ইউজার লগইন

ধুমপান বিষপান

নাটক সিনেমায় অহরহ দেখি নায়ক খুব কায়দা করে সিগারেট ঠোটে লাগায়, আয়েস করে টানে। চিন্তামগ্ন হলে, বিরহ দেখা দিলে, জটিল কাজে নিমগ্ন হলেও সিগারেট টানতে দেখা যায়। বলা যায় বিনে পয়সায় নাটক সিনেমায় সিগারেটের বিজ্ঞাপন দেখা যায়। আর সেই বিজ্ঞাপনে যখন কারো প্রিয় নায়ক সিগারেট টানে তখন অনেক উঠতি বয়সের কিশোর বালক ও সিগারেট টানার প্রতি আগ্রহ বোধ করে। এভাবেই মনে হয় অনেক মানুষের ধুমপানের হাতে খড়ি হয়।মনে আছে টাইম ম্যাগাজিনের পিছনের পাতায় মার্লবোরো সিগারেটের বিজ্ঞাপনে ঘোড়ার পাশে কাউবয় ড্রেস পরা মডেলের সিগারেট টানার ছবি। তখন মনে হত ,ইশ ওই কাউবয় এর মত সিগারেট না টানতে পারলে জীবনটাই বৃথা।

আগে শুনেছি সিগারেট না টানলে ছেলেদের নাকি ম্যানলি লাগে না। মেয়ে মেয়ে লাগে। এমন কথা শুনলে যে কেউ বোকার মত নিজের পুরুষত্ব জাহির করার জন্য হলেও সিগারেট ধরে ফেলবে হয়ত।হাস্যকর লাগে এখন এসব শুনলে। আজ আমি হয়ত সেই অবস্থানে নাই কোন কিশোরের মত আর তাই আমার কাছে এসব কথা হাস্যকর লাগে।কিন্তু উঠতি বয়সে ভাল মন্দ যুক্তি কে শোনে।

আমি সিগারেট ধরেছি যখন ক্লাস নাইন এ পড়ি। খিলগাও বাগিচা'র পুলের উপর বসে সিগারেট টানার হাতে খড়ি। দস্যু বনহুর ছেড়ে মাসুদ রানা পড়ার স্বাদ পেয়েছি সবেমাত্র। লোমহর্ষক সব অপারেশন , শিহরন জাগানো প্রেম, বন্ধুদের খুনসুটি এতই মজা লাগতো যে পড়ার বই এর ফাঁকে ফেলে এক রাতেই এক বই শেষ করে ফেলতাম। তার উপর নতুন করে শিখলাম কেমন করে সিগারেট খেতে হয়। প্রথম প্রথম কোন মজাই পেতাম না। কেমন বাজে গন্ধ , কাশি হোতো আর খাওয়ার পর বমি বমি লাগতো। বাসায় গিয়ে সিগারেটের গন্ধের কারণে বড় ভাইএর হাতে মার ও কম খাই নাই। কিন্তু কোন কিছুই আমাকে দমাতে পারে নাই।

সেই যে হাতে খড়ি হল তারপর কত দিন মাস বছর গড়িয়ে গেলো। জীবন কত বদলে গেছে। বয়স কত বেড়ে গেছে। জীবনের অনেক কিছুই অতীত হয়ে গেছে। হয় নাই শুধু সিগারেট।
আমাদের দেশের মানুষের ভিতর সিগারেট টানার প্রবনতা অনেক বেশি। আরো খেয়াল করেছি এশিয়ান দেশ গুলির মানুষ ইয়োরোপ আমেরিকার তুলনায় অনেক বেশি ধুমপান করে। এটার কোন ভৌগলিক ব্যাখ্যা আছে কিনা আমার জানা নাই। তবে দেখেছি বাংলাদেশ, পাকিস্তান, চায়না, কোরিয়া, জাপান, এসব দেশের মানুষ অনেক বেশি চেইন স্মোকার। সেই তুলনায় আমেরিকার অনেক রাজ্যে দেখেছি রাস্তা ঘাটে মানুষের হাতে সিগারেট জলছে না। ইউরোপের অনেক দেশ ঘুরেছি, অনেক আড্ডায় গিয়েছি , মানুষ ড্রিঙ্ক করে কিন্তু সিগারেট তেমন পান করে না।

প্রবাসে এসে খেয়াল করলাম আমার সাথের মানুষজনের ভিতর সিগারেট খোর এর সংখ্যা অনেক কম। বিয়ে করার পর সিগারেট খোরের সংখ্যা কমতে থাকে। বাবা হবার পর আরো কমে। কারন বিদেশে এসেই জানলাম সেকেন্ড হ্যান্ড স্মোকিং ( স্মোকারের পাশে থেকে তার নিঃশ্বাস থেকে গন্ধ শেয়ার করে যে) নাকি সিগারেট টানার চেয়েও খারাপ। বিদেশে বাসা বাড়ির ভিতর সিগারেট কেউ টানে না বলা যায়। কারন ঠান্ডা ওয়েদারের কারনে ঘর বাড়ির দরজা জানালা সব সময় বন্ধ থাকে । আর বন্ধ ঘরে সিগারেট টানলে সেই গন্ধ সহজে যায়না, বরং চরম অস্বস্থিকর লাগে। ঘরের বাইরে সিগারেট টেনে ঘরে ঢুকলে ঘরের ভিতরের অধুমপায়ী মানুষ গুলি যেমন গৃহকর্তী এবং শিশুরা সেই গন্ধ থেকে নিঃশ্বাস নেয়। যা কিনা ডাক্তারদের মতে হাঁপানি রোগের একটা মুল কারণ।

অনেক প্রতিকুলতা সত্বেও সিগারেট খাওয়ার মজা থেকে দীর্ঘদিন নিজেকে বিরত করি নাই।কিন্তু খুব খেয়াল করতাম যে বাসায় স্ত্রী আর সন্তানেরা বিরক্ত হয়, অসুস্থ হয়। কেউ বেড়াতে এলে, আর যদি অধুমপায়ি হয় তাহলে অনেক বড় লেকচার ঝাড়ে। রুটিন চেক আপ এ ডাক্তারের কাছে গেলে প্রথম কথাই জিজ্ঞেস করে আমি ধুম পান করি কিনা। হ্যাঁ সুচক উত্তর শুনলে অনেক কথা শুনায়।বলে কেন নিজ হাতে নিজেকে খুন করছি ।আরো বলে যারা সিগারেট খায় তাদের কোন ইনফেকশন হলে সহজে ভাল হয় না, এন্টিবায়োটিক কাজ করে তুলনামুলকভাবে আস্তে । রক্তে ক্লট হয়, লাং ক্যান্সার অবসম্ভাবী। আমার ছেলেরা খুব মন খারাপ করে বাবা কেন সিগারেট খায়। আগে খুব রেগে যেতাম এসব শুনলে। ভাবতাম সবাই আমাকে এত জ্ঞ্যান দেয়ার জন্য উঠে পড়ে লাগলো কেন।

শুধু যে নিজের বাসায় সবাই বিরক্ত তা নয়। কাজের যায়গায় দেখা গেল আমি ছাড়া আর কেউ ধুম পান করে না। আমি ধুমপান করে এলে সবাই গন্ধ পায় আর নানা রকম কমেন্ট করে বসে। মেয়ে কলিগ'রা তো বলেই বসে , তোমার বউ নিশ্চয় ই তোমাকে কিস করেনা। আমার বাসায় কিছু নষ্ট হলে যে মিস্ত্রী আসে ঠিক করতে ওই বেটাও আমাকে কথা শুনিয়ে দেয় সিগারেট টানতে দেখলে।

দেশে খেতাম ইংল্যান্ড এর বেনসন সিগারেট।অমৃতের মত স্বাদ যার সাথে পৃথিবীর আর কোন ভাল সিগারেটের তুলনাই হয়না।কিন্তু আমেরিকায় এই সিগারেট বিক্রি করেনা। এই দেশি সিগারেটের দাম অনেক বেশি , খেয়েও তৃপ্তি হয় না। তাই অনেক ঝামেলা করে বৃটিশ বেনসন যোগাড় করতে হয় লোক মারফত। তাতে করে অনেক মাথা ব্যথা সইতে হয়।

বেশ কয়বার সিগারেট ছেড়েছি সাময়িকভাবে। তারপর যখুনি দেশে বেড়াতে যাই আমার অসংখ্য চেইন স্মোকার বন্ধুদের আড্ডায় গিয়ে আবার শুরু করে দেই ধুমপান। এমন হয়েছে বেশ কয়বার। অনেক বাধা বিপত্তি। তাই নিজেই চিন্তা করতে শুরু করলাম , কি আছে জীবনে, আরেকবার চেষ্টা করে দেখি, সিগারেট ছাড়তে পারি কিনা।

সেই চেষ্টা অনুযায়ী গত চার মাসের ও বেশি সময় ধরে সিগারেট খাচ্ছিনা। প্রথম কয় সপ্তাহ খুব খারাপ লেগেছে। মেজাজ বিগড়ে যেতো। এখন আস্তে আস্তে সয়ে এসেছে। এবার মনে হয় পারবো। তার কারন হোলো আমার এক চেইন স্মোকার বন্ধু বেশ কয়দিন আমার সাথে কাটিয়ে গেলো দেশ থেকে বেড়াতে এসে। সেই বন্ধু বলা যায় প্রতি পাঁচ/দশ মিনিট পর পর সিগারেট খায়। ওর সাথে বসে সংগ দিয়েছি। ওর হাত থেকে নিয়ে দুই একটা টান ও দিয়ে দেখেছি। কিন্তু আরাম লাগে নাই। মজা লাগে নাই। তাই মনে হচ্ছে এবার আমি পারবো অবশেষে সিগারেট ছাড়তে।

নিজে সিগারেট ছাড়ার পর এখন অন্য কারো সিগারেট টানার গন্ধ সইতে পারিনা। খুব খারাপ লাগে। সিগারেটের গন্ধ এত তীব্র যে অনেক দূর থেকে গন্ধ লাগে। সিগারেট খোরের গায়ে খুব বাজে গন্ধ হয়, মুখে গন্ধ হয় । নিঃশ্বাসে সব সময় সিগারেটের গন্ধ বের হয়। সিগারেট শুধু দাঁত হলুদ করে ফেলেনা, বরং দাঁতের গাম নষ্ট করে ফেলে। সিগারেট খাওয়ার কারনেই মানুষের সিভিয়ার কাশি, হাঁপানি, ব্রংকাইটিস হয় যা কখনই ভাল হয় না।

আমেরিকায় সিগারেট কোম্পানি গুলি অনেক শক্তিশালি। আর এরা ওদের ব্যবসা' বাড়ানোর জন্য অনেক পয়সাও খরচ করে, দেশের নীতি নির্ধারকদের ইলেকশন তহবিলে বড় অঙ্কের চাঁদা দেয়। কিন্তু তারপর ও এই দেশে সিগারেটের বিজ্ঞাপন নিষিদ্ধ করা হয়েছে।এখন আর কোথাও দেখা যায়না কাউবয় ড্রেস পরা ঘোড়ার পাশে মার্ল্বোরো সিগারেটের বিজ্ঞাপন। মদ্ আর সিগারেট যেন একে অপরের দোসর। কিন্তু আমেরিকার বার গুলিতে সিগারেট পান নিষিদ্ধ। কোন পাব্লিক প্লেসে, পার্কে, রেস্টুরেন্টে, বাসে, ট্রেনে মাঠে ময়দানে, স্টেডিয়ামে, ক্যাসিনোতে সিগারেট টানা যায়না। সিগারেট কিনার জন্য ২১ বছর বয়স হতে হয়। প্রত্যেক দোকানের প্রতি নির্দেশ দেয়া আছে সিগারেট বিক্রি করার আগে পরিচয় পত্র দেখে বয়স জেনে নিতে। কেউ এটা অমান্য করছে কিনা দেখার জন্য আন্ডার কভার পুলিশ সব সময় চেক করছে। যদি কেউ ভুল করে কিংবা ইচ্ছা করে কম বয়সীর কাছে সিগারেট বিক্রি করে তাহলে মোটা দানের ফাইন দিতে হয়। শুধু তাই নয়। পর পর তিনবার ধরা পড়লে লাইসেন্স বাতিল হয়ে যায় ব্যবসা করার।

এই দেশে স্মোকারদের জন্য সব কিছুই ভিন্ন। যেসব ক্ষেত্রে কোন প্রশ্নপত্র ফিল আপ করতে হয় সেখানে যদি আবেদন কারী ধুমপায়ী হয় তার জন্য একরকম নিয়ম আর অন্যদের জন্য স্বাভাবিক নিয়ম। ধুমপায়ীদের অস্বাভাবিক হিসেবে বিবেচনা করা হয়।ধরে নেয়া হয় ধুমপায়ী মানুষ আগে মারা যেতে পারে তাই তার জীবন বীমার, গাড়ি, বাড়ি বীমের প্রিমিয়াম বেশি হয়। চাকুরি পাবার ক্ষেতে অধুমপায়ী'র প্রেফারেন্স বেশি।

অধিক মাত্রায় ধুমপান করার ফলে মানুষের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যায়। যখন ঠান্ডা জাতীয় কোন অসুখ হয় , সহজে ভাল হয়না। ধুমপায়ী মানুষের ক্যান্সার হবার সম্ভাবনা খুব বেশি। এমন কিছু ক্যান্সার রোগীর ভিডিও দেখলে আমার মনে হয় অনেক মানুষ রাতা রাতি সিগারেট ছেড়ে দিবে। এমন মানুষ দেখেছি ক্যান্সারের ফলে গলা দিয়ে শ্বাস নিতে পারে না। গলা ফুটা করে আলাদা নল দিয়ে শ্বাস টানে। খুব ভীতিকর লাগে দেখলে।

এত বছর পর আজ মনে হয় সিগারেট টানার ভিতর কোন বাহাদুরি নাই। শুধু অর্থ নয় , নিজের মুল্যবান জীবনের স্বেচ্ছায় অকাল মৃত্যু ডেকে আনা। আর যদি সিগারেট টানার ব্যাপারে কারো একরোখা , একঘূয়ে ভাব থাকে তাহলে সেই মানুষটার অন্য কারো জীবনের সাথে সাথে জড়ানো ঠিক না। অন্যদের পেইন দেয়ার অধিকার তো কেউ কাউকে দেয় নাই।

আমি সিগারেট ছাড়ার জন্য কোন প্যাচ বা অসুধ কিছুই খাই নাই। এম্নিতেই ছেড়ে দিসি। তবে খেয়াল করেছি দুধ চা, কফি এসব খেলে সিগারেটের নেশা চাপে। তাই দুধ চা খাই না, শুধু লিকার খাই। কফি খাই না। বেশি নেশা চাপলে চুইং গাম ( বেশি মজার না, একটু পঁচা স্বাদের)
চিবাই। একা ঘরে বসে থাকলে, বোর থাকলে নেশা চাপে। তাই সব সময় কিছু নিয়ে ব্যস্থ থাকা ভাল।

পোস্টটি ১৩ জন ব্লগার পছন্দ করেছেন

আরাফাত শান্ত's picture


ভেরী গুড জব!
ধুম্রপান মুক্ত জীবন সুখের হোক
লেখা ভালো পাইলাম!

মারুফ প্রতীক's picture


বয়স মাত্র ২১,এর মাঝেই ধূমপানের ৫ বছরের অভিজ্ঞতা হয়ে গেছে।বলা যায় ছেড়েও দিয়েছিলাম কয়েকবার।আপনার লেখা পড়ে ব্যাপক ইন্সপায়ারড হলাম। Smile

টোকাই's picture


চাইলেই সব সম্ভব মনে হয়

সাঈদ's picture


ঠিক বলেছেন ভাই।

বিষণ্ণ বাউন্ডুলে's picture


টিপ সই

নিভৃত স্বপ্নচারী's picture


লাইনে আসছেন তাহলে! আমি ছয় মাস হল ছেড়ে দিয়েছি Smile

সামছা আকিদা জাহান's picture


ধূমপান Sad

তানবীরা's picture


Big smile Big smile Big smile

টোকাই's picture


Party

মন্তব্য করুন

(আপনার প্রদান কৃত তথ্য কখনোই প্রকাশ করা হবেনা অথবা অন্য কোন মাধ্যমে শেয়ার করা হবেনা।)
ইমোটিকন
:):D:bigsmile:;):p:O:|:(:~:((8):steve:J):glasses::party::love:
  • Web page addresses and e-mail addresses turn into links automatically.
  • Allowed HTML tags: <a> <em> <strong> <cite> <code> <ul> <ol> <li> <dl> <dt> <dd> <img> <b> <u> <i> <br /> <p> <blockquote>
  • Lines and paragraphs break automatically.
  • Textual smileys will be replaced with graphical ones.

পোস্ট সাজাতে বাড়তি সুবিধাদি - ফর্মেটিং অপশন।

CAPTCHA
This question is for testing whether you are a human visitor and to prevent automated spam submissions.