অনুসন্ধান

ইউজার লগইন

অনলাইনে

এখন জন সদস্য ও জন অতিথি অনলাইনে

অনলাইন সদস্য

২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১

১৯৮৫ সালের ঘটনা। লাহোর স্টেডিয়ামে তৈরি মঞ্চে ধীরে ধীরে উঠে এলেন ইকবাল বানো। তাঁর পরনে কালো শাড়ি! এ যেন রবীন্দ্রনাথের ‘পূজারিণী’ কবিতার শ্রীমতী; চরম বুদ্ধ-বিরোধী রাজা অজাতশত্রুর নিষেধ অমান্য করে, মৃত্যুভয় তুচ্ছ করে যে স্তূপে অর্ঘ্য সাজাতে চলেছেন।
সামরিক স্বৈরশাসক জিয়াউল হক পাকিস্তানের নারীদের জন্য ‘হিন্দুয়ানি পোশাক’ শাড়ি পরা নিষিদ্ধ করেছিলেন। নিষিদ্ধ করেছেন বিখ্যাত প্রগতিবাদী উর্দু কবি ফয়েজ আহমেদ ফয়েজের গান বা কবিতার চর্চা। সামরিক শাসকের সেই ফরমানকে তুচ্ছ জ্ঞান করে ৫০ বছরের এক সাহসী গজলশিল্পী ইকবাল বানো মঞ্চে উঠলেন শাড়ি পরে। তিনি গাইবেন সেই নিষিদ্ধ কবি ফয়েজের গান, যিনি মারা গেছেন এক বছর আগে। হাজার হাজার দর্শকপূর্ণ স্টেডিয়ামে দর্শকের উল্লাসধ্বনির মধ্যে ইকবাল বানো গেয়ে উঠলেন,
হাম দেখেঙ্গে, হাম দেখেঙ্গে
লাযিম হ্যায় কি হাম ভি দেখেঙ্গে;
আমরা দেখব, আমরা দেখব
নিশ্চিত জানি, আমরাও দেখব;

সত্য বলা না বলা

সত্য বলা না বলাঃ সাহাদাত উদরাজী

মাঝে মাঝে মনে মনে ভাবি,
কিছু সত্য কথা চিৎকার করে বলে ফেলি,
পরিনাম যা হবার তাই হউক,
জেল জরিমানা গৃহত্যাগ বঞ্চনা লাঞ্ছনা
কিংবা আরো কঠিন কিছু!

কিন্তু পরমূহুর্ত্তেই মনে পড়ে,
এই প্রাণের সাথে আরো কয়েকটা প্রাণ জড়িয়ে আছে,
তাদের মমতা মাখা মুখ গুলো,
আমার সত্য ভাষণে কি কষ্টেই না পড়ে যাবে!

ফলে চুপচাপ দেখে যাই,
চুপচাপ শুনে যাই,
চুপচাপ হজম করি,
চুপচাপ সহ্য করে নেই!

তবে অন্তরে অন্তরে বলি শুধু,
বিধাতা তোমার যা খুশি করো,
নিয়তি দেখার জন্য কিছু কাল শুধু বাঁচিয়ে রেখ,
বিবেকহীনের যদি কখনো শুভবুদ্ধির উদয় হয়!

(মালিবাগ রেলগেইট এলাকা ২২/০২/২০২১ইং)

রাসেল ভাইয়ের স্মরণসভায়!

রাসেল ভাইকে নিয়ে কিভাবে কথা বলা সম্ভব এটা আমি এখনো খুঁজে পাইনা। আসলেই রাসেল ভাইকে নিয়ে এত কিছু কি বলার আছে? রাসেল ভাই তো আমাদের দিকে তাকিয়েই বুঝে যেত মজা করার হাসি কিংবা আড্ডার ভালোবাসা। রাসেল ভাইও কি এত বলাবলি পছন্দ করতেন। উনি হলে চুপচাপ দাঁড়িয়ে থাকতেন। উনার চার্মই ছিল সবকিছু দেখা, কথা বলে বুঝে নেয়া। তারপর লেখায় নির্মোহ ভাবে হিউমার মিশিয়ে তা নিয়ে একটা বিকল্প মতামত দেওয়া। তবুও জীবনে কখনো আনুষ্ঠানিকতা তো রাখতেই হয়। সেই আনুষ্ঠানিকতা থেকেই আমরা আজ বিকালে পরীবাগে গেলাম, যে আমি ছুটিরদিন কোথাও যাই না।

বহু সাধনায় ধরেছি হাত

আহসান হাবিব / বহু সাধনায় ধরেছি হাত
হাসনাবাদ সেনা ক্যাম্প
১০/২/২০২১
বহু সাধনায় ধরেছি যে হাত হাততো ছাড়বো না
আমরা হাততো ছাড়বো না।
উডাল পাতাল ঢেউ বা ঝড়ের রাতে পথ হারাবো না।
আমরা হাততো ছাড়বো না।
বহু সাধনায় ধরেছি যে হাত হাততো ছাড়বো না
আমরা হাততো ছাড়বো না।

জীবন নদীর চলার পথে সোজা কিংবা উল্টা রথে
কালবৈশাখীর ঝড়ের রাতে সব কিছু যদি হয় হারাতে হয়
সকল কিছু হারাবো তবু।
হাতে হাত রেখে যাব হাততো ছাড়বো না।
আমরা হাততো ছাড়বো না।
বহু সাধনায় ধরেছি যে হাত সে হাত ছাড়বো না

মওলা তুমি সাজিয়ে মেলা উপরে বসে দেখছ খেলা
আমরা যত কাঠ পুতলা, খেলে যাচ্ছি সকাল সন্ধ্যা বেলা
খেলতে খেলতে যায় যে বলা, অনেক খেলা খেলতে বাকি খেলা হলো না।
তবু আমরা হাততো ছাড়বো না।
বহু সাধনায় ধরেছি যে হাত সে হাত ছাড়বো না

মোরা আর জনমে

আহসান হাবিব
হাসনাবাদ
৮/১/২০২১
মোরা আর জনমে কি ছিলাম জানিনে কি ছিলাম
এই জনমে মানব রুপে এই ধরাতে এলাম
এ জনমে মানবের সাধ পূর্ণ হলো তোমায় পেয়ে গেলাম।
মোরা আর জনমে কি ছিলাম জানিনে কি ছিলাম

এই যে পুকুর এই যে নদী এই যে সাগর বেলা
ঘুরেছি ফিরেছি, হেসে খেলে কাটিয়েছি কত বেলা
এ জনমে মানবের সাধ পূর্ণ হলো তোমায় পেয়ে গেলাম।
মোরা আর জনমে কি ছিলাম জানিনে কি ছিলাম।

মনের ছোট্টো পাখায় ভর করে উড়িতে চেয়েছি ঔই আকাশ
খনিক উড়েছি আর পড়েছি উড়ার হয়নি অবকাশ
এ জনমে মানবের সাধ পূর্ণ হলো তোমায় পেয়ে গেলাম।
মোরা আর জনমে কি ছিলাম জানিনে কি ছিলাম

না যেও না যেও না গো

আহসান হাবিব
হাসনাবাদ সেনা ক্যাম্প
৪/১/২০২১
না যেও না যেও না গো//গান

না যেও না, যেও না গো, রজনী এখনো বাকি। শুকতারা উঠেছে কি? সাজি ভরেনি ফুলে,
আরো কিছু নাও গো
না যেও না যেও না গো।

হেলায় ফেলায় কাটলো রাতি, কুঞ্জে ডাকেনি পাখি
কত কথা বুকে রেখেছি গাথি, হলো না হলো না বলা ওগো।
না যেও না যেও না গো।
এই তো সেদিন এলে দ্বারে, সাধ না মিটিতে শর বিধা পাখিটারে।।
রেখে একেলা কোথায় যাবে চলে, যেও না, না যেয়ো না গো।

যে তোমাকে বাসিল ভাল

আহসান হাবিব
হাসনাবাদ
৪/১/২০২১

যে তোমাকে বাসিল ভাল//গান

ভালোবাসা যদি না খাটি কি হবে আর কাঁদিয়া
যে তোমাকে বাসিল ভাল যেও না তাকে ছাড়িয়া।

আষাঢ় শ্রাবণ ঝড়ো বৃষ্টি পানি থৈ থৈ করে
নদীর জলে বান ডেকে যায় ভেসে যায় জোয়ারে
প্রেম সাগড়ে মাস লাগে না সদাই যায় বান ডাকিয়া
যে তোমাকে বাসিল ভাল যেও না তাকে ছাড়িয়া

ফাল্গুন চৈত্রে ভীষণ খরা মাঠ ঘাট ফেটে চৌচির
চাতক চাহে উর্ধাকাশে প্রাণীকুল তৃষ্ণায় অস্থির
প্রেম সাগড়ে খরা এলে কাটে না জনম ভরিয়া
যে তোমাকে বাসিল ভাল যেও না তাকে ছাড়িয়া

কেউ কি জানে

আহসান হাবিব
হাসনাবাদ
১/২/২০২১

বন্ধু দ্বিজেন,
চাটগায়ের সি এস ডির শূণ্য বেঞ্চে দুজনে কত দিন সন্ধার পর গুনগুনিয়ে কাটিয়েছি।
আজ কেন জানি তোমাকে খুব মনে পড়ছে।
তুমি কি আমার মনের আকুতি শুনতে পাবে।
পেলে চলে এসো ঘুমের ঘোরে, মুছিয়ে দিতে মম আঁখি জল।
কেউ কি জানে// গান
(তোমাকে উৎসর্গীকৃত)

আমাার প্রাণের যে জন কেউ কি জানে, কেউ কি জানে।
আমার গানের দোলা লাগে কি তাহার প্রাণে
কেউ কি জানে, কেউ কি জানে।
কোকিলের কুহু কুহু কিউ, যমুনার ছলছল ঢেউ
সকাল সাঝে বুকের মাঝে তুলে যে বিরহের ঢেউ
এই বিরহের ঢেউ দেয় কি দোলা তাহার প্রাণে
কেউ কি জানে, কেউ কি জানে।
আমাার প্রাণের যে জন কেউ কি জানে।।

ধানের ক্ষেতে পবন ঢেউ তুলে, যায় চলে যায় কোন হিয়ার তলে
ওই বিরহী কেকা, বন বাদারে ডাকে একা একা
এই বিরহের সুর দেয় কি দোলা তাহার প্রাণে
কেউ কি জানে, কেউ কি জানে।
আমাার প্রাণের যে জন কেউ কি জানে।।

তুমি ভালবাস না মোরে

আহসান হাবিব
হাসনাবাদ
২৯/১/২০২১
তুমি ভালবাস না মোরে//গান

তুমি ভালবাস না মোরে সে তো আমি জানি
তবু থাকি থাকি জেগে উঠে তব দিলে প্রেমাগ্নি।
প্রেম তো তুষের আগুন সুপ্তভাবে জ্বলে ধিকেধিকে
কারো সমাপ্তি ঘটে মিলনে কারো ভালে শুধু গ্লানি।
তুমি ভালবাস না মোরে সে তো আমি জানি।

মাঝে মাঝে কর অভিনয় আমি ছাড়া আর কেউ আপন নয়
উচুনিচুর/ বড় ছোটর হাওয়া দিলে লেখে হয় তার অবক্ষয়
মন যমুনার নাগরদোলায়, সাজি শূন্য বেলা অবেলায়
এমনি করেই যাচ্ছে এগিয়ে মোদের প্রেমের তরি খানি
তুমি ভালবাস না মোরে সে তো আমি জানি।

এই যেন প্রেমের জোয়ার বইছে প্রেম যমুনায়
এই দেখি ভাটার টানে নেই কোন কানাকানি প্রেম ঝুলনায়
যাব কি যাব না, পাব কি পাব না,উচাটন মন
সদা হয় পেরেশানি।
তুমি ভালবাস না মোরে সে তো আমি জানি।

ওগো বন্ধু আমার একটু বস

আহসান হাবিব
হাসনাবাদ
২৮/১/২০২১

ওগো বন্ধু আমার একটু বস মনের কথা এখনো
হয়নি বলা।
কতদিন কত রাত কেটে গেছে মনের কথা মনেই আছে যায়নি বলা।
ওগো বন্ধু আমার একটু বস মনের কথা এখনো
হয়নি বলা।

ওই যে দেখ গাছে ফুল ধরেছে, আবার তাতে ফলও হয়েছে
আমরাও সবার মতো সবই করেছি তবু কেন যে মনে হয় কিছু কথা হয়নি বলা।
ওগো বন্ধু আমার একটু বস মনের কথা এখনো
হয়নি বলা।

ভ্রমরের মত আমি এসেছি তব দ্বারে, তুমিও দিয়েছ সবই উজার করে
হেসেছি খেলেছি গেয়েছি গান,সুর তাল লয়ের উড়িয়েছি বাণ।
তবু কিছু কথা কিছু গান সুর তাল লয়ের বান উড়ানো হয়নি হয়নি বলা।
ওগো বন্ধু আমার একটু বস মনের কথা এখনো
হয়নি বলা।

আল্লাহ আল্লাহ বলে

আহসান হাবিব
হাসনাবাদ
১৭/১/২০২১

আল্লাহ আল্লাহ বলে//

আল্লাহ আল্লাহ বলে কাঁদে প্রাণী কুলে
কাঁদে নিপতরু কাঁদে মৎস্য কুলে
আল্লাহ আল্লাহ বলে।।
কত না জীবে কাঁদে, কাঁদে ওই সমুদ্র তলে
আল্লাহ আল্লাহ বলে।

দেখা যায় না চোখে জ্বীন পরীর দলে
শূন্য গগন তলে হাজারো কোটি ফেরেসতা দলে
কাঁদে আল্লাহ আল্লাহ বলে।

পীর পয়গম্বর গনে রাত্রি জাগরণে
কি অমোঘ টানে কি সুধা পেতে প্রাণে
সুখ শান্তি ত্যজ্য করে, বিবি বাচ্চাকে ভুলে
কাঁদে আল্লাহ আল্লাহ বলে।

মাটির চাদর তলে, আছে যত প্রাণী মৃতচ্ছলে
চলিতে নাহি পারে দেখিতে পায় কি তোমারে
তবু সুখ দুখ যা দাও তারে, পুরস্কার জ্ঞানে বলে,
কাঁদে আল্লাহ আল্লাহ বলে।

সই বলে দে বলে দে আমায় কি করিল সে।

আহসান হাবিব //সই বলে দে বলে দে
হাসনাবাদ
১৪/১/২০২১

সই বল আমারে বল আমারে কি করিল সে
কাজে কর্মে সদা হেলা, হা-হুতাশে যায় যে বেলা
আমি তো নই আমার মাঝে কি হইতে যে কি হইয়াছে
সই বলে দে বলে দে আমায় কি করিল সে।

সখি তাহার ধৈর্য বেশী এটাই আমার গলার ফাঁসি
একবার যদি বিধে গলে ছুটে না আর এই জনমে
তাহারি তরে মর্ম পুড়ে অঙ্গার হইয়াছে।
সই বলে দে বলে দে আমায় কি করিল সে।

নিন্দার কাটা না লাগলে গায় প্রেম কি সফল হয়
এ সব ভেবে কেন তবে সে দুরে দুরে রয়
সই দুরে দুরে রয়।
আম বলিতে জাম বলি, ছাগল বলে পাগল বলি
তবে কি এই অভাগিনী তাহারি তরে পাগল হইয়াছে।
সই বলে দে বলে দে আমায় কি করিল সে।

আমার মন চাহে না

আমার মন চাহে না
হাসনাবাদ
৬/১/২০২১

আমার মন চাহে না স্বজনী আমার মন চাহে না
সাত রঙা ধরনী সুধা ভরা জীবনী ছাড়িত অবনী
আমার মন চাহে না।
ওগো স্বজনী আমার মন চাহে না।

কি সুন্দর বাড়ি কত দামী গাড়ি বিউটিকুইন নারী
ছাড়িতে অবনী আমার মন চাহে না।
এ জমিদারি, টাকা কাড়িকাড়ি, যাইতে সকল ছাড়ি
ছাড়িতে অবনী আমার মন চাহে না।

আগে যদি জানিতাম, তবে কি আর আসিতাম,
ধরনীর রংগ নাট্য শালে,
মাওলারে করুনা ভরে, কহিতাম সকাতরে,
না ভাবিয়া কি আছে ভালে।
যত খেলা দেখিতে চাও, হেথায় খেলায়ে লাও
যাবো না তোমায় ছাড়ি
ওগো স্বজনী আমার মন চাহে না।
ছাড়িতে অবনী আমার মন চাহে না।

ছেলে মেয়ে ভাই বেরাদার, অকারণে করি অহংকার
যাইবার কালে কে হবে আর, সংগের সাথি
বালিশ ছাড়া মাটির বিছানা, কোল বালিশের নাইতো খানা, আন্ধার ঘরে নাইকো বাতি।
কেমনে থাকি সকাল বিকাল রাতের খাবার ছাড়ি।
ওগো স্বজনী আমার মন চাহে না।

আমায় না হয় রাখিলে পাশে

আবুল হোসেন //আমায় না হয় রাখিলে পাশে
হাসনাবাদ
৫/১/২০২১
সখি আমায় না হয় রাখিলে পাশে
কত মরু কত নিপ তরু পেরিয়ে এসেছি তব কাছে
সখি আমায় না হয় রাখিলে পাশে।

দেখ বাহিরে ঝর ঝর বারিষ ঝরে
বৃক্ষ তলে দাড়ায়ে রুধিতে বারিষ, রুধিতে নারে।
সমীরণ সজোরে করাঘাতে বৃক্ষশাখা দুলে
বেশন ভুষন যত সিক্ত বারিষে ফুলে
সর্বনাশা আধার ঘিরিয়া চারিধার অট্টহাসিতে হাসে।
সখি আমায় না হয় রাখিলে পাশে।

আছে যত ভেকের দল, দল বেঁধে করে কোলাহল
জুনাকি থাকি থাকি মৃদু আলোতে একি,
করিছে রঙ্গ খেলা,
খোপাখব ধ্বনি তুলে মতস্য কুল লাফিয়ে চলে
কে যেন আমায় বলে গেল যে বেলা।
যেথা যাবে যাও, কেন কেন ফিরে চাও
সে কি আসিবে, আসিবে কোন সে অবকাশে।
সখি আমায় না হয় রাখিলে পাশে।

কি হবে ভেবে ভেবে

আবুল হোসেন
হাসনাবাদ
৪/১/২০২১
ব্যর্থ জীবন কি হবে ভেবে ভেবে
জীবন তো চলেই গেছে আর কতদিনই রব এ ভবে।।
যমুনায় দেখ শূন্য তরী দুলে যেমন
বাবুই পাখির বাসা শূন্যে দোলে কেমন
জীবন নদীর দু'ধারে তেমন শূন্য শূন্যই রবে।
কি হবে ভেবে ভেবে।
যোগ বিয়োগের অংক কষি মিলাতে হিসাব অহর্নিশি।
এখানে গড়ে তো ওখানে ভাংগে, ভাংগা গড়ায় চলে দিবানিশি
চলে জীবন ভাবি ক্ষনে ক্ষণ কি হবে কি হবে কি আর হবে।
কি হবে ভেবে ভেবে।

ব্যানার

আমরা বন্ধু ব্লগের জন্য যে কেউ ব্যানার করতে পারেন। ব্যানার প্রদর্শনের ব্যাপারে নির্বাচকমণ্ডলীর সিদ্ধান্তই চুড়ান্ত। আকার ১০০০ x ১৫০ পিক্সেল। ইমেইল করে দিন zogazog এট আমরাবন্ধু ডট com এবং সেই সাথে ফ্লিকার থ্রেডে আপলোড করুন ফ্লিকার থ্রেড

● আজকের ব্যানার শিল্পী : নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

ব্যানারালোচনা

সপ্তাহের সেরা পাঁচ