ইউজার লগইন

আবজাব-৩

বলি নাই অপেক্ষায় থাকো।

এই সব হেমন্তের ধান কাটা শেষে
নবান্নের উৎসবে যাব।
তারপর  শীতঘুম।

অতঃপর ঘুম শেষে খামোখায় বাতাসে তোমার ঘ্রাণ খুঁজি।

পোস্টটি ৮ জন ব্লগার পছন্দ করেছেন

বকলম's picture


আমার ভাষায় এই পোষ্টের শুরুর কথগুলোঃ

পোষ্ট লিংক : http://www.amrabondhu.com/bokolom/323

কূল কূল করে বয়ে যাচ্ছে সময় নদীর স্রোতের মতো। সেই সময় নদীতে আমার ছোট্ট সাদামাটা জীবন নৌকা। সেই নৌকার দাড় উঠিয়ে আমি র্নিলিপ্ত মনে বসে থাকি। আমার নৌকোর ছেড়া পালে সুখদুঃখগুলো বসন্ত, শরৎ বা আষাঢ়ের হাওয়া হয়ে আছড়ে পড়ে। আমার ছোট্ট জীবন তরী সে হাওয়াতে কখনও দ্রুত আবার কখনওবা মৃদুমন্দ গতিতে অস্তগামী সূর্যকে নিশানা করে চলতে থাকে, ঠিক যেখানটায় নদীটা আকাশের প্রান্তে গিয়ে মিশে সেখানটায়। কখনও ভরা জোছনায় গা ডুবিয়ে চুপটি করে বসে থাকি অনন্তের অপেক্ষায়। নৌকার পাটাতনে শুয়ে রাতের আকাশ দেখি। তারাদের সাথে চোখটিপে খুনসুটি করি, তারাও মিটমিট করে তার প্রতিউত্তর দেয়। ধুমকেতু গুলো চোখের কোনবেয়ে অদৃশ্য হয়ে যায়, আমার সাথে তাদের এ যেন প্রতিনিয়ত লুকোচুরির খেলা। শরতের ফুরফুরে হাওয়া ছোট্ট বেলার মায়ের আঁচল হয়ে মুখে পরশ বুলিয়ে যায়। চোখ বুজলেই মনে হয় যেন ছোট্ট সেই আমি মায়ের আচঁলে মুখ লুকিয়ে আছি, মায়ের শরীরের সেই মায়ভরা গন্ধ ঠিক ঠিক নাঁকে বাজে। আমি চোখ বন্ধ করে থাকি যতক্ষন না দুপুরের ক্ষরতাপ আমাকে জাগিয়ে না তোলে। ঘোর কেটে চোখ খুলে নদীর দুপাশে সারি সারি কাশঁফুল দেখতে থাকি। তারা যেন দুলে দুলে হাত নেড়ে আমার পাণে চেয়ে হাসে। আমিও হেসে হাত নেড়ে সাড়া দিই। সবকথা হয় মনে মনে, চোখ আর হাতের ইশারায়। হ্ঠাৎ একটা শুশুক আমার ডিঙি নৌকোর এপাশ থেকে ওপাশে লাফিয়ে পানিতে হারিয়ে যায়, আমি ঠিক বুঝতে পারি অভিমানি শুশুকের বলে যাওয়া কথা। সে যেন অভিমানে বলে যায় 'শুধু হতচ্ছাড়া কাশফুল গুলোকেই দেখলে! আর আমি যে কখন থেকে তোমার নৌকোর এপাশ ওপাশ ছুটিছুটি করছি সে খেয়াল কি তোমার আছে?! আমি গামছার পুটলি থেকে খইটা, মোয়াটা সাথে গুড়টা তার যাত্রাপথে ছুড়ে মারি, বলি 'অনেক হয়েছে তোর অভিমান এই বার মোয়াটা, খইটা মুখে দিয়ে আমাকে উদ্ধার কর, তোর চালাকি আমার বোঝা শেষ। পাজি শুশুকটা টুপ করে ভেসে উঠে মোয়াটা মুখে নিয়ে দাঁত কেলিয়ে, মুখে ভেঙচি কেটে, ফিক করে একটা হাসি দিয়ে আবার পানিতে অদৃশ্য হয়।

মাথার উপর সূর্যটা নির্লিপ্ত ভাবে আবার তেতে উঠে, ভাবটা যেন, আমার কি দোষ! আমার তাপটাই এমন, চাঁদের মতো ম্যারম্যারে আলো দেয়া আমার পক্ষে সম্ভব না, কার গতর পুড়লো বা কার ঘাম ঝরলো আমার তা ভেবে কাজ নেই। আমি মনে মনে হাসি। সূর্যটার বুদ্ধি শুদ্ধি আসলেই নাই। ঠিক যেন এক ক্লাসে সাতবার থাকা আমাদের সেই আদুভাই। চাঁদের আলোকে যে ম্যারম্যারে বলে অবজ্ঞা করল, গাধাটা জানে না যে ওটা ওর নিজেরই আলো।

আমার রোদে পোড়া তামাটে শরীরটা সূর্যের দিকে পিঠ দিয়ে নৌকোর পাটাততে এলিয়ে পড়ে চোখ বুজে। মনে মনে ঠিক করি এবার হেমন্তের আগে আর চোখ খুলছি না। চোখ খুলেই যেন সোনা রঙের ধান কাটা দেখতে পাই।

(হেমন্তে চোখ খুললে এর পর্ব চললেও চলতে পারে)

মানুষ's picture


সাব্বাস! আমার কোবতেখানা ম্লান করে দেওয়ার জন্য ধন্যবাদ Smile

বকলম's picture


Tongue

নীড় সন্ধানী's picture


এই চমৎকার কমেন্টটা পোষ্টে দেয়া দরকার ছিল। দারুন!!

কাঁকন's picture


তানবীরা's picture


কবিতার থেকেও মন্তব্য আরো ছুঁয়ে গেলো

টুটুল's picture


পোস্ট এবং প্রথম কমেন্টস
লাইক এবং আবার লাইক কর্লাম

পড়লেই মন উদাস হয় ...
সেই যে আমার নানা রঙের দিনগুলো...

মানুষ's picture


বেশিক্ষন উদাস থাকবে না। বউ আইসা কানে ধরলেই সব উদাস উধাও হইবে।

মানুষ's picture


এত মাথা খাটাইয়া আবজাব লিখলাম আর এতক্ষনে মাত্র দুইটা কমেন্ট! খেলবো না

১০

নীড় সন্ধানী's picture


এই বসন্তকালে হেমন্তের কবিতা, তারপর আবার শীতঘুম। নিশ্চয়ই আপনি দক্ষিন গোলার্ধের মানুষ Tongue out

১১

মানুষ's picture


এইটা শীত শেষে গ্রীষ্মকালের কবিতা Yell। নাদান পুলাপান কবিতা বুঝে না।

১২

শওকত মাসুম's picture


লাইক করলাম।

১৩

জেবীন's picture


লাইক করলাম কারন পোষ্টটা অপেন না করেই পড়া গেলো... Smile 

১৪

সাঈদ's picture


লাইক করলাম কারন এত ছোট পোষ্ট পড়তে ভালো লাগে । বড় লেখা পড়ার ধৈর্য্য থাকেনা পিসিতে।

১৫

ভাস্কর's picture


ভালো লাগলো আবজাব...

১৬

জ্যোতি's picture


কি ছোট আবজাব!পড়তে শুরুই করলাম না। শেষ হইয়া গেলো।লাইক করছি।

১৭

কাঁকন's picture


ভালো লাগলো

১৮

ছায়ার আলো's picture


আমি শিওর তুমি আসলে এইটা তোমার বস রে নিয়া লেখসো

মূল রূপঃ
কাজ শেষ, স্যার এখনআমি বাসায় যাব।
টাইম শীট ফিল করা শেষ হলেই লগ অফ...অথবা হাইবারনেট
বাসায় গিয়ে মোবাইল অফ...
(মনে মনে) কাল আমি অফিসে আসবো না!
Wink

মন্তব্য করুন

(আপনার প্রদান কৃত তথ্য কখনোই প্রকাশ করা হবেনা অথবা অন্য কোন মাধ্যমে শেয়ার করা হবেনা।)
ইমোটিকন
:):D:bigsmile:;):p:O:|:(:~:((8):steve:J):glasses::party::love:
  • Web page addresses and e-mail addresses turn into links automatically.
  • Allowed HTML tags: <a> <em> <strong> <cite> <code> <ul> <ol> <li> <dl> <dt> <dd> <img> <b> <u> <i> <br /> <p> <blockquote>
  • Lines and paragraphs break automatically.
  • Textual smileys will be replaced with graphical ones.

পোস্ট সাজাতে বাড়তি সুবিধাদি - ফর্মেটিং অপশন।

CAPTCHA
This question is for testing whether you are a human visitor and to prevent automated spam submissions.

বন্ধুর কথা

মানুষ's picture

নিজের সম্পর্কে

(• ̮̮̃•̃)
/█\
.Π._______
নিঃসঙ্গ গ্রহচারি