অনুসন্ধান

ইউজার লগইন

অনলাইনে

এখন জন সদস্য অনলাইন

অনলাইন সদস্য

যে ভাবেই পথ চলি

আহসান হাবিব / যে ভাবেই পথ চলি
৭/৩/২০২২
এই পৃথিবীতে যেভাবেই পথ চলি
আজ না হয় কাল থামতেই হবে।
ধীরে চলি বা দ্রুত চলি একদিন
তো থামতেই হবে।।
সুখে থাকি দুখে থাকি,
দরিদ্র বা ধনী থাকি
পথ তো চলতেই হবে
একদিন তো থামতেই হবে।

কেউ বা জগৎ বিখ্যাত হয়ে
কেউ আঁধারের অধস্তনে গিয়ে
কেউ খেতে না পেরে ছুড়ে ফেলে
কেউ ডাস্টবিনের খাবার গো গ্রাসে গেলে
কিই বা যায় আসে তাতে
একদিন তো যেতেই হবে।
তাই তো পথ চলতেই হবে
একদিন তো থামতেই হবে।

পৌ পৌ পৌ

আহসান হাবিব/পৌ পৌ পৌ
২৫/০২/২০২২
আজ দুপুরেের পর থেকে
অনবরত একটি পাখি
পৌ পৌ পৌ ডেকে যাচ্ছে।
কি যে করুন সুর
আর মেলডী।

যখন ছোট ছিলাম
গ্রামের বাড়ীতে
প্রায়ই এই ডাক শুনতে
পেতাম।
এই ডাক শুনলে মা সহ্য
করতে পারতেন না।
মায়ের ধারনা ছিল
এই পাখিটি তার
পুত্রকে হারিয়েছে
তাই পুত্রের কথা মনে হলেই
সে পৌ পৌ করে কেঁদে
শোক করতে থাকে।
কাছাকাছি হলে মা পাখিটিকে
তাড়িয়ে দিতেন।
কারণ আমার পিঠাপিঠি বড়
ভাই
কোন এক রুগে কদিন জ্বরে
ভুগেই মারা যান।
তাই মা এই পাখির ডাক শুনলে
সহ্য করতে পারতেন না।
আজ আমারো এই ডাকটি
সহ্য হচ্ছে না।
২০১০ সালে আপন ঠিকানায়
চলে যাওয়া মার কথা
খুব মনে পড়ছে।
আর মনে পড়ছে
সেই রেললাইনে ধারে
মেঠো পথটার পারে দাড়িয়ে
এক মধ্য বয়সী নারি
এখনো রয়েছে হাত বাড়িয়ে
খোকা ফিরবে
ঘরে ফিরবে
নাকি ফিরবে না।
এই গানটি।
আমাদের গীতিকার জগতের
তারকা গীতিকার

দুনিয়া হতে আখেরাত ভালো

আহসান হাবিব/দুনিয়া হতে আখেরাত ভালো
২৮/২/২০২২

দুনিয়া হতে আখেরাত ভালো
জানো না কি ভাই
মহান আল্লাহ জানিয়েছেন তাই
সন্দেহের কিছু নাই।
দুনিয়া হতে আখেরাত ভালো
জানো না কি ভাই

আল্লাহর পেয়ারা হবেন যিনি
বেশুমার নেয়ামত পাবেন তিনি
সন্তোষ্ট চিত্তে রবে তুমি
আর কি বল চাই।।
দুনিয়া হতে আখেরাত ভালো
জানো না কি ভাই।

এতিম কে ধমক না দেই ভাই
প্রার্থীকে না করি তিরস্কার।
রব যে আমার কষ্ট পায় ভাই
তাই করো না অহংকার।
তুমিও ধ্বংস হয়ে যাবে
কত নজীর আছে ভাই।
দুনিয়া হতে আখেরাত ভালো
জানো না কি ভাই।

পরনিন্দা করো না ভাই

আহসান হাবিব
২৪/০২/২০২২

পরনিন্দা করো না ভাই সামনে
কিংবা পিছে।
ধ্বংস হয়ে যাবে তুমি কথা
নয়তো মিছে।

সম্পদ জমাইও না ভাই অধিক
লাভের আশে।
জগৎ ছেড়ে যাবার সময়
কিছুই রবে না পাশে।
তাই মিছে মোহ ছাড় বন্ধু
দুনিয়াটাই মিছে।
ধ্বংস হয়ে যাবে তুমি কথা
নয়তো মিছে।

ভাবো যদি সম্পদ তোমার
থাকবে চিরকাল
এই সম্পদি পরকালে
হবে তোমার কাল।
তাই মিছে মোহ ছাড় বন্ধু
দুনিয়াটাই মিছে।
ধ্বংস হয়ে যাবে তুমি কথা
নয়তো মিছে।

এই দুনিয়ায় হিসাব না দিলে
যাবে দুদকেরই জেলে
পরকালেও রেখেছেন খোদা
হুতামা দোজখ জ্বেলে।।
তাই মিছে মোহ ছাড় বন্ধু
দুনিয়াটাই মিছে।
ধ্বংস হয়ে যাবে তুমি কথা
নয়তো মিছে।

ফজরের দুই রাকাত সুন্নত নামাজ

আহসান হাবিব /ফজরের দুই রাকাত সুন্নত নামাজ
সময় মত পড়।
২২/২/২০২২
ফজরের দুই রাকাত সুন্নত নামাজ
সময় মত পড়।
আসমান জমীনের মাঝে যা আছে
হায়রে
তাহার চেয়েও অনেক বড়।
ভাইরে
ফজরের দুই রাকাত সুন্নত নামাজ
সময় মত পড়।
সুন্নতের যদি এমন দাম হয়
ফরজের দাম কত
আল্লাহ তায়ালায় ভালো জানেন
দিবেন ইচ্ছামত।
তাই অধম আবুল বলে
অবহেলা না কর ভাই
সময়মত নামাজ পড়।
ফজরের দুই রাকাত সুন্নত নামাজ
সময় মত পড়।

ঔই শুন ভোরের বেলা,
পাখির কিচির মিচির
ডাকে নিত্য ওঠ সবাই
হইয়া অস্থির।
প্রকৃতিতেই সকল শিক্ষা
হে মানব সকল কেন অবহেলা কর।
ভাইরে
ফজরের দুই রাকাত সুন্নত নামাজ
সময় মত পড়।

ভোরের বেলা উঠে পাখি
ছুটে যায় খাবার অন্বেষণে
সন্ধাকালে ফিরে আসে নীড়ে
খাবার খেয়ে
আবার সেই কিচির মিচির গানে।
আমি তুমি এটা পালন করলে
ধনে জনে ভরে উঠবে
আমার ছোট্ট ঘর।
ফজরের দুই রাকাত সুন্নত নামাজ
সময় মত পড়।

ওরে ও দক্ষিণা বাতাস

গীতিকবিতা/ ওরে ও দক্ষিণা বাতাস
আহসান হাবিব
২১/২/২০২২

ওরে ও দক্ষিণা বাতাস
কোথায় বইয়া যাও
কোথায় তোমার বাড়ি ঘর হায়
আমায় কইয়া যাও।

শান্ত হয়ে বহে গেলে
কি যে লাগে ভালো
তোমার ছোয়ায় দিলে মনে
জ্বলে প্রেমের আলো
তুমি বন্ধু আনন্দ নাচাও
আবার দুঃখের কারণ হও।
কোথায় তোমার বাড়ি ঘর হায়
আমায় কইয়া যাও।

কি যে তোমার হয় মাঝে মাঝে
বুঝতে নারি আমি
ঝড়ের রুপে সব ধ্বংস কর
মহাকাল হইয়া তুমি
কত জনবল কত জনপথ
ধ্বংস করে যাও।
কোথায় তোমার বাড়ি ঘর হায়
আমায় কইয়া যাও।

আমার ঘরে থাক তুমি
আমারে না কইয়া
কেমনে তুমি যাও গো চলে
এমন নিষ্ঠুর হইয়া।
তোমার চাওয়ার কি না দিছি
একটু বলে যাও।
কোথায় তোমার বাড়ি ঘর হায়
আমায় কইয়া যাও।

ফজরের দুই রাকাত সুন্নত নামাজ সময়মত পড়

আহসান হাবিব/ফজরের দুই রাকাত সুন্নত নামাজ
সময় মত পড়।
২২/২/২০২২
ফজরের দুই রাকাত সুন্নত নামাজ
সময় মত পড়।
আসমান জমীনের মাঝে যা আছে
হায়রে
তাহার চেয়েও অনেক বড়।
ভাইরে
ফজরের দুই রাকাত সুন্নত নামাজ
সময় মত পড়।
সুন্নতের যদি এমন দাম হয়
ফরজের দাম কত
আল্লাহ তায়ালায় ভালো জানেন
দিবেন ইচ্ছামত।
তাই অধম আবুল বলে
অবহেলা না কর ভাই
সময়মত নামাজ পড়।
ফজরের দুই রাকাত সুন্নত নামাজ
সময় মত পড়।

ঔই শুন ভোরের বেলা,
পাখির কিচির মিচির
ডাকে নিত্য ওঠ সবাই
হইয়া অস্থির।
প্রকৃতিতেই সকল শিক্ষা
হে মানব সকল কেন অবহেলা কর।
ভাইরে
ফজরের দুই রাকাত সুন্নত নামাজ
সময় মত পড়।

ভোরের বেলা উঠে পাখি
ছুটে যায় খাবার অন্বেষণে
সন্ধাকালে ফিরে আসে নীড়ে
খাবার খেয়ে
আবার সেই কিচির মিচির গানে।
আমি তুমি এটা পালন করলে
ধনে জনে ভরে উঠবে
আমার ছোট্ট ঘর।
ফজরের দুই রাকাত সুন্নত নামাজ
সময় মত পড়।

ফজরের দুই রাকাত সুন্নত নামাজ সময়মত পড়

আহসান হাবিব/ফজরের দুই রাকাত সুন্নত নামাজ
সময় মত পড়।
২২/২/২০২২
ফজরের দুই রাকাত সুন্নত নামাজ
সময় মত পড়।
আসমান জমীনের মাঝে যা আছে
হায়রে
তাহার চেয়েও অনেক বড়।
ভাইরে
ফজরের দুই রাকাত সুন্নত নামাজ
সময় মত পড়।
সুন্নতের যদি এমন দাম হয়
ফরজের দাম কত
আল্লাহ তায়ালায় ভালো জানেন
দিবেন ইচ্ছামত।
তাই অধম আবুল বলে
অবহেলা না কর ভাই
সময়মত নামাজ পড়।
ফজরের দুই রাকাত সুন্নত নামাজ
সময় মত পড়।

ঔই শুন ভোরের বেলা,
পাখির কিচির মিচির
ডাকে নিত্য ওঠ সবাই
হইয়া অস্থির।
প্রকৃতিতেই সকল শিক্ষা
হে মানব সকল কেন অবহেলা কর।
ভাইরে
ফজরের দুই রাকাত সুন্নত নামাজ
সময় মত পড়।

ভোরের বেলা উঠে পাখি
ছুটে যায় খাবার অন্বেষণে
সন্ধাকালে ফিরে আসে নীড়ে
খাবার খেয়ে
আবার সেই কিচির মিচির গানে।
আমি তুমি এটা পালন করলে
ধনে জনে ভরে উঠবে
আমার ছোট্ট ঘর।
ফজরের দুই রাকাত সুন্নত নামাজ
সময় মত পড়।

প্রভাত ফেরী

প্রভাত ফেরী
আজ আকাশে অনেক তারার মেলা
কিছু নক্ষত্রও চোখে পড়ছে
কিন্তু নক্ষত্রের যে গুন ঝাপসা ঝাপসা দেখতে
তাই পরিষ্কার কিছু বুঝতে পারছি না।
যাই হউক কিছু একটা ঘটছে আকাশে
আনন্দ বেদনার মাখামাখি,
ভাল করে লক্ষ্য কর তো?
কি কিসের গুঞ্জন শুনা যাচ্ছে?
ও প্রভাত ফেরী,
প্রভাত ফেরী, প্রভাত ফেরী, সংগে মোরে নাও।
সুরে সুরে নগ্ন পায়ে, কোথায় তুমি যাও?
কিসের টানে, কিসের আশায়, ছূটছ তুমি ধেয়ে
লালা গোলাপের সংগে নিলে, কৃষ্ণ চুড়ার মেয়ে।
প্রভাত ফেরী প্রভাত ফেরী কোথায় তোমার জন্ম?
পিছ ঢালা পথ, রক্তে শপথ রক্ত মেখে ধন্য।
কামার কুমার তাতী জেলে সবার মুখে ভাই
মাতৃ ভাষার চেয়ে মধুর আর যে কিছু নাই।
প্রভাত ফেরী প্রভাত ফেরী তোমায় শপথ অগ্নি।
ফাগুনেরই শোকের বসন পড়েছে মা ভগ্নি।
শহীদ হল সালাম বরকত জব্বার ও নাম না জানা ভাই
আগে পরে সব শহীদকে ছালামও জানাই।
রক্ত কভু যায় না বৃথা তাই দেখি নয়ন জুড়ে,

গল্প: হয়তো ক্যারিবিয়ান অঞ্চলেই আমাদের দুজনের কোন একদিন দেখা হবে

১.
ঝরা পাতা নাম ছিল মেয়েটির- খুব প্রচলিত একটা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। ছবি, নিজস্ব এক্সপ্রেশনের ভিডিও, মাঝে মাঝে মনের খেয়ালে গেয়ে ফেলা কোন রবীন্দ্র সঙ্গীত এসবই বেশি ভাগাভাগি করে নিতো সে নিজের অনুসারীদের সাথে। আবার কখনো-সখনো সমাজ, প্রচলিত কুসংস্কার, ব্যবস্থাপনা, পুরোনো নিয়ম-নীতির যেসব অগ্রযাত্রার চেয়ে পশ্চাদপদতায় বেশি করে জ্বালানি যোগায়- তার বিরুদ্ধে লিখতো। মেয়েটিকে আমি মাঝে মাঝে ওই সামাজিক মাধ্যমেই দেখতাম।

ওর পোস্ট দেখলে সবসময়ই আমার ভেতর কেমন যেন একটা আগ্রহ তৈরি হতো। কোনো কারণ কিন্তু দৃশ্যত থাকার কথা নেই। তাও হতো। দুজনের কোন পূর্বপরিচয় নেই আমাদের। নেই ভবিষ্যতে পরিচিত হবারও সহজ কোনো সম্ভাবন। তারপরও ভালই লাগতো মেয়েটির কার্যকলাপ অনুসরণ করতে।

তোমাকে পড়ে না মনে

কবিতা/ তোমাকে পড়ে না মনে
আহসান হাবিব
১৫/২/২০২২
এখন তোমাকে পড়ে না আর মনে
তোমাকে না দেখতে দেখতে
কেমন যেন ঝাপসা হয়ে গেছে
তোমার মুখখানা।
অথচ এই মুখখানাই ছিল
এক সময় পৃথিবীর সবচেয়ে সুন্দর মুখ।
এই মুখখানার যিনি মালিক
তাকে ছাড়া বাঁচতে পারব তা
কল্পনাতেও সম্ভব ছিল না।

তুমি যে দিন
বাংলাদেশ ছেড়ে চলে গেলে
তার ক'দিন আগে এসেছিলে
কত কথা হলো, হাসি আনন্দ,
বিশ্বাস কর তোমার দেশে ফেরার আনন্দ
আমাকেও কি ভাবে প্রভাবিত করেছিল।
আমি তোমাকে বলতে পারিনি।
দেশে পৌছার আগ পর্যন্ত প্রতিটি মুহূর্ত
একে অপরের আপডেট যেন লাইভ হচ্ছিল।

হঠাৎ দুূূদিন তুমি কন্টক্ট এর বাইরে।
দুশ্চিন্তায় অবর্ননীয় অবস্থা আমার।
তৃতীয় দিন তোমার ছোট্ট মেসেজ
আংগুল কেটে ফেলেছি
সাথে কাটা আংগুল এবং কান্না কান্না
কটা ছবি।
সেদিন তোমায় অনেক বকেছিলাম
তোমার অসাবধানতার জন্য।
মুখ বুঝে সব বকুনি সহ্য করেছিলে।

ঝগড়া

কবিতা/ ঝগড়া
আহসান হাবিব
১৩/১/২০২২

ভেবেছিলাম বালিয়াড়িতেই বাধব
একখানা ঘর
থাকবো তোকে নিয়ে।
কতবার আরম্ভ করেছি
হয়নি তোর পছন্দ
এখানে এটা না, এখানে এটা দাও
ওখানে এটা চলবে না।
সরলরেখা বক্ররেখা তখনো কারো
জানা ছিল না।
বালিতেই এঁকে এঁকে একে অপরকে
বুঝাতাম।
হঠাৎ বালিয়াড়ি ঝড়ে আরম্ভ করা
ঘর, দালান নিশ্চিহ্ন।
হলোনা ঘর, বাধা হলো না আর।
সাড়াদিন শুধু ঝগড়াই করতাম
এটা নিয়ে ওটা নিয়ে
যেন ঝগড়া করার জন্যই
মোদের জন্ম।
আবার দুদম্ড না দেখলে কারো
সহ্য হতো না।
থাকা যেত না।
এই নিয়ে আবার ঝগড়া।।
ঝগড়ার বাধন, সে যে কি
শক্ত, কি যে কষ্টের।।
তুই যেদিন লাল শাড়ি পরে
চলে যাচ্ছিলি
সেদিনও বালিয়াড়ির ঘর বাধার
মতো খেলাই মনে করেছিলাম।
পরদিনই বুঝতে পারি
না এটা বালিয়াড়ির ঘরের মতো
চাইলে সরলরেখা বক্ররেখায় বদলানো
যায় না।
আস্তে আস্তে বুকের ভিতর
চিন চিন টন টন
যতরকম ব্যথা আছে
করতে লাগলো।

কোথায় তোমায় পাব মুরশিদ

গীতিকবিতা/কোথায় তোমায় পাব মুরশিদ
আহসান হাবিব
১১/১/২০২২ খৃষ্টাব্দ

কোথায় তোমায় পাব মুরশিদ
কোথায় বাড়ীঘর
এত ডাকি তবু কেন নাও না
মোর খবর।

দেখতে নারি তাও দিয়েছ
সকল ভান্ডার খুলে
শুকর গুজার হয়না আমার
সদাই যাই গো ভুলে,
আমি সদাই যাই গো ভুলে।
দেখতে তোমায় পাগল-পারা
জনম জনম ভর।
এত ডাকি তবু কেন নাও না
মোর খবর।

এই ফল ফসল এই যে ভূমি,
এই যে সাগর এই নদী
সকল প্রাণী, সকল পানি
না চাইতেই দিলে তুমি
শুধু দেখতেই তোমায়
পাই না আমি।
দেখতে তোমায় পাগল-পারা
জনম জনম ভর।
এত ডাকি তবু কেন নাও না
মোর খবর।

কোথায় তোমায় পাব মুরশিদ

গীতিকবিতা/কোথায় তোমায় পাব মুরশিদ
আহসান হাবিব
১১/১/২০২২ খৃষ্টাব্দ

কোথায় তোমায় পাব মুরশিদ
কোথায় বাড়ীঘর
এত ডাকি তবু কেন নাও না
মোর খবর।

দেখতে নারি তাও দিয়েছ
সকল ভান্ডার খুলে
শুকর গুজার হয়না আমার
সদাই যাই গো ভুলে,
আমি সদাই যাই গো ভুলে।
দেখতে তোমায় পাগল-পারা
জনম জনম ভর।
এত ডাকি তবু কেন নাও না
মোর খবর।

এই ফল ফসল এই যে ভূমি,
এই যে সাগর এই নদী
সকল প্রাণী, সকল পানি
না চাইতেই দিলে তুমি
শুধু দেখতেই তোমায়
পাই না আমি।
দেখতে তোমায় পাগল-পারা
জনম জনম ভর।
এত ডাকি তবু কেন নাও না
মোর খবর।

একাত্তরের বিদেশি সুহৃদঃ দুঃসময়ের সারথি

আমাদের মুক্তিযুদ্ধে বিদেশি সুহৃদদের অবদান নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বাংলা ব্লগ ও ফেসবুকে সিরিজ আকারে আমার পোষ্টকৃত লেখাগুলো এ বছর দুই মলাটের মধ্যে বাঁধাই হয়ে পাঠকদের সামনে আসার সুযোগ ঘটলো। অবশেষে প্রকাশিত হলো “একাত্তরের বিদেশি সুহৃদঃ দুঃসময়ের সারথি” গ্রন্থটি।
অসংখ্য ধন্যবাদ “আমরা বন্ধু”র সহব্লগারদের, যাদের নিরন্তর উৎসাহ লেখাটা সম্পন্ন করতে আমাকে অনুপ্রেরণা যুগিয়েছে। আরও ধন্যবাদ আমার সেইসব বন্ধুদের যাদের আন্তরিক সহায়তা আমার এই উদ্যোগটিকে সফল করার পেছনে বিশেষ ভুমিকা রেখেছে।
আসছে একুশে বইমেলায় চিরদিন প্রকাশনীর ৬৮ নম্বর স্টলে বইটি পাওয়া যাবে। সবাইকে বইমেলায় আমন্ত্রণ রইলো।

Published Book_1.jpeg

ব্যানার

আমরা বন্ধু ব্লগের জন্য যে কেউ ব্যানার করতে পারেন। ব্যানার প্রদর্শনের ব্যাপারে নির্বাচকমণ্ডলীর সিদ্ধান্তই চুড়ান্ত। আকার ১০০০ x ১৫০ পিক্সেল। ইমেইল করে দিন zogazog এট আমরাবন্ধু ডট com এবং সেই সাথে ফ্লিকার থ্রেডে আপলোড করুন ফ্লিকার থ্রেড

● আজকের ব্যানার শিল্পী : নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

ব্যানারালোচনা

সপ্তাহের সেরা পাঁচ