মৃতিগুলোকে দূরেও সরাতে পারিনা । মনের মধ্যে কেমন যেন সব এলোমেলো হয়ে যায় । এই দুনিয়া বড়ই আজব জায়গা । আর মন তার চেয়েও আজব ।

২৮

রাসেল আশরাফ's picture


কথা ঠিক নাজমুল ভাই।স্কুলের অনেক বন্ধুর কথা মাঝে মাঝে খুব মনে হয়।

২৯

সাহাদাত উদরাজী's picture


স্কুলটা সুন্দর। এমন স্কুলে পড়া এখন ভাগ্যের ব্যাপার!

৩০

রাসেল আশরাফ's picture


আসলেই অনেক সুন্দর আমাদের স্কুলটা।

৩১

নীড় সন্ধানী's picture


এই স্কুলের নাম কি? দারুণ সুন্দর একটা ক্যাম্পাস! Smile

৩২

রাসেল আশরাফ's picture


সিরোইল সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়।রাজশাহী। Smile

৩৩

টুটুল's picture


বড় হইয়া আমি এই ইশকুলেই পড়মু... Smile

৩৪

রাসেল আশরাফ's picture


পইড়েন।

৩৫

মাহবুব সুমন's picture


Wink

৩৬

রাসেল আশরাফ's picture


বড় ভাইজানের কি বাও চোক্ষে সমস্যা।। Tongue Tongue

৩৭

মাইনুল এইচ সিরাজী's picture


বিলাসী গল্পের ন্যাড়ার ২ ক্রোশ পথের কথা মনে পড়ল।

৩৮

তানবীরা's picture


রাসেলের স্কুলের ফটু দেইখ্যাতো একদম আমার অমিতাভের মোহাব্বাতে মনে পড়ে গেলো। এরকম স্কুলে পড়লেই সেরকম ছাত্র হওয়া যায়।

ইয়ে সেদিন যে কোরিয়ান বান্ধবীর বাসায় থার্টি ফাষ্ট সেলিব্রেট করলা বললা, তিনি তোমার ইয়ে না?

৩৯

রাসেল আশরাফ's picture


দেখেন না এই জন্য এই বুইড়া বয়সেও ছাত্র হয়ছি আবার। Puzzled Puzzled

কোরিয়ান বান্ধবীর কথা আর কি কমু।বুললে তো আবার বুলবেন মামুর বুঠা বুলছে। Crazy Crazy

৪০

তানবীরা's picture


মামুর বুঠা বুলছে।

৪১

মীর's picture


ছবি কি হেলিকপকপ থেকে তোলা নাকি? ভালৈছে।
আমরা বন্ধু ফ্লিকার গ্রুপেও দেখি চ্রম চ্রম ছবি দিসেন।
কাহিনী কি? আপ্নে কি ছুপা রুস্তম?

৪২

তানবীরা's picture


আমরা বন্ধুর ফ্লিকার গ্রুপ কোথায়? আমিও ফটু দিতাম চাই ইইইইইইই

৪৩

রাসেল আশরাফ's picture


এই যে

৪৪

মীর's picture


ক্লিকান

৪৫

মীর's picture


রাসেল ভাইএরটাতেই ক্লিকান, অসুবিধা নাই।

৪৬

রাসেল আশরাফ's picture


না না তাতাপু মীরেরটাতে ক্লিকান। সমস্যা নাই।

৪৭

তানবীরা's picture


দুইটাতেই ক্লিকাইলাম, আমারো সমস্যা নাই Tongue

৪৮

নাজমুল হুদা's picture


ফ্লিকারে তানবীরার দেওয়া ছবি দেখেছি ।

৪৯

রাসেল আশরাফ's picture


স্কুলের ছবিটা আমাদের এক বড় ভাই তুলছে।আমি ফেবু থেকে কপি মারছি।

শরম দাও ক্যানরে ভাই।হাতের লিখা না হয় আমার খারাপ।

কিসের কাহিনী জানতে চাও??

৫০

মীর's picture


কাহিনী হৈল, ছবিগুলা কি আপ্নার তোলার ক্ষমতাবলে সুন্দর হৈসে, নাকি ক্যমেরার গুণে? Tongue

৫১

রাসেল আশরাফ's picture


ছবি তুলছি আমি ক্যামেরাও আমার।তাইলে এবার বুঝে নাও/ Wink Wink

৫২

মীর's picture


বাহ্ ভাইএর তো দেহি দিন ফিরসে। খুশি হৈলাম। আন্তরিক শুভেচ্ছাও জানাইলাম। Party Party

৫৩

রাসেল আশরাফ's picture


দিন আবার কই গেছিলো???

৫৪

মীর's picture


হ, সেইটাও জরুরি কথা। দিন যাইবো কৈ?
যাউক্গা, দিন-কাল ভালো কাটুক আজীবন।

৫৫

জ্যোতি's picture


আমি গেলাম দাওয়াত খেতে আরি এরা কই কই ক্লিকাইলো! Angry মীর, রাসেল আর তাতাপুর সাথে আর কুনু কথা নাই।

৫৬

মীর's picture


হ, লিংকুটা আনতে আপনের পোস্টেই যাওয়া লাগছিলো। আপ্নারে কৃতজ্ঞতা না জানানোটা ঠিক হয় নাই। রাসেল ভাইরে ধরেন, আগে লিংক দিসে। Big smile

৫৭

তানবীরা's picture


জয়ি রাগ করলে ক্যামনে কি? ঠিকাছে জয়ির লিঙ্কেও ক্লিকাবো Tongue

৫৮

জ্যোতি's picture


কুথায় লিংক, কিসের লিংক? Crying

৫৯

রাসেল আশরাফ's picture


এই ফ্যাতকান্দুনীর অভ্যাস কি আপনার ছুডু বেলা থেকেই।। Waiting Waiting

৬০

জ্যোতি's picture


Angry Angry Angry Angry

৬১

রাসেল আশরাফ's picture


আপনে বিড়ি খাইয়া কান দিয়ে ধুমা বাইর করার বুদ্ধি কবে থেকে শিখছেন?? Silly Silly

৬২

জ্যোতি's picture


বদ পুলা। বিড়ি আমি খাইনাই কুনুদিন।ভালু পাই না।

৬৩

রাসেল আশরাফ's picture


Laughing out loud Laughing out loud Smile) Smile) Rolling On The Floor Rolling On The Floor

৬৪

মুকুল's picture


স্মৃতিচারণ ভাল্লাগছে।
আমি স্কুল জীবনে আম্মার ব্যাগ থেইকা ২/১ টাকা কৈরা প্রায়ই চুরি করতাম। অবশ্য এইটা করতাম দুপু্রে স্কুলে কিছু খাওয়ার জন্যই। দুপুরের দিকে ব্যাপক ক্ষিদা লাগতো। a

৬৫

রাসেল আশরাফ's picture


আম্মার ব্যাগের দিকে তাকাইলে কেমনে জানি টের পাইতো।আর আব্বার পকেট থেকে একটাকা/দুইটাকা নিলে বুঝতো কিন্তু পাচঁ/দশটাকা নিলে বুঝতো না।

হাইস্কুলে উঠে মাঝে মাঝে একবারে দশটাকা নিতাম সকালে।আর রাতে বলতাম আজ আমি আপনার পকেট থেকে টাকা নিছি।

৬৬

জ্যোতি's picture


দুই চোর। বড় হয়ে বউ এর ব্যাগ থেকেও টাকা নিবে মনয়।

৬৭

রাসেল আশরাফ's picture


বউয়ের ব্যাগতো আমার ব্যাঙ্কের একাউন্ট।আমি যখন ইচ্ছা তখন টাকা তুলুম এতে চুরে কি হয়লো?? Crazy Crazy

৬৮

নাজমুল হুদা's picture


টুটুল's picture
টুটুল | জানুয়ারী ৪, ২০১১ - ৪:০২ অপরাহ্ন

বড় হইয়া আমি এই ইশকুলেই পড়মু... Smile

এই পোস্টে সব চাইতে সুন্দর মন্তব্য । টুটুলকে বিপ্লব ।

৬৯

সকাল's picture


স্মৃতিচারণ স্মৃতিতে রাখলাম।

৭০

রাসেল আশরাফ's picture


ধন্যবাদ ভাইজান।

৭১

শওকত মাসুম's picture


যখন অল্প সময়ের জন্য নাখালপাড়া হোসেন আলী স্কুলে পড়তাম তখন, ট্রেন লাইনে পয়শা রাখা ছিল একটা প্রিয় কাজ। টিফিনের পয়শা কতদিন যে এভাবে নষ্ট করেছি। সেই কথা আজ মনে পড়লো।

৭২

নাজমুল হুদা's picture


অর্থ ও বানিজ্য একই সাথে - স্বাভাবিক !

৭৩

রাসেল আশরাফ's picture


নষ্ট হবে কেন??ঐ সময় এটা নিয়ে যে আনন্দ পাওয়া গেছে এর দাম ঐ পয়সার চাইতে অনেক বেশী।

৭৪

নাজমুল হুদা's picture


পয়সা নষ্ট হওয়ার ভয়ে প্রতিনিয়ত কত আনন্দ যে বিসর্জন দিয়ে চলেছি । আমরা সব কিছুই পয়সা দিয়ে কিনি, শুধু আনন্দটা পেতে চাই বিনা পয়সায় ।

৭৫

বকলম's picture


আমরা সব কিছুই পয়সা দিয়ে কিনি, শুধু আনন্দটা পেতে চাই বিনা পয়সায় ।

Smile

৭৬

বকলম's picture


ঐ সময় এটা নিয়ে যে আনন্দ পাওয়া গেছে এর দাম ঐ পয়সার চাইতে অনেক বেশী।

যতার্থই বলেছেন রাসেল ভাই।

মানুষ টাকার পেছনে ছুটতে ছুটতে এক সময় টাকা কামানোর উপলক্ষ্যটাই ভুলে যায়।

মন্তব্য করুন

(আপনার প্রদান কৃত তথ্য কখনোই প্রকাশ করা হবেনা অথবা অন্য কোন মাধ্যমে শেয়ার করা হবেনা।)
ইমোটিকন
:):D:bigsmile:;):p:O:|:(:~:((8):steve:J):glasses::party::love:
  • Web page addresses and e-mail addresses turn into links automatically.
  • Allowed HTML tags: <a> <em> <strong> <cite> <code> <ul> <ol> <li> <dl> <dt> <dd> <img> <b> <u> <i> <br /> <p> <blockquote>
  • Lines and paragraphs break automatically.
  • Textual smileys will be replaced with graphical ones.

পোস্ট সাজাতে বাড়তি সুবিধাদি - ফর্মেটিং অপশন।

CAPTCHA
This question is for testing whether you are a human visitor and to prevent automated spam submissions.

বন্ধুর কথা

রাসেল আশরাফ's picture

নিজের সম্পর্কে

কিছুই জানি না...